The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪

পর্যটকে ভরপুর সাগরতীর: ৯০ শতাংশ রুম বুকিং

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ ঈদের ২য় দিনে পর্যটকে মুখরিত কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। সাগরে জলে উচ্ছাসে মেতেছে পর্যটকেরা।

দিগন্তে নুয়ে পড়েছে আকাশ। অবারিত নীল জলের সাগরে টেউয়ের সাথে মিতালী পেতেছে পর্যটকেরা।

নগর জিবনের কোলাহল নেই,প্রকৃতির কাছে বিশাল সমুদ্রের কাছে সমর্পিত কিছু সময় বুলিয়ে দেয় ভালো লাগার পরশ। ঢাকার ধানমন্ডি থেকে ঈদের ছুটিতে পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছেন মোহাম্মদ ফারুক ওয়াসিফ নামের ব্যবসায়ী। তিনি জানান,সৈকত আগের থেকে পরিচ্ছন্ন, নিরাপত্তা বেশ ভালো। রাতভর সমুদ্রে মানুষের আনাগোনায় কোনো সমস্যা হয়না। আর সাগরের কাছে এলেই মনটা ভালো হয়ে যায়।

পর্যটকদের নিরাপত্তা বিধানে কাজ করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। ট্যুরিস্ট পুলিশের কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহীন জানান, সমুদ্র সৈকতের সবকটি পয়েন্টে কাজ করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। পর্যটকদের নিরাপত্তা, যে কোনো ধরনের হয়রানি রোধে তারা তৎপর রয়েছেন।

এদিকে সাগরতীরের ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল ও গেস্ট হাউজগুলোতে পর্যটকে ভরপুর। ৯০ শতাংশ রুম বুকিং হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন কলাতলী আইল্যান্ডিয়া হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লায়ন নুরুল কবির পাশা। তিনি জানান,গতবারের তুলনায় এবছর লোকজনের উপস্থিতি বেশী। ব্যবসাও ভালো। তাই আগের ক্ষতি পুষিয়ে এবার ভালো কিছুর প্রত্যাশা করছেন তিনি।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকের সহযোগীতা ও হয়রানী বন্ধে ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে থাকছে সার্বক্ষণিক ভিজিলেন্স টিম। তার পাশপাশি তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্র থেকেও পর্যটেকরা পাবেন সবধরনের সেবা, এমনটাই জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. জাতীয়
  3. পর্যটকে ভরপুর সাগরতীর: ৯০ শতাংশ রুম বুকিং

পর্যটকে ভরপুর সাগরতীর: ৯০ শতাংশ রুম বুকিং

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ ঈদের ২য় দিনে পর্যটকে মুখরিত কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। সাগরে জলে উচ্ছাসে মেতেছে পর্যটকেরা।

দিগন্তে নুয়ে পড়েছে আকাশ। অবারিত নীল জলের সাগরে টেউয়ের সাথে মিতালী পেতেছে পর্যটকেরা।

নগর জিবনের কোলাহল নেই,প্রকৃতির কাছে বিশাল সমুদ্রের কাছে সমর্পিত কিছু সময় বুলিয়ে দেয় ভালো লাগার পরশ। ঢাকার ধানমন্ডি থেকে ঈদের ছুটিতে পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছেন মোহাম্মদ ফারুক ওয়াসিফ নামের ব্যবসায়ী। তিনি জানান,সৈকত আগের থেকে পরিচ্ছন্ন, নিরাপত্তা বেশ ভালো। রাতভর সমুদ্রে মানুষের আনাগোনায় কোনো সমস্যা হয়না। আর সাগরের কাছে এলেই মনটা ভালো হয়ে যায়।

পর্যটকদের নিরাপত্তা বিধানে কাজ করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। ট্যুরিস্ট পুলিশের কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহীন জানান, সমুদ্র সৈকতের সবকটি পয়েন্টে কাজ করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। পর্যটকদের নিরাপত্তা, যে কোনো ধরনের হয়রানি রোধে তারা তৎপর রয়েছেন।

এদিকে সাগরতীরের ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল ও গেস্ট হাউজগুলোতে পর্যটকে ভরপুর। ৯০ শতাংশ রুম বুকিং হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন কলাতলী আইল্যান্ডিয়া হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক লায়ন নুরুল কবির পাশা। তিনি জানান,গতবারের তুলনায় এবছর লোকজনের উপস্থিতি বেশী। ব্যবসাও ভালো। তাই আগের ক্ষতি পুষিয়ে এবার ভালো কিছুর প্রত্যাশা করছেন তিনি।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকের সহযোগীতা ও হয়রানী বন্ধে ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে থাকছে সার্বক্ষণিক ভিজিলেন্স টিম। তার পাশপাশি তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্র থেকেও পর্যটেকরা পাবেন সবধরনের সেবা, এমনটাই জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন