The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট রেস্তোরাঁ: শুধু দুজনের জন্য

খুবই মনোরম পরিবেশে রেস্তোরাটি অবস্থিত। রেস্তোরায় আছে ফায়ারওয়ার্ক। বাইরে জ্বলন্ত মোমবাতি। অতিথিদের স্বাগত জানাতে প্রবেশদ্বার ও বাগানের মধ্যে সারি সারি মোমবাতি জ্বলতে থাকে। রেস্তোরায় বুকিং কনফার্ম করার পর অতিথিদের খাবারের মেনু ঠিক করতে হয়। কী ধরনের খাবার হবে, মিষ্টান্ন কী থাকবে, কোন ওয়াইন পরিবেশন হবে, সাজসজ্জা কেমন হবে এমনকি কোন সংগীত বাজবে তাও নির্ধারণ করেন অতিথিরা।

রেস্তোরায় কোন মেনু নেই, অতিথির চাহিদামতোই প্রস্তুত হয় খাবার। গ্রাহকেরাই নির্ধারণ করেন কেমন হবে আলোকসজ্জা, কোন সংগীত বাজবে কামরায়। একটি প্রেমময় সন্ধ্যা কাটানোর মতো এমন দারুণ সব ব্যবস্থা রেখেছে ইতালির এক ছোট্ট রেস্তোরাঁ।

রেস্তোরাঁটির নাম সোলো পার ডুয়ে। যার অর্থ ‘শুধু দুজনের জন্য’। কেবল আকারের জন্যই নয়, আরও অনেক বৈশিষ্ট্যের কারণেও রেস্তোরাঁটি আলাদা। আতশবাজির ব্যবস্থা আছে, রাখা আছে সারি সারি মোমবাতি। কামরায় আভিজাত্যের ছোঁয়া। দুইজন অতিথির জন্য পরিপাটি করে বসানো হয়েছে টেবিল। মনোরম পরিবেশের রেস্তোরাঁটি সাজানো হয়েছে প্রাচীন রোমান বাড়ির আদলে। এখানে খেতে দুজনকে গুণতে হয় ৫০০ মার্কিন ডলারের কাছাকাছি। অতিথিদের রুচি ও ইচ্ছা অনুযায়ী প্রস্তুত করা হয় খাবার।  তবে সে খাবার হতে হবে ইতালিয়ান। তবে শ্যাম্পেইন, ওয়াইন ও ফুলেল সাজসজ্জার জন্য আলাদাভাবে অর্থ খরচ করতে হয়।

মালিকের দাবি, এটি শুধু ইতালি নয়, বিশ্বের সবচেয়ে ছোট রেস্তোরাঁ। রোমান্টিক ডেটের জন্য আদর্শ এই রেস্তোরাঁয় দুপুর ও রাতের খাবার পাওয়া যায়। খোলা থাকে সারাবছর। রোমের উত্তরে ভ্যাকোন গ্রামের প্রাচীন এক প্রাসাদের মধ্যে ৫০০ বর্গফুটের ছোট ডাইনিং রুমটি সাজানো হয়েছে অতিথির আপ্যায়নের জন্য। ফোনের মাধ্যমে রেস্তোরাঁটিতে বুকিং দিতে হয়। বুকিং নিশ্চিত করতে হয় মিনিমাম ১০ দিন আগে। তখনই জানিয়ে দিতে হয় কী খাবার রান্না হবে।

রেস্তোরাঁয় খেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের কঠোর নিয়মের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। নির্দিষ্ট সময়ের আগে অতিথিরা ভেতরে যেতে পারেন না। শেষ মুহূর্তে এসে কোনো খাবারের অর্ডার বাতিল করা যায় না। নির্দিষ্ট সময়ে পৌঁছাতে হয়। রেস্তোরাঁয় পৌঁছানোর ৩০ মিনিট আগে ফোন করে মালিককে জানিয়ে দিতে হয়। বেশি আগে এলে আবার অভ্যর্থনা জানানোর মতো কেউ দরজায় থাকে না। রেস্তোরাঁটি আকারে ছোট হওয়ায় কয়েক মাস আগে থেকেই বুক করা থাকে।

