The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪

নতুন যানবাহন কেনা বন্ধ, বৈঠকের সম্মানীও পাবেন না সরকারি কর্মচারীরা

খরচ করার দিক থেকে কৃচ্ছ্রসাধনের পথে হাঁটছে সরকার। এর অংশ হিসেবে গতকাল রোববার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ তিনটি আলাদা পরিপত্র জারি করেছে। এর মধ্যে সব ধরনের নতুন গাড়ি কেনা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন কমিটি বৈঠকে অংশ নিলে সরকারি কর্মচারীরা এত দিন যে সম্মানী পেতেন, তা–ও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভুক্ত প্রকল্পের ব্যয় করতে হবে গুরুত্ব অনুযায়ী। পরিপত্রগুলোয় কিছু খরচ স্থগিত ও কিছু সীমিত করতে বলা হয়েছে। আর এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে।

তিনটি আলাদা পরিপত্রের একটি হচ্ছে পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের কিছু ব্যয় স্থগিত ও হ্রাসকরণ। এতে বলা হয়েছে, সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত ও সংবিধিবদ্ধ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানির ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এগুলো হচ্ছে, সব ধরনের যানবাহন কেনা বন্ধ থাকবে। এর মধ্যে রয়েছে মোটরযান, জলযান ও আকাশযান। জরুরি ও অপরিহার্য ক্ষেত্র বিবেচনায় আপ্যায়ন ব্যয়, ভ্রমণ ব্যয়, অন্যান্য মনিহারি, কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক, বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি, আসবাব খাতে যে বরাদ্দ আছে, তার সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। দেশের ভেতরে প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

অন্য এক পরিপত্র এডিপিভুক্ত প্রকল্পের ব্যয় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করতে বলা হয়েছে। এ জন্য এ বি ও সি নামে তিনটি শ্রেণি নির্ধারণ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীনস্থ দপ্তর ও সংস্থাগুলোর চিহ্নিত প্রকল্প অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন অব্যাহত থাকবে বলে বলা হয়েছে।

বি শ্রেণির প্রকল্পের ক্ষেত্রে সরকারি অংশের ২৫ শতাংশ সংরক্ষিত রেখে অনূর্ধ্ব ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। তবে সি শ্রেণির প্রকল্পের অর্থ ছাড় আপাতত স্থগিত থাকবে।

এদিকে উন্নয়ন প্রকল্পের বিভিন্ন কমিটির সম্মানী বাবদ ব্যয়ও স্থগিত রাখার কথা বলা হয়েছে। সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন বাজেট ও নিজস্ব তহবিলের আওতায় বাস্তবায়নাধীন সব ধরনের প্রকল্প ও কর্মসূচির ক্ষেত্রে আর আমদানি বাবদ অর্থ ব্যয় করা যাবে না।

প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি), প্রকল্প স্টিয়ারিং কমিটি (পিএসসি), বিভাগীয় প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (ডিপিইসি), বিশেষ প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (এসপিইসি) এবং বিভাগীয় বিশেষ প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (ডিএসপিইসি)—এসব বৈঠকে অংশ নিয়ে সরকারি কর্মচারীদের সবাই এত দিন ভালো অঙ্কের সম্মানী পেয়ে আসছিলেন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. নতুন যানবাহন কেনা বন্ধ, বৈঠকের সম্মানীও পাবেন না সরকারি কর্মচারীরা

নতুন যানবাহন কেনা বন্ধ, বৈঠকের সম্মানীও পাবেন না সরকারি কর্মচারীরা

খরচ করার দিক থেকে কৃচ্ছ্রসাধনের পথে হাঁটছে সরকার। এর অংশ হিসেবে গতকাল রোববার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ তিনটি আলাদা পরিপত্র জারি করেছে। এর মধ্যে সব ধরনের নতুন গাড়ি কেনা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন কমিটি বৈঠকে অংশ নিলে সরকারি কর্মচারীরা এত দিন যে সম্মানী পেতেন, তা–ও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিভুক্ত প্রকল্পের ব্যয় করতে হবে গুরুত্ব অনুযায়ী। পরিপত্রগুলোয় কিছু খরচ স্থগিত ও কিছু সীমিত করতে বলা হয়েছে। আর এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে।

তিনটি আলাদা পরিপত্রের একটি হচ্ছে পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের কিছু ব্যয় স্থগিত ও হ্রাসকরণ। এতে বলা হয়েছে, সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত ও সংবিধিবদ্ধ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানির ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এগুলো হচ্ছে, সব ধরনের যানবাহন কেনা বন্ধ থাকবে। এর মধ্যে রয়েছে মোটরযান, জলযান ও আকাশযান। জরুরি ও অপরিহার্য ক্ষেত্র বিবেচনায় আপ্যায়ন ব্যয়, ভ্রমণ ব্যয়, অন্যান্য মনিহারি, কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক, বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি, আসবাব খাতে যে বরাদ্দ আছে, তার সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। দেশের ভেতরে প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

অন্য এক পরিপত্র এডিপিভুক্ত প্রকল্পের ব্যয় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করতে বলা হয়েছে। এ জন্য এ বি ও সি নামে তিনটি শ্রেণি নির্ধারণ করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং অধীনস্থ দপ্তর ও সংস্থাগুলোর চিহ্নিত প্রকল্প অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন অব্যাহত থাকবে বলে বলা হয়েছে।

বি শ্রেণির প্রকল্পের ক্ষেত্রে সরকারি অংশের ২৫ শতাংশ সংরক্ষিত রেখে অনূর্ধ্ব ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। তবে সি শ্রেণির প্রকল্পের অর্থ ছাড় আপাতত স্থগিত থাকবে।

এদিকে উন্নয়ন প্রকল্পের বিভিন্ন কমিটির সম্মানী বাবদ ব্যয়ও স্থগিত রাখার কথা বলা হয়েছে। সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন বাজেট ও নিজস্ব তহবিলের আওতায় বাস্তবায়নাধীন সব ধরনের প্রকল্প ও কর্মসূচির ক্ষেত্রে আর আমদানি বাবদ অর্থ ব্যয় করা যাবে না।

প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি), প্রকল্প স্টিয়ারিং কমিটি (পিএসসি), বিভাগীয় প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (ডিপিইসি), বিশেষ প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (এসপিইসি) এবং বিভাগীয় বিশেষ প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (ডিএসপিইসি)—এসব বৈঠকে অংশ নিয়ে সরকারি কর্মচারীদের সবাই এত দিন ভালো অঙ্কের সম্মানী পেয়ে আসছিলেন।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন