The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪

ছিলেন আমির খানের বডিগার্ড, আজ বলিউড মাতাচ্ছেন সেই কেডি পাঠক ওরফে রণিত রায়

‘আদালত’ ধারাবাহিকের কেডি পাঠককে চেনেনা এমন লোক কমই আছে। কেডি পাঠক নামে পরিচিত বলিউডের অন্যতম এই জনপ্রিয় অভিনেতার নাম রনিত রায়। তারকা হিসাবে কেডি পাঠকের উত্থানের গল্প শুনলে চমকে যেতে হয়। তিনি একসময় বলিউডের পারফেকশনিস্ট বলে পরিচিত আমির খানের বডিগার্ড হিসেবে কাজ করেছেন, দেহরক্ষীর কাজ থেকে শুরু করে বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে তার পা রাখার গল্প রীতিমতো সিনেমার মতোই চমকপ্রদ।

বলিউডের সেই স্ট্রাগল সম্পর্কে একটি সাক্ষাৎকারে কেডি বনিত রায় বলেছেন, শখ ছিল আমার বড় গাড়ি থাকবে, মেয়েরা আমার নাম ধরে চিৎকার করবে। এরপর বুঝলাম সবটা এত সহজ নয়। দীর্ঘ পাঁচ-ছয় বছর আমার কোন কাজ ছিল না। পরবর্তী সময় বুঝতে পেরেছি, অভিনেতা হওয়ার সঙ্গে খ্যাতির কোন সম্পর্ক নেই।

এই সাক্ষাৎকারেই আমির খানের দেহরক্ষী হওয়ার কথা স্বীকার করে রনিত রায় বলেন, “  একসময় আমি আমির খানের বডিগার্ড ছিলাম। তবে আমার সৌভাগ্য যে, আমি আমির খানের সাথে দুই বছর থাকার সুযোগ পেয়েছিলাম। ওনার থেকে আমার কাজের প্রতি অধ্যবসায় ও আগ্রহের বিষয়টি শেখা। আমির খান আমার অনুপ্রেরণা।”

নিজের ব্যর্থতা গল্প বলতে গিয়ে জনপ্রিয় এই অভিনেতা বলেন, প্রাথমিকভাবে ব্যর্থ হওয়ার পর আমির খানই আমাকে বাস্তবটা দেখান। তখন আমি গাড়ি-বাড়ির চিন্তা বাদ দিয়ে অভিনয়ে মন দিই। আরো শিখতে চেষ্টা করি।

এক সময় বলিউডের পরিচালকেরা তাকে কোন ছবিতে নিতে চাইতেন না। রনিত রায় সে কথা উল্লেখ করে বলেন, “ এক ম্যানেজার একবার বলেছিলেন, আমরা কেন রনিত রায়কে কাস্টিং করব? জুনিয়র আর্টিস্টরাও তার চেয়ে ভালো।” এরপর রনিত নিজের মধ্যে একটু একটু করে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেন। যে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি একদিন তাকে ফিরিয়ে দিয়েছিলো, সেখান থেকেই তার কাজের অফার আসতে থাকে।

আরও পড়ুন: আদালতের কর্মচারীদের বিরুদ্ধে আইনজীবীকে মারধরের অভিযোগ: ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

বছর দুই আগে একবার সিনেমায় কাজ করার অফার এসেছিলো তার কাছে কিন্তু সিনেমাটি ভালো ছিলো না বলে, তিনি সেই অফার ফিরিয়েও দিয়েছিলেন। এভাবেই গাড়ি-বাড়ি ও খ্যাতির স্বপ্ন ভুলে নিজের অভিনয় সত্তাকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করেছিলেন অভিনেতা এবং সে চেষ্টায় তিনি সফলও হয়েছেন বলা চলে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. বিনোদন
  3. ছিলেন আমির খানের বডিগার্ড, আজ বলিউড মাতাচ্ছেন সেই কেডি পাঠক ওরফে রণিত রায়