বিরক্তি থেকেই জন্ম সোলো পার ডুয়েরঃ

মূলত বিরক্তি আর ক্ষোভ থেকে সোলো পার ডুয়ের জন্ম। রেমো ব্যাখ্যা করে বলেন, শুধু দু’জনের জন্য মনোরাম পরিবেশে খাওয়ার ব্যবস্থা করার ধারণা আসে অন্যান্য রেস্তোরাঁর ভিড় দেখে — সেখানে গ্রাহকদের সাথে করা আচরণ আর টেবিল বসানোর ব্যবস্থার প্রতি ক্ষোভ থেকে।

তিনি বলেন, ‘যখনই আমার ছেলে এবং আমি রাতের খাবারের জন্য বাইরে যেতাম তখন আমাদের বাথরুম বা রান্নাঘরের কাছাকাছি ছোট টেবিলে বসিয়ে দেওয়া হত। বাজে গন্ধ আসতে থাকত। আমরা মাত্র দুজন হওয়ায় সবচেয়ে খারাপ টেবিল দেওয়া হতো।’

তখন তিনি ভাবতে থাকেন, দম্পতিদের কীভাবে জীবনে একবারের জন্য হলেও রাজকীয় সমাদরের অভিজ্ঞতা দেওয়া যায়।

তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়িক বৈঠকের জন্য নয়; বার্ষিকী, জন্মদিন কিংবা বিবাহের প্রস্তাব দেওয়ার জন্য মানুষজন এই রেস্তোরাঁয় ভিড় করেন। ইতালিয়ান খাবারে ক্যান্ডেল লাইট ডিনার সারেন তারা।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. বিনোদন
  3. বিশ্বের সবচেয়ে ছোট রেস্তোরাঁ: শুধু দুজনের জন্য

বিশ্বের সবচেয়ে ছোট রেস্তোরাঁ: শুধু দুজনের জন্য

খুবই মনোরম পরিবেশে রেস্তোরাটি অবস্থিত। রেস্তোরায় আছে ফায়ারওয়ার্ক। বাইরে জ্বলন্ত মোমবাতি। অতিথিদের স্বাগত জানাতে প্রবেশদ্বার ও বাগানের মধ্যে সারি সারি মোমবাতি জ্বলতে থাকে। রেস্তোরায় বুকিং কনফার্ম করার পর অতিথিদের খাবারের মেনু ঠিক করতে হয়। কী ধরনের খাবার হবে, মিষ্টান্ন কী থাকবে, কোন ওয়াইন পরিবেশন হবে, সাজসজ্জা কেমন হবে এমনকি কোন সংগীত বাজবে তাও নির্ধারণ করেন অতিথিরা।

রেস্তোরায় কোন মেনু নেই, অতিথির চাহিদামতোই প্রস্তুত হয় খাবার। গ্রাহকেরাই নির্ধারণ করেন কেমন হবে আলোকসজ্জা, কোন সংগীত বাজবে কামরায়। একটি প্রেমময় সন্ধ্যা কাটানোর মতো এমন দারুণ সব ব্যবস্থা রেখেছে ইতালির এক ছোট্ট রেস্তোরাঁ।

রেস্তোরাঁটির নাম সোলো পার ডুয়ে। যার অর্থ 'শুধু দুজনের জন্য'। কেবল আকারের জন্যই নয়, আরও অনেক বৈশিষ্ট্যের কারণেও রেস্তোরাঁটি আলাদা। আতশবাজির ব্যবস্থা আছে, রাখা আছে সারি সারি মোমবাতি। কামরায় আভিজাত্যের ছোঁয়া। দুইজন অতিথির জন্য পরিপাটি করে বসানো হয়েছে টেবিল। মনোরম পরিবেশের রেস্তোরাঁটি সাজানো হয়েছে প্রাচীন রোমান বাড়ির আদলে। এখানে খেতে দুজনকে গুণতে হয় ৫০০ মার্কিন ডলারের কাছাকাছি। অতিথিদের রুচি ও ইচ্ছা অনুযায়ী প্রস্তুত করা হয় খাবার।  তবে সে খাবার হতে হবে ইতালিয়ান। তবে শ্যাম্পেইন, ওয়াইন ও ফুলেল সাজসজ্জার জন্য আলাদাভাবে অর্থ খরচ করতে হয়।

মালিকের দাবি, এটি শুধু ইতালি নয়, বিশ্বের সবচেয়ে ছোট রেস্তোরাঁ। রোমান্টিক ডেটের জন্য আদর্শ এই রেস্তোরাঁয় দুপুর ও রাতের খাবার পাওয়া যায়। খোলা থাকে সারাবছর। রোমের উত্তরে ভ্যাকোন গ্রামের প্রাচীন এক প্রাসাদের মধ্যে ৫০০ বর্গফুটের ছোট ডাইনিং রুমটি সাজানো হয়েছে অতিথির আপ্যায়নের জন্য। ফোনের মাধ্যমে রেস্তোরাঁটিতে বুকিং দিতে হয়। বুকিং নিশ্চিত করতে হয় মিনিমাম ১০ দিন আগে। তখনই জানিয়ে দিতে হয় কী খাবার রান্না হবে।

রেস্তোরাঁয় খেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের কঠোর নিয়মের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। নির্দিষ্ট সময়ের আগে অতিথিরা ভেতরে যেতে পারেন না। শেষ মুহূর্তে এসে কোনো খাবারের অর্ডার বাতিল করা যায় না। নির্দিষ্ট সময়ে পৌঁছাতে হয়। রেস্তোরাঁয় পৌঁছানোর ৩০ মিনিট আগে ফোন করে মালিককে জানিয়ে দিতে হয়। বেশি আগে এলে আবার অভ্যর্থনা জানানোর মতো কেউ দরজায় থাকে না। রেস্তোরাঁটি আকারে ছোট হওয়ায় কয়েক মাস আগে থেকেই বুক করা থাকে।

বিরক্তি থেকেই জন্ম সোলো পার ডুয়েরঃ

মূলত বিরক্তি আর ক্ষোভ থেকে সোলো পার ডুয়ের জন্ম। রেমো ব্যাখ্যা করে বলেন, শুধু দু'জনের জন্য মনোরাম পরিবেশে খাওয়ার ব্যবস্থা করার ধারণা আসে অন্যান্য রেস্তোরাঁর ভিড় দেখে — সেখানে গ্রাহকদের সাথে করা আচরণ আর টেবিল বসানোর ব্যবস্থার প্রতি ক্ষোভ থেকে।

তিনি বলেন, 'যখনই আমার ছেলে এবং আমি রাতের খাবারের জন্য বাইরে যেতাম তখন আমাদের বাথরুম বা রান্নাঘরের কাছাকাছি ছোট টেবিলে বসিয়ে দেওয়া হত। বাজে গন্ধ আসতে থাকত। আমরা মাত্র দুজন হওয়ায় সবচেয়ে খারাপ টেবিল দেওয়া হতো।'

তখন তিনি ভাবতে থাকেন, দম্পতিদের কীভাবে জীবনে একবারের জন্য হলেও রাজকীয় সমাদরের অভিজ্ঞতা দেওয়া যায়।

তিনি বলেন, 'ব্যবসায়িক বৈঠকের জন্য নয়; বার্ষিকী, জন্মদিন কিংবা বিবাহের প্রস্তাব দেওয়ার জন্য মানুষজন এই রেস্তোরাঁয় ভিড় করেন। ইতালিয়ান খাবারে ক্যান্ডেল লাইট ডিনার সারেন তারা।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন