The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
রবিবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪

লাইভে কেরামতি দেখাতে যেয়ে যুবকের মর্মান্তিক পরিণতি

জনপ্রিয় ইনফ্লুয়েন্সার স্যানকিয়েঞ্জ ক্যামেরার সামনে মদ্যপান করে তাক লাগাতে চেয়েছিলেন। এক এক করে সাত বোতল মদ্যপান করেন তিনি। কেরামতি দেখাতে গিয়ে মর্মান্তিক পরিণতি হলো তার। সামাজিক মাধ্যমে লাইভে এই কান্ড ঘটানোর ১২ ঘন্টা পরই প্রাণ হারান তিনি।

গত ১৬ মে চীনের স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভ শুরু করেন তিনি। লাইভে এসে স্যানকিয়েঞ্জ বলেন, একের পর এক চীনা ভদকার বোতল সাবার করার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছেন তিনি। যে ভদকা তিনি খেয়েছিলেন তাতে ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ অ্যালকোহল ছিল বলে জানা গেছে।

ঘোষণা মত ক্যামেরার সামনে একটার পর একটা মদের বোতল শেষ করতে থাকেন এই ইসফ্লুয়েন্সার। তার টার্গেট ছিল যত দ্রুত সম্ভব মদের বোতল শেষ করা। কারন এর মাধ্যমে দর্শকদের কাছ থেকে নানান উপহার পাওয়ার আশা করেছিলেন। সেই লক্ষ্য পূরণ হলেও দিন শেষে তা পরিনত হয় অভিশাপে। ঘটনার ১২ ঘন্টা পরই প্রাণ হারান তিনি।

স্যানকিয়েঞ্জের পরিবার জানায়, চিকিৎসার জন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ারও সুযোগ পাননি তারা। এর আগেই সব শেষ। অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণেই তিনি প্রাণ হারিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসকরা।

তার এক বন্ধু জানান, লাইভে স্যানকিয়েঞ্জকে প্রায় চারটি বোতল শেষ করতে দেখেছিলেন তিনি। তবে দীর্ঘক্ষণের ওই লাইভে অন্তত সাত বোতল মদ পান করেছিলেন। আর লাইভ শেষ হওয়ার ১২ ঘণ্টা পরই মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় তাকে।

বিসিসি জানিয়েছে, চীনের মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি লাইভে গিয়ে মদ্যপানের কোন অনুমতি প্রশাস দেয় না। এমটি করলে জরিমানা করা হয়।

জানা যায় এই ইনফ্লুয়েন্সার এর আগেও লাইভে মদ্যপান করায় তাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু নতুন অ্যাকাউন্ট খুলে আবারও একই কাজ করেন তিনি। এবার তার মৃত্যুতে ফের কঠোর হচ্ছে ওই মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. আন্তর্জাতিক
  3. লাইভে কেরামতি দেখাতে যেয়ে যুবকের মর্মান্তিক পরিণতি

লাইভে কেরামতি দেখাতে যেয়ে যুবকের মর্মান্তিক পরিণতি

জনপ্রিয় ইনফ্লুয়েন্সার স্যানকিয়েঞ্জ ক্যামেরার সামনে মদ্যপান করে তাক লাগাতে চেয়েছিলেন। এক এক করে সাত বোতল মদ্যপান করেন তিনি। কেরামতি দেখাতে গিয়ে মর্মান্তিক পরিণতি হলো তার। সামাজিক মাধ্যমে লাইভে এই কান্ড ঘটানোর ১২ ঘন্টা পরই প্রাণ হারান তিনি।

গত ১৬ মে চীনের স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভ শুরু করেন তিনি। লাইভে এসে স্যানকিয়েঞ্জ বলেন, একের পর এক চীনা ভদকার বোতল সাবার করার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছেন তিনি। যে ভদকা তিনি খেয়েছিলেন তাতে ৩০ থেকে ৬০ শতাংশ অ্যালকোহল ছিল বলে জানা গেছে।

ঘোষণা মত ক্যামেরার সামনে একটার পর একটা মদের বোতল শেষ করতে থাকেন এই ইসফ্লুয়েন্সার। তার টার্গেট ছিল যত দ্রুত সম্ভব মদের বোতল শেষ করা। কারন এর মাধ্যমে দর্শকদের কাছ থেকে নানান উপহার পাওয়ার আশা করেছিলেন। সেই লক্ষ্য পূরণ হলেও দিন শেষে তা পরিনত হয় অভিশাপে। ঘটনার ১২ ঘন্টা পরই প্রাণ হারান তিনি।

স্যানকিয়েঞ্জের পরিবার জানায়, চিকিৎসার জন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ারও সুযোগ পাননি তারা। এর আগেই সব শেষ। অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণেই তিনি প্রাণ হারিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসকরা।

তার এক বন্ধু জানান, লাইভে স্যানকিয়েঞ্জকে প্রায় চারটি বোতল শেষ করতে দেখেছিলেন তিনি। তবে দীর্ঘক্ষণের ওই লাইভে অন্তত সাত বোতল মদ পান করেছিলেন। আর লাইভ শেষ হওয়ার ১২ ঘণ্টা পরই মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় তাকে।

বিসিসি জানিয়েছে, চীনের মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি লাইভে গিয়ে মদ্যপানের কোন অনুমতি প্রশাস দেয় না। এমটি করলে জরিমানা করা হয়।

জানা যায় এই ইনফ্লুয়েন্সার এর আগেও লাইভে মদ্যপান করায় তাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু নতুন অ্যাকাউন্ট খুলে আবারও একই কাজ করেন তিনি। এবার তার মৃত্যুতে ফের কঠোর হচ্ছে ওই মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন