The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪

পবিপ্রবি ভিসির পদত্যাগ চেয়ে পোষ্টারিংয়ের অভিযোগে অধ্যাপক বরখাস্ত

পবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো.মেহেদী হাসানকে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর ১২(১) এবং পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী সাধারণ আচরণ ও শৃঙ্খলা বিধানের ৯(১) ধারা মোতাবেক তাঁকে সাময়িকভাবে চাকুরী হতে বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা যায়, উপাচার্য অধ্যাপক ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত ও রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড.সন্তোষ কুমার বসুর পদত্যাগ চেয়ে পোষ্টারিং করার চেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগে এ বরখাস্ত করা হয়েছে।একই সাথে ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো.মেহেদী হাসানকে বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকেও অব্যাহতি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশের মাধ্যমে তা নিশ্চিত করা হয়।

সংশ্লিষ্ট কয়েকটি সূত্র জানায়, মেধাবী শিক্ষার্থী দেবাশীষের আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকা পবিপ্রবি’র শিক্ষক শাহীন হোসেন, নওরোজ জাহান লিপি ও অধ্যাপক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের ফাঁসি ও তাদের আশ্রয়দাতা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি ও রেজিস্ট্রারের পদত্যাগ চেয়ে পোস্টারিংয়ের চেষ্টা চালানোর ঘটনায় অধ্যাপক মেহেদী হাসানের জড়িত থাকার প্রাথমিক প্রমাণ পায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। একারনেই তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বিষয়টি স্বীকার করে পবিপ্রবি’র রেজিস্ট্রার(অ.দা) প্রফেসর ড. সন্তোষ কুমার বসু বলেন” তার বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠান বিরোধী কার্যাকালাপ ও পোষ্টারিং এর প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। এজন্য তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে পবিপ্রবি’র ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের অধ্যাপক মো. মেহেদী হাসানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. পবিপ্রবি ভিসির পদত্যাগ চেয়ে পোষ্টারিংয়ের অভিযোগে অধ্যাপক বরখাস্ত

পবিপ্রবি ভিসির পদত্যাগ চেয়ে পোষ্টারিংয়ের অভিযোগে অধ্যাপক বরখাস্ত

পবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো.মেহেদী হাসানকে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর ১২(১) এবং পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী সাধারণ আচরণ ও শৃঙ্খলা বিধানের ৯(১) ধারা মোতাবেক তাঁকে সাময়িকভাবে চাকুরী হতে বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা যায়, উপাচার্য অধ্যাপক ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত ও রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড.সন্তোষ কুমার বসুর পদত্যাগ চেয়ে পোষ্টারিং করার চেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগে এ বরখাস্ত করা হয়েছে।একই সাথে ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো.মেহেদী হাসানকে বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকেও অব্যাহতি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশের মাধ্যমে তা নিশ্চিত করা হয়।

সংশ্লিষ্ট কয়েকটি সূত্র জানায়, মেধাবী শিক্ষার্থী দেবাশীষের আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে নিয়োগ বাণিজ্যের সাথে জড়িত থাকা পবিপ্রবি'র শিক্ষক শাহীন হোসেন, নওরোজ জাহান লিপি ও অধ্যাপক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের ফাঁসি ও তাদের আশ্রয়দাতা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিসি ও রেজিস্ট্রারের পদত্যাগ চেয়ে পোস্টারিংয়ের চেষ্টা চালানোর ঘটনায় অধ্যাপক মেহেদী হাসানের জড়িত থাকার প্রাথমিক প্রমাণ পায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। একারনেই তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বিষয়টি স্বীকার করে পবিপ্রবি'র রেজিস্ট্রার(অ.দা) প্রফেসর ড. সন্তোষ কুমার বসু বলেন" তার বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠান বিরোধী কার্যাকালাপ ও পোষ্টারিং এর প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। এজন্য তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে পবিপ্রবি'র ল্যাঙ্গুয়েজ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের অধ্যাপক মো. মেহেদী হাসানের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন