ভারতের ‘মেডিকেল ভিসা’ পাবেন যেভাবে

প্রতিবছর স্বাস্থ্যসেবা নিতে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশি দেশের বাইরে যান। আর স্বাস্থ্যসেবার দিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে প্রসিদ্ধ দেশ হওয়ায় ভারত বাংলাদেশিদের পছন্দের তালিকায় এগিয়ে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে ভারত অনেক দুরে এগিয়ে রয়েছে।

২০২০ সালের প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে প্রায় ছয় লাখ ৯৭ হাজার ৩০০ বিদেশি মেডিকেল পর্যটক ভারতে চিকিৎসার জন্য এসেছিলেন। বিশ্বব্যাপী মেডিকেল ট্যুরিজম অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচিত ৪৬টি গন্তব্যের মধ্যে ২০২০-২০২১ মেডিকেল ট্যুরিজম ইনডেক্স (এমটি-আই)-এ ভারত দশম স্থানে রয়েছে। ভারতে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় হলো, মেডিকেল ভিসা প্রাপ্তি। আসুন জেনে নিই, ভারতের মেডিকেল ভিসা প্রাপ্তির প্রক্রিয়া সম্পর্কে।

ভারতের মেডিকেল ভিসার জন্য আবেদনের নিয়ম
প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

প্রিন্ট করা ভিসার আবেদনপত্র

ফাঁকা দুই পৃষ্ঠাসহ ন্যূনতম ছয় মাস মেয়াদী পাসপোর্টের ফটোকপি। সঙ্গে বর্তমান পাসপোর্টের মূল-কপির সঙ্গে পুরনো পাসপোর্টও (যদি থাকে) নিতে হবে। অনেক সময় নতুন পাসপোর্টে পুরনো পাসপোর্টের নাম্বারটি উল্লেখ থাকে না। সেক্ষেত্রে থানায় একটি জিডি (জেনারেল ডায়রি) করে তার কপি ভিসার আবেদনপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।

সদ্য তোলা দুই কপি ভারতীয় ভিসা সাইজের তথা দুই ইঞ্চি বাই দুই ইঞ্চি সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড-যুক্ত ছবি লাগবে।

→ ভোটার আইডি কার্ড অথবা অনলাইনে নিবন্ধনকৃত জন্ম-সনদপত্র; যেটা দিয়ে পাসপোর্ট তৈরি করা হয়েছে তার ফটোকপি লাগবে।

→ আবাসস্থলের প্রমাণস্বরূপ বর্তমান ঠিকানার সাম্প্রতিক গ্যাস/পানি/বিদ্যুৎ/টেলিফোন বিলের ফটোকপি সংযুক্ত করতে হবে। প্রিপেইড মিটারের ক্ষেত্রে মিটার কার্ডের দুই দিকের ফটোকপি দেওয়া যেতে পারে।

→ শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ইস্যুকৃত স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের ফটোকপি দিবেন। সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য সরকারি আদেশ এর কপি আর বেসরকারি চাকরিজীবীদের জন্য এনওসি (নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) দিতে হবে। ব্যবসায়ীরা তাদের ট্রেড লাইসেন্সের ফটোকপি সরবরাহ করবেন। অন্যান্য পেশাজীবী যেমন- ডাক্তার, প্রকৌশলী, আইনজীবীদের ক্ষেত্রে নিজ নিজ পেশাজীবী সংগঠন থেকে সদস্য সার্টিফিকেট লাগবে।

এ সময় খেয়াল রাখতে হবে যে পাসপোর্ট যদি স্টুডেন্ট হিসেবে করা হয়ে থাকে তাহলে স্টুডেন্ট আইডি কার্ডই যথেষ্ট। কিন্তু প্রাইভেট সার্ভিস হিসেবে করা হয়ে থাকলে সেখানে এনওসি দিতে হবে। চাকরিজীবী বা ব্যবসায়ীদের জন্য ভিজিটিং কার্ড সংযুক্তি ভিসা প্রাপ্তির সম্ভাবনা বাড়াবে।

