The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪

চবি রেজিস্ট্রারের পদত্যাগের গুঞ্জন

মো: সাইফুল মিয়া, চবি প্রতিনিধি:চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) রেজিস্ট্রারের পদ থেকে অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসানের পদত্যাগের গুঞ্জন ওঠেছে।

বুধবার (২ নভেম্বর) তিনি উপাচার্য বরাবর পদত্যাগ পত্র জমা দেন বলে জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

পদত্যাগের বিষয়ে রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান বলেন, ‘আমি এই বিষয়ে কথা বলতে রাজি না। কিছু হলে আপনারা দেখবেন।’

একই বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক বেনু কুমার দে’র মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তাঁদের সাড়া মেলেনি।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ পদ হলো রেজিস্ট্রার পদ। ২০২০ সালের জুনে এই পদে দায়িত্বে আসেন অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান। সম্প্রতি তাঁর এই নিয়োগের মেয়াদও শেষ হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের পর থেকে রেজিস্ট্রার পদে পূর্ণকালীন আর কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এ পদ ভারপ্রাপ্ত দিয়ে চলছে। প্রশাসন বলছে একাধিকবার পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরও যোগ্য কাউকে না পাওয়ায় ২৮ বছর ধরে শূন্য রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ এ পদটি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. চবি রেজিস্ট্রারের পদত্যাগের গুঞ্জন

চবি রেজিস্ট্রারের পদত্যাগের গুঞ্জন

মো: সাইফুল মিয়া, চবি প্রতিনিধি:চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) রেজিস্ট্রারের পদ থেকে অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসানের পদত্যাগের গুঞ্জন ওঠেছে।

বুধবার (২ নভেম্বর) তিনি উপাচার্য বরাবর পদত্যাগ পত্র জমা দেন বলে জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

পদত্যাগের বিষয়ে রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান বলেন, ‘আমি এই বিষয়ে কথা বলতে রাজি না। কিছু হলে আপনারা দেখবেন।’

একই বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক বেনু কুমার দে’র মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও তাঁদের সাড়া মেলেনি।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ পদ হলো রেজিস্ট্রার পদ। ২০২০ সালের জুনে এই পদে দায়িত্বে আসেন অধ্যাপক এস এম মনিরুল হাসান। সম্প্রতি তাঁর এই নিয়োগের মেয়াদও শেষ হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালের পর থেকে রেজিস্ট্রার পদে পূর্ণকালীন আর কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এ পদ ভারপ্রাপ্ত দিয়ে চলছে। প্রশাসন বলছে একাধিকবার পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরও যোগ্য কাউকে না পাওয়ায় ২৮ বছর ধরে শূন্য রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ এ পদটি।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন