The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪

বহিরাগতদের অশ্লীলতায় লেক বিমুখ ইবির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

ইবি প্রতিনিধি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অন্যতম দর্শনীয় স্থান মফিজ লেক বহিরাগতদের ডেটিং স্পটে পরিনত হয়েছে। যার ফলে লেক বিমুখ হচ্ছে ক্যাম্পাসের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর এ-স্থানটি একসময় শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পদচারণা ও আড্ডা গল্পে মুখরিত থাকলেও এখন আর তেমনটি দেখা যায় না। নেপথ্যে কারণ হিসেবে বহিরাগতদের অশ্লীলতাকে দায়ী করছেন সচেতন শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (৬ মার্চ) সকাল এবং বিকেলে সরজমিনে লেক এলাকায় ঘুরে দেখা যায়, বহিরাগত অন্তত ৮-১০ জোড়া কপোত-কপোতীরা অন্তরঙ্গ অবস্থায় সময় পার করছে। লেকে প্রবেশ করতেই লেকের ডানপাশে বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেনের জন্য বরাদ্দকৃত স্থানে জনৈক যুবক যুবতীর কোলে মাথা রেখে শুয়ে আছে। কাছে গিয়ে পরিচয় জানতে চাইলে হকচকিয়ে উঠেন তারা এবং ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী কলেজের শিক্ষার্থী বলে তারা নিজেদেরকে পরিচয় দেন। এসময় ক্যাম্পাসে নির্বিঘ্নে প্রবেশের কথাও জানা যায় তাদের মুখে। তার একটু সামনে আগালে দেখা যায় লেকের বেঞ্চিতে ছাতার নিচে অশ্লীলতায় মগ্ন বহিরাগত যুগল।

ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের পরিচয় বহনকারী আইডি কার্ড না থাকায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে ভিতরে ঢুকে পরে বহিরাগতরা। ফলে এধরণের কর্মকাণ্ড প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আনসার সদস্যের সাথে কথা বললে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে বহিরাগতরা ঢুকে যায়। অনেকসময় ওদের চেকিং করতে গেলে তারা বিভিন্ন ছাত্রনেতার পরিচয় দিয়ে পার হয়ে যায়। আমরা এবিষয়ে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের জানালে তারা আসার আগেই বহিরাগতরা স্থান ত্যাগ করে চলে যায়। ফলে তারা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের টুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী রবিন জানান, একসময় লেকে বসে গ্রুপ স্টাডি বা বিভিন্ন আড্ডা দেয়া গেলেও এখন বন্ধু বান্ধবদের নিয়ে লেকে যেতে নিজেদের লজ্জাজনক পরিস্থিতিতে পরতে হয়। লেক যেনো বহিরাগতদের আড্ডাখানা এবং অশ্লীলতায় পরিপূর্ণ।

ক্যাম্পাসের আবাসিক এলাকা এবং ডরমেটরিতে অবস্থানরত একাধিক শিক্ষক জানান, পূর্বে সকালে বিকেলে দুইবেলা হাঁটতে বের হলেও সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বিব্রতকর পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় লেকে যাওয়া হয় না।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশকিছু উন্নয়নমূলক কাজ চলমান আছে সেজন্য যারা কর্মরত আছেন তাদের নির্দিষ্ট করে চেনার কোনো উপায় নাই। সেজন্য বহিরাগত কেউ প্রবেশ করলেও তাকে আইডিন্টিফাই করা যায় না। আমাদের শিক্ষার্থীরা যদি আইডি কার্ড বহন করে তবে বহিরাগতদের সহজে চিহ্নিত করা যাবে।

তিনি আরো বলেন, কেও যদি কাওকে কোনো আপত্তিকর অবস্থায় লেকের অভ্যন্তরে দেখতে পায় তবে তাদের ধরে প্রক্টরিয়াল বডির কাছে সোপর্দ করবে। আমরা প্রক্টরিয়াল বডি তাদের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করবো।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.