→ ভারতীয় যেকোনো ভিসায় সর্বনিম্ন ১৫০ ডলার এন্ডোর্সমেন্ট করা যায়। আর এই এন্ডোর্সমেন্ট অবশ্যই কোনো ব্যাংক থেকে করতে হবে। কোনো মানি এক্সচেঞ্জারের এন্ডোর্সমেন্ট গ্রহণযোগ্য নয়। আর এন্ডোর্সমেন্টটি অবশ্যই আবেদন জমা দেওয়ার দিন থেকে বিগত এক মাসের মধ্যে করতে হবে।

এন্ডোর্সমেন্টের পর ব্যাংক একটি গ্রাহক কপি দিবে, যার একটি ফটোকপি আবেদনের সঙ্গে দিতে হবে। এছাড়া আবেদনকারী নিজের কিংবা বাবার ব্যাংক স্টেটমেন্টও জমা দিতে পারেন। এর জন্য অ্যাকাউন্টটিতে নূন্যতম ছয় মাস ধরে সর্বনিম্ন ২০ হাজার টাকা থাকতে হবে।

→ ভিসা ফি জমা রশিদের ফটোকপি

→ আবেদনকারীর রোগ সংক্রান্ত বাংলাদেশি ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন কিংবা প্রত্যয়ন-পত্র

→ ভারতের কোনো হাসপাতাল থেকে আবেদনকারীকে দেওয়া ভিসা আমন্ত্রণ-পত্র। এর মাধ্যমে ভারতের সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল আবেদনকারীকে তাদের সম্ভাব্য সমস্ত চিকিৎসা অনুমোদন করে। এছাড়া এই প্রমাণপত্রের মাধ্যমে ভারতীয় অ্যাম্বেসি বুঝতে পারে যে রোগী হাসপাতালের সঙ্গে যোগাযোগ করার পর হাসপাতালটি সেখানে তার চিকিৎসা করতে সম্মত হয়েছে। এই আমন্ত্রণ-পত্রে রোগীর অসুস্থতার বিবরণ, চিকিৎসার পদ্ধতি ও সময়কাল লিপিবদ্ধ থাকে।

→ আবেদনকারী অপ্রাপ্তবয়স্ক হলে তার বাবা-মাকে মেডিকেল মেডিকেল অ্যাটেন্ডেন্ট ভিসা নিতে হবে। এ সময় অ্যাটেন্ডেন্টের পাসপোর্টের পাশাপাশি রোগীর সঙ্গে সম্পর্কের প্রমাণপত্রও দাখিল করতে হবে।

→ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে আইন এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ছাড়পত্র নিতে হবে।

অনলাইনে ভারতের মেডিকেল ভিসার আবেদন

ভারত সরকারের ইন্ডিয়ান ভিসা অনলাইন সাইট থেকে এই ভিসার জন্য আবেদন করা যায়। এর জন্য আগে থেকেই কিছু বিষয় আগে থেকেই প্রস্তুত রাখা জরুরি। এগুলো হলো- ন্যূনতম ছয় মাস মেয়াদী পাসপোর্টের স্ক্যান কপি, সদ্য তোলা ভারতীয় ভিসা সাইজের ছবির স্ক্যান কপি, ভারতীয় হাসপাতাল থেকে ভিসা আমন্ত্রণ-পত্রের স্ক্যান কপি।

এ নথিগুলোর সবই পিডিএফ ফরম্যাটে প্রস্তুত করতে হবে; শুধু ছবিটা হবে জেপিইজি ফরম্যাটে। আবেদনকারীর যাবতীয় তথ্যাদি নির্ভুলভাবে উল্লেখ করে উপরের নথিগুলো আপলোড করলে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

ভিসা প্রসেসিং ফি জমা

টুরিস্ট ভিসার ন্যায় মেডিকেল ভিসা প্রসেসিং ফি ৮০০ টাকা। এই ফি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড ও বিকাশ দিয়ে সহজেই পরিশোধ করা যাবে। এছাড়া সরাসরি আইভ্যাকে (ইন্ডিয়ান ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার) গিয়েও তার আশেপাশে এই ফি জমা দেওয়া যাবে।

ভারতের ‘টুরিস্ট ভিসা’ পাবেন যেভাবে
ভিসার আবেদন জমা

সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র জমাদারের জন্য সকাল সকাল বিভাগীয় ভারতীয় ভিসা সেন্টারে চলে যেতে হবে। ভিসার আবেদনের জন্য এখন বাংলাদেশে আর ই-টোকেন প্রচলন নেই। সরকারি ছুটির দিন ছাড়া যেকোনো কার্যদিবসে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১টা নাগাদ ভিসার আবেদন জমা নেওয়া হয়। বাংলাদেশের ভারতের ভিসা আবেদনের কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- ঢাকা (যমুনা ফিউচার পার্ক), ময়মনসিংহ, চট্রগ্রাম, কুমিল্লা, নোয়াখালী, সিলেট, রাজশাহী, রংপুর, বরিশাল এবং খুলনা।

ভারতীয় মেডিকেল ভিসা পেতে কত দিন সময় লাগে

সাধারণত আবেদন জমাদানের পর থেকে প্রায় ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ভিসা হাতে পাওয়া যায়। জরুরি অবস্থাগুলোর প্রতি অধিকতর গুরুত্ব দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে আবেদন জমা নেওয়ার দিনেই ভিসা পাওয়া যেতে পারে। একাধিক দিনগুলোর ক্ষেত্রে সাধারণ ভিসা প্রসেসিংয়ের মতই অ্যাম্বেসি থেকে একটা টোকেন দেওয়া হয়। এই টোকেনটির মাধ্যমে নির্ধারিত দিনে ভিসা-পাসপোর্ট সংগ্রহ করা যায়।

ভারতের মেডিকেল ভিসার মেয়াদ

চিকিৎসার জন্য প্রযোজ্য এই ভিসার সময়কাল এক বছর। এই সময়ে ভিসা-ধারী তিন বার ভারতে যেতে আসতে পারবেন। প্রায় সময় দেখা যায়, রোগীদের ক্ষেত্রে চিকিৎসার প্রয়োজনে মেয়াদ বাড়িয়ে নিতে হয়। সেজন্যে ভারত স্বীকৃত হাসপাতাল কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট পাওয়ার পর রাজ্য সরকার বা এফআরআরও (বিদেশি আঞ্চলিক নিবন্ধন অফিস) এর আদেশানুক্রমে মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে।

তাই এই ধরনের রোগীদের জন্য ভারতে প্রবেশের ১৪ দিনের মধ্যে এফআরআরও-তে নিবন্ধন করা অপরিহার্য। মেয়াদ বৃদ্ধির এই কার্যক্রমটি এফআরআরওর সাইটে যেয়ে অনলাইন নিবন্ধনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা যাবে।

ভারতের মেডিকেল ভিসা সংক্রান্ত কিছু সতর্কতা

ভারতীয় অ্যাম্বেসির ভেতরে কোনো ধরনের ব্যাগ অনুমিত নয়। তাই ভিসা আবেদন জমা দেওয়ার মুহূর্তে শুধু দরকারি কাগজপত্রগুলো একটা স্বচ্ছ ফাইলে নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে হবে। ভারতে প্রবেশের সময় ভ্রমণ কর বাবদ ৫০০ টাকা দিতে হয়। এই খরচটা আগেই সোনালী ব্যাংকে জমা দিয়ে সঙ্গে রশিদ নিয়ে গেলে ভারত প্রবেশের সময় আর বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না।

ভারতের বাইরে থেকে আগত লোকেরা প্রায়ই ভারতে ঢোকার সময় অতিরিক্ত ডলার নিয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশদের জেরার মুখে পড়েন। তাই পাসপোর্টে এন্ডোর্সকৃত পরিমাণের চেয়ে বেশি ডলার বহন করতে চাইলে তা মানিব্যাগে রাখা থেকে বিরত থাকতে হবে।

ভারতের মেডিকেল ভিসা আবেদনের প্রতিটি ধাপ সতর্কতার সঙ্গে সম্পন্ন করা উচিত। প্রগতিশীল চিকিৎসা ব্যবস্থার কারণে ভারতের বাইরে থেকে আগত রোগীরা সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যসেবার নিশ্চয়তা পেয়ে থাকে। উন্নত ডায়াগনস্টিক সুবিধার জন্য প্রচুর পুঁজি বিনিয়োগসহ উচ্চপর্যায়ের পরিষেবাগুলোর জন্যও দেশটি একটি নেতৃস্থানীয় গন্তব্যে পরিণত হয়েছে। ২০২৫ সালের মধ্যে ভারত সরকার জনস্বাস্থ্য খাতে ব্যয়কে জিডিপির ২.৫%-এ উন্নীত করার লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে।