The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
সোমবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

যুক্তরাজ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সুবিধা কমছে!

যুক্তরাজ্যে যেসব বিদেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করেন তারা পড়াশোনা শেষ হলে দেশটিতে চাকরি খোঁজার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় পান। তাদেরে নতুন ভিসার আন্ডারে সেই সুবিধা দেওয়া হয়।

পড়াশোনা শেষ করা শিক্ষার্থীদের এ ভিসার মেয়াদ একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম। যেমন ব্যাচেলর এবং মাস্টার্স শিক্ষার্থীদের ২ বছর এবং পিএইচডি করতে আসা শিক্ষার্থীদের ৩ বছরের সময় দেওয়া হয়।

তবে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুয়েলা ব্রাভারম্যান এই সময়টি কমিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমস বুধবার (২৫ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

দ্য টাইমস জানিয়েছে,  ব্রিটিশ মন্ত্রী সুয়েলা ব্রাভারম্যান প্রস্তাব দিয়েছেন, পড়াশোনা শেষে যারা যুক্তরাজ্যে থাকতে চান তাদের দক্ষতাসম্পন্ন চাকরি খুঁজে নিতে হবে। আর তা না হলে ছয় মাস পর নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মূলত অখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ে শর্ট কোর্স করতে আসা শিক্ষার্থীরা এ ভিসা সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করছেন। এ কারণে এখন নিজেদের নীতি পরিবর্তন করার পরিকল্পনা করছে সরকার।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. স্কলারশিপ
  3. যুক্তরাজ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সুবিধা কমছে!

যুক্তরাজ্যে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সুবিধা কমছে!

যুক্তরাজ্যে যেসব বিদেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করেন তারা পড়াশোনা শেষ হলে দেশটিতে চাকরি খোঁজার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় পান। তাদেরে নতুন ভিসার আন্ডারে সেই সুবিধা দেওয়া হয়।

পড়াশোনা শেষ করা শিক্ষার্থীদের এ ভিসার মেয়াদ একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম। যেমন ব্যাচেলর এবং মাস্টার্স শিক্ষার্থীদের ২ বছর এবং পিএইচডি করতে আসা শিক্ষার্থীদের ৩ বছরের সময় দেওয়া হয়।

তবে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুয়েলা ব্রাভারম্যান এই সময়টি কমিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমস বুধবার (২৫ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

দ্য টাইমস জানিয়েছে,  ব্রিটিশ মন্ত্রী সুয়েলা ব্রাভারম্যান প্রস্তাব দিয়েছেন, পড়াশোনা শেষে যারা যুক্তরাজ্যে থাকতে চান তাদের দক্ষতাসম্পন্ন চাকরি খুঁজে নিতে হবে। আর তা না হলে ছয় মাস পর নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মূলত অখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ে শর্ট কোর্স করতে আসা শিক্ষার্থীরা এ ভিসা সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করছেন। এ কারণে এখন নিজেদের নীতি পরিবর্তন করার পরিকল্পনা করছে সরকার।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন