বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালি জাতির জন্য ঈশ্বরপ্রেরিত: আইজিপি

জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ক্ষুধাকে পরাজিত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেন, ‘গত ১৪ বছরে একক নেতৃত্বে নিজের প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দেশে বিস্ময়কর পরিবর্তন সম্পন্ন করেছেন। এতে প্রতীয়মান হয় যে যোগ্য লোক দেশের কান্ডারি হলে পরিবর্তনের জন্য লাখ লাখ লোকের প্রয়োজন নেই।’

রোববার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের মাঠে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেনজীর আহমেদ এসব কথা বলেন।
‘শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল প্রিমিয়ার লিগের ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী’ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে হল শাখা ছাত্রলীগ। বেনজীর আহমেদ জহুরুল হক হল অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘একমাত্র বঙ্গবন্ধুর জন্য আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করেছি। এই গাঙ্গেয় বদ্বীপের ভূমিপুত্রদের এই অঞ্চলে বসবাসের ইতিহাস চার হাজার বছরের। তাহলে আমরা চার হাজার বছর আগে কেন স্বাধীন হইনি? কেন ২ হাজার, ১ হাজার, ৫০০, ২০০ বা ১০০ বছর আগে স্বাধীন হইনি? তার কারণ ২ হাজার, ১ হাজার, ৫০০, ২০০ বা ১০০ বছর আগে আমাদের একজন বঙ্গবন্ধু ছিলেন না।’
বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এক হাজার বছর আগে স্বাধীন হলে আজ আমরা হয়তো ইউরোপের সমকক্ষ থাকতাম। সমগ্র বাঙালি জাতিকে চার হাজার বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে তার সোনালি সন্তানের জন্য। বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙালি জাতির জন্য ঈশ্বরপ্রেরিত। চার হাজার বছরে যা ঘটেনি, তা ২৪ বছরের আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে আমাদের করে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু।’

হাজার বছরের নির্যাতিত, নিষ্পেষিত, শোষিত ও অপমানিত জাতিকে উদ্ধার করার জন্য ত্রাণকর্তা হিসেবে ঈশ্বর বঙ্গবন্ধুকে এই গাঙ্গেয় বদ্বীপে পাঠিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন বেনজীর। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু এই দেশ স্বাধীন করে দিয়ে আমাদের সেই নিরন্তর লড়াই থেকে মুক্তি দিয়ে ভিন্ন লড়াইয়ের পথ দেখিয়েছেন। সেটি হলো আত্মমর্যাদা অর্জনের লড়াই, ক্ষুধাকে পরাজিত করার লড়াই।’

আজ বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ক্ষুধাকে পরাজিত করেছে উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, ‘দুই বছর করোনা না হলে আমাদের যে ৯ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করেন, তাঁরাও হয়তো ওপরে চলে আসতেন।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী ও শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘খেলায় বিজয়ীদের অভিনন্দন, অংশগ্রহণকারীদেরও শুভেচ্ছা। খেলতে হবে। শুধু পড়াশোনা করলে হবে না; শরীরও ভালো থাকতে হবে। খেলাধুলা, পড়াশোনা, রাজনীতি—সবই করবে। এর মাধ্যমে নিজেকে পরিপূর্ণভাবে প্রস্তুত করবে।’

শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওছার, হল প্রাধ্যক্ষ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া, এনআরবিসি ব্যাংকের চেয়ারম্যান তমাল পারভেজ, ঢাকা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপকমিটির সদস্য রিফাত জামান, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান এবং ওয়ালটন গ্রুপের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাদা সেলিম।

১৭ মার্চ থেকে জহুরুল হক হলের মাঠে শুরু হয় শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল প্রিমিয়ার লিগ। শিক্ষার্থীদের সাতটি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি দল খেলায় অংশ নেয়। ক্র্যাক প্লাটুন ও গেরিলা ৭১ নামের দুটি দলের মধ্যে আজ বিকেলে চূড়ান্ত পর্বের খেলা হয়। খেলা শেষে অনুষ্ঠানে বিজয়ী দুই দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেন পুলিশ প্রধান।