ছিলেন আমির খানের বডিগার্ড, আজ বলিউড মাতাচ্ছেন সেই কেডি পাঠক ওরফে রণিত রায়

‘আদালত’ ধারাবাহিকের কেডি পাঠককে চেনেনা এমন লোক কমই আছে। কেডি পাঠক নামে পরিচিত বলিউডের অন্যতম এই জনপ্রিয় অভিনেতার নাম রনিত রায়। তারকা হিসাবে কেডি পাঠকের উত্থানের গল্প শুনলে চমকে যেতে হয়। তিনি একসময় বলিউডের পারফেকশনিস্ট বলে পরিচিত আমির খানের বডিগার্ড হিসেবে কাজ করেছেন, দেহরক্ষীর কাজ থেকে শুরু করে বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে তার পা রাখার গল্প রীতিমতো সিনেমার মতোই চমকপ্রদ।

বলিউডের সেই স্ট্রাগল সম্পর্কে একটি সাক্ষাৎকারে কেডি বনিত রায় বলেছেন, শখ ছিল আমার বড় গাড়ি থাকবে, মেয়েরা আমার নাম ধরে চিৎকার করবে। এরপর বুঝলাম সবটা এত সহজ নয়। দীর্ঘ পাঁচ-ছয় বছর আমার কোন কাজ ছিল না। পরবর্তী সময় বুঝতে পেরেছি, অভিনেতা হওয়ার সঙ্গে খ্যাতির কোন সম্পর্ক নেই।

এই সাক্ষাৎকারেই আমির খানের দেহরক্ষী হওয়ার কথা স্বীকার করে রনিত রায় বলেন, “  একসময় আমি আমির খানের বডিগার্ড ছিলাম। তবে আমার সৌভাগ্য যে, আমি আমির খানের সাথে দুই বছর থাকার সুযোগ পেয়েছিলাম। ওনার থেকে আমার কাজের প্রতি অধ্যবসায় ও আগ্রহের বিষয়টি শেখা। আমির খান আমার অনুপ্রেরণা।”

নিজের ব্যর্থতা গল্প বলতে গিয়ে জনপ্রিয় এই অভিনেতা বলেন, প্রাথমিকভাবে ব্যর্থ হওয়ার পর আমির খানই আমাকে বাস্তবটা দেখান। তখন আমি গাড়ি-বাড়ির চিন্তা বাদ দিয়ে অভিনয়ে মন দিই। আরো শিখতে চেষ্টা করি।

এক সময় বলিউডের পরিচালকেরা তাকে কোন ছবিতে নিতে চাইতেন না। রনিত রায় সে কথা উল্লেখ করে বলেন, “ এক ম্যানেজার একবার বলেছিলেন, আমরা কেন রনিত রায়কে কাস্টিং করব? জুনিয়র আর্টিস্টরাও তার চেয়ে ভালো।” এরপর রনিত নিজের মধ্যে একটু একটু করে পরিবর্তন আনার চেষ্টা করেন। যে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি একদিন তাকে ফিরিয়ে দিয়েছিলো, সেখান থেকেই তার কাজের অফার আসতে থাকে।

আরও পড়ুন: আদালতের কর্মচারীদের বিরুদ্ধে আইনজীবীকে মারধরের অভিযোগ: ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

বছর দুই আগে একবার সিনেমায় কাজ করার অফার এসেছিলো তার কাছে কিন্তু সিনেমাটি ভালো ছিলো না বলে, তিনি সেই অফার ফিরিয়েও দিয়েছিলেন। এভাবেই গাড়ি-বাড়ি ও খ্যাতির স্বপ্ন ভুলে নিজের অভিনয় সত্তাকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করেছিলেন অভিনেতা এবং সে চেষ্টায় তিনি সফলও হয়েছেন বলা চলে।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন