The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪

মাভাবিপ্রবিতে ৪০ শতাংশ আসন খালি

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষে পঞ্চম ধাপে ভর্তির কার্যক্রম শেষ হয়েছে। এই ধাপে ৩৭ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫টি অনুষদে ১৬ বিভাগের ৮১০ আসনের বিপরীতে মোট ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৮১ জনে। অর্থাৎ এখনও ৩২৯ টি আসন খালি রয়েছে। শতাংশের হিসাবে সেটি ৪০ শতাংশ।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া তথ্যের বাইরে আসন শূণ্য রয়েছে। কারণ ভর্তি বাতিল এর সংখ্যা এই হিসেবে আনা হয়নি। মাভাবিপ্রবিতে ভর্তি কার্যক্রম দেরিতে শুরু হওয়ায় বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ভর্তি অনিশ্চয়তা থেকে অনেকে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে গেছেন। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি বাতিল করে প্রয়াজনীয় কাগজ জমা দিতে সময় লাগছে তাদের। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, নির্ধারিত সময়ে প্রয়োজনীয় কাগজ জমা না দিলে ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে। ভর্তি বাতিল হলে আসন সংখ্যা আরো ফাঁকা হবে। ভর্তি কার্যক্রম অনলাইনে চললেও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সশরীরে বিশ্ববিদ্যালয়ে জমা দিতে হবে। শীঘ্রই কাগজপত্র জমা দেয়ার জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হবে বলে জানা গেছে।

পূর্বঘোষিত ভর্তি নির্দেশনা অনুযায়ী আজ ২৩ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ মেধাতালিকা প্রকাশের কথা রয়েছে এবং ষষ্ঠ মেধাতালিকায় আগামী রবিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) যথারীতি অনলাইনে ভর্তি নেয়া হবে। ভর্তি সংক্রান্ত সকল নির্দেশনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেয়া হয়েছে।

এদিকে ভর্তি কার্যক্রম শেষ না হওয়ায় কবে থেকে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হবে সেবিষয়ে এখনো কোনো তথ্য জানাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। সূত্র বলছে, আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে ক্লাস শুরু হতে পারে। কিন্তু বেশ কিছু বিভাগে এখনও ৮০ ভাগের বেশি আসন খালি থাকায় নবীনদের ক্লাস শুরুর নির্দিষ্ট করে কোনো তারিখ দিচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. মাভাবিপ্রবিতে ৪০ শতাংশ আসন খালি

মাভাবিপ্রবিতে ৪০ শতাংশ আসন খালি

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক প্রথম বর্ষে পঞ্চম ধাপে ভর্তির কার্যক্রম শেষ হয়েছে। এই ধাপে ৩৭ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫টি অনুষদে ১৬ বিভাগের ৮১০ আসনের বিপরীতে মোট ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৮১ জনে। অর্থাৎ এখনও ৩২৯ টি আসন খালি রয়েছে। শতাংশের হিসাবে সেটি ৪০ শতাংশ।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া তথ্যের বাইরে আসন শূণ্য রয়েছে। কারণ ভর্তি বাতিল এর সংখ্যা এই হিসেবে আনা হয়নি। মাভাবিপ্রবিতে ভর্তি কার্যক্রম দেরিতে শুরু হওয়ায় বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ভর্তি অনিশ্চয়তা থেকে অনেকে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে গেছেন। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি বাতিল করে প্রয়াজনীয় কাগজ জমা দিতে সময় লাগছে তাদের। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, নির্ধারিত সময়ে প্রয়োজনীয় কাগজ জমা না দিলে ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে। ভর্তি বাতিল হলে আসন সংখ্যা আরো ফাঁকা হবে। ভর্তি কার্যক্রম অনলাইনে চললেও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সশরীরে বিশ্ববিদ্যালয়ে জমা দিতে হবে। শীঘ্রই কাগজপত্র জমা দেয়ার জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হবে বলে জানা গেছে।

পূর্বঘোষিত ভর্তি নির্দেশনা অনুযায়ী আজ ২৩ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ মেধাতালিকা প্রকাশের কথা রয়েছে এবং ষষ্ঠ মেধাতালিকায় আগামী রবিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) যথারীতি অনলাইনে ভর্তি নেয়া হবে। ভর্তি সংক্রান্ত সকল নির্দেশনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেয়া হয়েছে।

এদিকে ভর্তি কার্যক্রম শেষ না হওয়ায় কবে থেকে প্রথম বর্ষের ক্লাস শুরু হবে সেবিষয়ে এখনো কোনো তথ্য জানাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। সূত্র বলছে, আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে ক্লাস শুরু হতে পারে। কিন্তু বেশ কিছু বিভাগে এখনও ৮০ ভাগের বেশি আসন খালি থাকায় নবীনদের ক্লাস শুরুর নির্দিষ্ট করে কোনো তারিখ দিচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন