The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪

জবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন চলছে, এবারও দুই ভাগে লড়ছে নীল দল

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। তবে এবারও এক হতে পারেনি আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল। দুই ভাগে বিভক্ত দলের দুটি অংশ একে অপরের বিরুদ্ধে লড়ছেন। দীর্ঘদিন দুই ভাগ হয়ে দুটি কমিটিতে তাদের কর্মকাণ্ড চলছে।

বিভক্ত দলের নেতারা বলছেন, বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় নিজেদের মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে তাদের।

এদিকে বিগত ৮ বছর শিক্ষক সমিতির এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না সাদা দল। এ বছর তাদের অংশগ্রহণের গুঞ্জন থাকলেও শেষ মুহূর্তে আসেনি তারা। ফলে নীল দলের দুই গ্রুপের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হার-জিতের প্রভাবক হয়ে উঠেছে সাদা দল।

শিক্ষকদের এ নির্বাচনে ১৫টি পদের বিপরীতে লড়ছেন ৩০ শিক্ষক। তাদের মধ্যে সভাপতি, সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ পদে একজন করে নির্বাচিত হবেন এবং সদস্য পদে ১০ জন শিক্ষক নির্বাচিত হবেন। নীল দলের আইনুল-লুৎফর প্যানেলে সভাপতি পদে অধ্যাপক ড. আইনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদকের পদে অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান। অপরপক্ষে সভাপতি পদে লড়ছেন অধ্যাপক ড. শাহ জাহান ও সাধারণ সম্পাদকের পদে অধ্যাপক ড. জহির উদ্দীন আরিফ। শিক্ষকদের এ নির্বাচনে মোট ৬৭৫ জন শিক্ষক তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। এর মধ্যে দেশের বাইরে আছেন প্রায় একশ ভোটার।

জানা যায়, সর্বশেষ ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্যানেল প্রকাশ করে অংশগ্রহণ করে সাদা দল। পরে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোণঠাসাসহ নানাবিধ কারণে নির্বাচনে আসেনি তারা। এবার অংশগ্রহণ করতে একাত্মতা পোষণ করলেও শেষ পর্যন্ত পিছু হটেছে সাদা দল। এ নিয়ে চলছে শিক্ষকদের মাঝে আলোচনা-সমালোচনা। অনেকের অভিযোগ, কোনো একটি পক্ষের সঙ্গে মিলে গিয়ে নির্বাচনে আসেনি তারা।

তবে বিষয়টি এমন না বলে জানান সাদা দলের সাধারণ সম্পাদক রইছ উদদীন। তিনি বলেন, কিছু সমস্যার কারণে নির্বাচনে প্যানেল দেওয়া হয়নি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. জবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন চলছে, এবারও দুই ভাগে লড়ছে নীল দল

জবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন চলছে, এবারও দুই ভাগে লড়ছে নীল দল

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। তবে এবারও এক হতে পারেনি আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন নীল দল। দুই ভাগে বিভক্ত দলের দুটি অংশ একে অপরের বিরুদ্ধে লড়ছেন। দীর্ঘদিন দুই ভাগ হয়ে দুটি কমিটিতে তাদের কর্মকাণ্ড চলছে।

বিভক্ত দলের নেতারা বলছেন, বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় নিজেদের মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে তাদের।

এদিকে বিগত ৮ বছর শিক্ষক সমিতির এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না সাদা দল। এ বছর তাদের অংশগ্রহণের গুঞ্জন থাকলেও শেষ মুহূর্তে আসেনি তারা। ফলে নীল দলের দুই গ্রুপের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হার-জিতের প্রভাবক হয়ে উঠেছে সাদা দল।

শিক্ষকদের এ নির্বাচনে ১৫টি পদের বিপরীতে লড়ছেন ৩০ শিক্ষক। তাদের মধ্যে সভাপতি, সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ পদে একজন করে নির্বাচিত হবেন এবং সদস্য পদে ১০ জন শিক্ষক নির্বাচিত হবেন। নীল দলের আইনুল-লুৎফর প্যানেলে সভাপতি পদে অধ্যাপক ড. আইনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদকের পদে অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান। অপরপক্ষে সভাপতি পদে লড়ছেন অধ্যাপক ড. শাহ জাহান ও সাধারণ সম্পাদকের পদে অধ্যাপক ড. জহির উদ্দীন আরিফ। শিক্ষকদের এ নির্বাচনে মোট ৬৭৫ জন শিক্ষক তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। এর মধ্যে দেশের বাইরে আছেন প্রায় একশ ভোটার।

জানা যায়, সর্বশেষ ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্যানেল প্রকাশ করে অংশগ্রহণ করে সাদা দল। পরে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোণঠাসাসহ নানাবিধ কারণে নির্বাচনে আসেনি তারা। এবার অংশগ্রহণ করতে একাত্মতা পোষণ করলেও শেষ পর্যন্ত পিছু হটেছে সাদা দল। এ নিয়ে চলছে শিক্ষকদের মাঝে আলোচনা-সমালোচনা। অনেকের অভিযোগ, কোনো একটি পক্ষের সঙ্গে মিলে গিয়ে নির্বাচনে আসেনি তারা।

তবে বিষয়টি এমন না বলে জানান সাদা দলের সাধারণ সম্পাদক রইছ উদদীন। তিনি বলেন, কিছু সমস্যার কারণে নির্বাচনে প্যানেল দেওয়া হয়নি।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন