The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪

রাবির নৃবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরা মেতেছেন মিলন মেলায়

সোহানুর রহমান, রাবিঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম পুনর্মিলনীতে হৈ-হুল্লোড় আর আড্ডায় মেতে উঠেছেন বিভাগটির সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরা। ‘অ্যানথ্রোপলজি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন’র আয়োজনে দুই দিনব্যাপী এই পুনর্মিলনীতে অংশ নিতে পাড়ি জমিয়েছে বিভাগের প্রায় পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী।

শুক্রবার (১০ মার্চ) সকাল ১০টায় বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে পুনর্মিলনীর উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার।

পরে বিভাগটির সামনে থেকে এক বর্ণাঢ্য আনন্দ র‍্যালি বের হয়। র‍্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বর, রবীন্দ্র ভবন, প্যারিস রোড, প্রশাসন ভবনসহ প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিভাগের সামনেই মিলিত হোন তারা। এরপরে শুরু হয় আলোচনা সভা।

অনুষ্ঠান অংশ নিয়ে উচ্ছ্বসিত ১০ম ব্যাচের সাবেক শিক্ষার্থী আজিবুল হক পার্থ বলেন, দীর্ঘদিন পর আমাদের নৃবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম পুনর্মিলনীতে এসে খুবই ভালো লাগছে। বিভাগের সিনিয়র ভাই ও আপুদেরকে পেয়ে এবং জুনিয়রদের সাথে মিলিত হতে পেরে যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন তৈরি হচ্ছে এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকুক। ভালোবাসার এই বন্ধন (বিভাগ) এভাবেই আমাদেরকে আজীবন কাছে রাখবে। দুই দিনব্যাপি এই অনুষ্ঠান সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হোক সেই প্রত্যাশা এই সাবেক রাবিয়ানের।

১৭ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী সাঈদ মাসুম বলেন, ‘নৃবিজ্ঞান বিজ্ঞান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়’, জীবনভর এক উদ্দীপ্ত অনুভূতির নাম। প্রকৃতির নিয়মে এক রৌদ্রজ্জল স্বপ্নীল যাত্রার যে ইতি স্মৃতির পাতাকে খানিক স্তিমিত করেছিল, প্রথম রিইউনিয়নে উপস্থিত থাকতে পেরে সেটা কাটিয়ে নতুন উদ্দোম সঞ্চারিত হল। চিরযৌবনা নৃবিজ্ঞান করিডোরের ছোয়া পেতে বারবার অপেক্ষায় থাকব।

আয়োজন নিয়ে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক মশিউর রহমান সজল বলেন, আমরা অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যেই আয়োজনটি সম্পন্ন করেছি। চেষ্টা করেছি সবার চাওয়া পাওয়াগুলো পূরণ করার। অনুষ্ঠানটি সফল করতে যারা সময় শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা। আগামী দুই দিন অনুষ্ঠানটি সফলভাবে সম্পন্ন হোক সেই প্রত্যাশা করছি।

অ্যালামনাই এসোসিয়েশন’র সভাপতি অধ্যাপক তাহমীনা নাজনীন বলেন, পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের প্রাণ হলের প্রাক্তন ছাত্রীবৃন্দ। আপনারা দূরদূরান্ত থেকে এসে এই অনুষ্ঠানটি যেভাবে প্রাণবন্ত করেছেন তাতে আমি ধন্য। পাশাপাশি বিভাগের বর্তমান শিক্ষার্থীরা তাদের সিনিয়রদের বরন করে নেয়ার জন্য যে উদ্দীপনা দেখিয়েছে তাতে আমি অভিভূত। এসময় তিনি বিভাগের প্রথম পুনর্মিলনী আয়োজনে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

পুনর্মিলনীকে কেন্দ্র করে সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবনের ভেতর ও বাইরে ব্যানার ফেস্টুন এবং বর্ণিল আলোক সাজে সজ্জিত করা হয়েছে।

দুই দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে থাকছে-
উন্মুক্ত আড্ডা, অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সভা, ইনডোর গেইম, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিক্ষক শিক্ষার্থীরে সঙ্গে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের মতবিনিময়, র‌্যাফেল ড্র সহ থাকছে ফটোসেশানের আয়োজন।

অ্যানথ্রোপলজি অ্যালামনাই এসোসিয়েশন’র সভাপতি ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তাহমীনা নাজনীনের সভাপতিত্বে এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ প্রশাসক অধ্যাপক ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি মো. কামাল পাশা।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.