বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির নির্বাচনী প্রচারে বাধার অভিযোগ

আগামী ২০ মার্চ শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তাদের সংগঠন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। দীর্ঘ ৫ বছর পর অনুষ্ঠিত এবারের নির্বাচনে একাধিক প্যানেল অংশ নিচ্ছে। ১২০টি পদে এবারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে প্রার্থী হয়ে কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের ওপর প্রভাব বিস্তার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ‘আজমতগীর-জাফর’ প্যানেল।

শনিবার (৫ মার্চ) ঢাকা কলেজে পরিচিতি সভা ও নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন ‘আজমতগীর-জাফর’ প্যানেলের প্রার্থীরা।

সংবাদ সম্মেলনে মাউশির গুরুত্বপূর্ণ পদ ব্যবহার করে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ করা হয়। এই প্যানেলে প্রার্থীদের অভিযোগ, মাউশির একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে প্রার্থী হয়ে কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের ওপর প্রভাব বিস্তার করা হচ্ছে। ‘আজমতগীর-জাফর’ প্যানেলের নির্বাচনী প্রচারের কাজে বাধা দেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, এই নির্বাচনে মাউশির পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক শাহেদুল খবীর চৌধুরী সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন। এটি মাউশির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদ।

সম্মেলনে ‘আজমতগীর-জাফর’ প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক অলিউল্লাহ মো. আজমতগীর বলেন, আমরা বিভিন্ন স্থানে বাধার সম্মুখীন হচ্ছি। তবে সব বাধা এগিয়ে আমরা সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

মহাসচিব পদে প্রার্থী মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দ জাফর আলী বলেন, শিক্ষা ক্যাডার আজ পেশাগত ও সাংগঠনিক সমস্যায় জর্জরিত। চরম হতাশায় রয়েছে শিক্ষা ক্যাডার কর্মকর্তারা। ক্ষুদ্র গোষ্ঠী স্বার্থে সংগঠনকে কুক্ষিগত করার অপচেষ্টা করা হয়েছে। এই গোষ্ঠীর হাত থেকে সংগঠনকে মুক্ত করতে চাই।

সংবাদ সম্মেলনে ‘আজমতগীর-জাফর’ প্যানেল নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করে। এই প্যানেলের ইশতেহারে উল্লেখযোগ্য ঘোষণাগুলো হলো, শিক্ষা ক্যাডারের সমস্যা সমাধানে সবার মতামতের ওপর ভিত্তি করে অগ্রাধিকার বিবেচনায় ১০০ দিনের কর্মসূচি প্রণয়ন; ২০১৫ সালের পে-স্কেল আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গঠিত কোর কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী পদ আপগ্রেডেশন ও পদ সৃষ্টির জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করা; যথাসময়ে পদোন্নতি নিশ্চিত করতে ১৯৮৭ সালের সমীক্ষা কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী পদ সৃষ্টির ব্যবস্থা করা এবং পদোন্নতির শর্ত পূরণকারী সব সদস্যের অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও সহকারী অধ্যাপক পদে দ্রুত পদোন্নতির ব্যবস্থা নেওয়া।