The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪

বেরোবিতে এবারও নিয়োগ পরীক্ষায় ডাক পাননি প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত স্বল্পনা রানী

বেরোবি প্রতিনিধি: রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক পদে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার জন্য আবেদন করলেও ডাক পাননি একই বিভাগের প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী স্বল্পনা রানী।

গতকাল বৃহস্পতিবার ( ৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে দশটা থাকে সাড়ে এগারোটা পর্যন্ত বেরোবিতে অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক পদে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত পরীক্ষায় প্রভাষক পদে কল্পনা রানী আবেদন করলেও পরীক্ষার ডাক পাননি।

জানা যায়,স্বল্পনা রানী অর্থনীতি বিভাগের ২০০৮-০৯ সেশনের শিক্ষার্থী। তিনি ভালো ফলাফলের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন। অভিযোগ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে তাকে পরীক্ষার সুযোগ না দিয়ে ঈদের ছুটিতে তড়িঘড়ি করে পরীক্ষা নিচ্ছে।

স্বল্পনা রানী অর্থনীতি বিভাগ থেকে স্নাতকে ৩.৭৫ ও স্নাতকোত্তরে ৩.৭৮ সিজিপিএ অর্জন করেছিলেন। এছাড়াও তিনি এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়েছিলেন। ২০২৩ সালের ১৪ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক পদে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করলে তিনি আবেদনপত্র জমা দিয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। যদিও তাকে নিয়োগ পরীক্ষার জন্য চিঠি দেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এরআগে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত আরেক প্রার্থী জোবেদা আক্তারকেও পরীক্ষার ডাক পাননি। এ ঘটনায় জোবেদা আক্তার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দেড় দশক হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত নিজ প্রতিষ্ঠানের মাত্র একজন শিক্ষার্থী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন ।এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষোভ প্রকাশ করে নিয়োগে নিজেদের শিক্ষার্থীদের প্রাধান্য দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছিলেন শিক্ষার্থীরা। যদিও নিজ শিক্ষার্থীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে বরাবরই উদাসীন বেরোবি প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ৩ এপ্রিল থেকে ঈদের ছুটির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিস আগামী ৭ এপ্রিল থেকে বন্ধ হওয়ার কথা থাকলেও কার্যত বুধবার (৩ এপ্রিল) ছিল প্রশাসনিক শেষ কর্ম দিবস। কেননা দীর্ঘদিন ধরে সাপ্তাহিক দুদিন ছুটির পাশাপাশি বৃহস্পতিবারও বন্ধ থাকে বেরোবি। ফলে বৃহস্পতি, শুক্র ও শনিবার (৪,৫ ও ৬ এপ্রিল) ছুটির দিন। ফলে প্রশ্ন উঠেছে ঈদের ছুটির মধ্যেও কেনো শিক্ষক নিয়োগের মতো একটা গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে বেরোবি প্রশাসন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বল্পনা রাণী বলেন, আমি সব প্রক্রিয়া মেনে আবেদন করলেও বুধবার পর্যন্ত কোনো চিঠি বা ম্যাসেজ পাইনি। শুনেছি আমার আবেদন বিভাগ থেকে প্রশাসনের কাছে পৌছানো হয়নি । আবেদন কেনো বা কী কারণে পেছানো হয়নি তা আমার জানা নেই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী আলমগীর চৌধুরী বলেন,অফিস বন্ধ থাকায় আমার কাছে কোন অভিযোগ আসেনি। প্রসেসে হয়তো বা কোন ভুল থাকতে পারে।

এ বিষয়ে অর্থনীতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মোরশেদ হোসেনকে কয়েক দফায় ফোন করলেও ফোন কলে তার সাথে সংযোগ হওয়া সম্ভব হয়নি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.