The Rising Campus
News Media
শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখেই কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলেন কেয়া আক্তার রত্না (২০) নামের এক শিক্ষার্থী। তিনি বরিশালের রহমতপুর কৃষি কলেজের চতুর্থ সেমিস্টারের ছাত্রী।

শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক তিনটার দিকে তিনি কলেজের ছাত্রীনিবাসের ৩০৪ নম্বর কক্ষে ফ্যানের হুকের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন।  এ ঘটনায় প্রেমিক প্রেমিক মো. অন্তর আলীকে গ্রেপ্তার করেছে বিমানবন্দর থানা পুলিশ। তিনি রত্নার সহপাঠী ছিলেন বলে জানা গেছে। জানা গেছে, অন্তর আলীর সঙ্গে মুঠোফোনে রত্নার প্রায়ই ঝগড়া হতো । এ কারণে তার কক্ষের অপর ছাত্রী পাশের রুমে গিয়ে থাকত। আত্মহত্যার রাতে রত্না তার কক্ষে একা ছিলেন।

বিমান বন্দর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. জামাল হোসেন জানান, অন্তর আলীকে আসামি করে আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলা দায়ের করেছেন রত্নার বাবা মো. বশির মিয়া। ওই মামলায় ইতোমধ্যে অন্তর আলীকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অন্তর আলী রত্নার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেছেন। আত্মহত্যার আগের ভিডিও কলসহ রত্নার মোবাইল জব্দ করা হয়েছে। সেখানে ভিডিও কলের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

প্রেমিক অন্তর আলী গাজীপুর জেলার সদর উপজেলার হাতিয়া গ্রামের রাজু আহমেদের ছেলে।

0
You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. হোম
  2. অপরাধ ও শৃঙ্খলা
  3. প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখেই কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখেই কলেজছাত্রীর আত্মহত্যা

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলেন কেয়া আক্তার রত্না (২০) নামের এক শিক্ষার্থী। তিনি বরিশালের রহমতপুর কৃষি কলেজের চতুর্থ সেমিস্টারের ছাত্রী।

শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক তিনটার দিকে তিনি কলেজের ছাত্রীনিবাসের ৩০৪ নম্বর কক্ষে ফ্যানের হুকের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন।  এ ঘটনায় প্রেমিক প্রেমিক মো. অন্তর আলীকে গ্রেপ্তার করেছে বিমানবন্দর থানা পুলিশ। তিনি রত্নার সহপাঠী ছিলেন বলে জানা গেছে। জানা গেছে, অন্তর আলীর সঙ্গে মুঠোফোনে রত্নার প্রায়ই ঝগড়া হতো । এ কারণে তার কক্ষের অপর ছাত্রী পাশের রুমে গিয়ে থাকত। আত্মহত্যার রাতে রত্না তার কক্ষে একা ছিলেন।

বিমান বন্দর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. জামাল হোসেন জানান, অন্তর আলীকে আসামি করে আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলা দায়ের করেছেন রত্নার বাবা মো. বশির মিয়া। ওই মামলায় ইতোমধ্যে অন্তর আলীকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অন্তর আলী রত্নার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেছেন। আত্মহত্যার আগের ভিডিও কলসহ রত্নার মোবাইল জব্দ করা হয়েছে। সেখানে ভিডিও কলের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

প্রেমিক অন্তর আলী গাজীপুর জেলার সদর উপজেলার হাতিয়া গ্রামের রাজু আহমেদের ছেলে।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন