The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪

তথ্য হালনাগাদ করতে গিয়ে ইবি জিয়া হল প্রভোস্ট লাঞ্ছিত, কার্যালয় ভাঙচুর

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ডাটাবেজ সংগ্রহ করতে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দ্বারা লাঞ্ছিত হয়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) হল প্রভোস্ট। বুধবার (১৪ মার্চ) রাতে শিক্ষার্থীদের আবাসিকতা ও অনাবাসিকতার ডাটাবেজ সংগ্রহ করতে গেলে তাকে লাঞ্ছিত করা হয় এবং পরে তার কার্যালয় ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, গত সোমবার রাতে হলের পরিবেশ সুন্দর ও সুষ্ঠু রাখতে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসেন হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান। এসময় তিনি হলের বিভিন্ন সংকট, ডাইনিংয়ের উন্নত পরিবেশ ও হলের আবাসিকতা নিশ্চিতকরণে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করেন। পরেরদিন মঙ্গলবার আবাসিকতার তথ্য নিতে হল পরিদর্শনে যায় প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান, হাউজ টিউটর প্রকাশ চন্দ্র বিশ্বাস ও হলের উপ-রেজিস্ট্রার তারিক উদ্দীন আহমেদসহ অন্যন্য কর্মকর্তারা। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদেরকে ব্যঙ্গ করে বিভিন্ন ধরনের কথাবার্তা বলতে থাকেন।

পরে রাত সাড়ে ১০টায় প্রভোস্ট তার কার্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসেন। এসময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তার সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ায় এবং এক পর্যায়ে কার্যালয়ের তিনটি জানালার কাঁচ ভাঙচুর করে।

এদিকে ভাঙচুরের বিষয়টি অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বলেন, তিনি পূর্ব নির্দেশনা ছাড়াই হঠাৎ হলে রেড দেয়। শিক্ষার্থীরা অপ্রস্তুত থাকার ফলে হল থেকে নেমে আসে এবং বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে।

হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান বলেন, গতকাল আবাসিক ও অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের ডাটাবেইজ তৈরি করতে গেলে আমাকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা লাঞ্ছিত করে। তাদের মধ্যে কয়েকজন খুব বাজে ও অছাত্র সুলভ আচরণ করে। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আমি সহযোগীতা পেয়েছি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. তথ্য হালনাগাদ করতে গিয়ে ইবি জিয়া হল প্রভোস্ট লাঞ্ছিত, কার্যালয় ভাঙচুর

তথ্য হালনাগাদ করতে গিয়ে ইবি জিয়া হল প্রভোস্ট লাঞ্ছিত, কার্যালয় ভাঙচুর

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ডাটাবেজ সংগ্রহ করতে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের দ্বারা লাঞ্ছিত হয়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) হল প্রভোস্ট। বুধবার (১৪ মার্চ) রাতে শিক্ষার্থীদের আবাসিকতা ও অনাবাসিকতার ডাটাবেজ সংগ্রহ করতে গেলে তাকে লাঞ্ছিত করা হয় এবং পরে তার কার্যালয় ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, গত সোমবার রাতে হলের পরিবেশ সুন্দর ও সুষ্ঠু রাখতে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসেন হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান। এসময় তিনি হলের বিভিন্ন সংকট, ডাইনিংয়ের উন্নত পরিবেশ ও হলের আবাসিকতা নিশ্চিতকরণে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনা করেন। পরেরদিন মঙ্গলবার আবাসিকতার তথ্য নিতে হল পরিদর্শনে যায় প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান, হাউজ টিউটর প্রকাশ চন্দ্র বিশ্বাস ও হলের উপ-রেজিস্ট্রার তারিক উদ্দীন আহমেদসহ অন্যন্য কর্মকর্তারা। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদেরকে ব্যঙ্গ করে বিভিন্ন ধরনের কথাবার্তা বলতে থাকেন।

পরে রাত সাড়ে ১০টায় প্রভোস্ট তার কার্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসেন। এসময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তার সাথে বাকবিতন্ডায় জড়ায় এবং এক পর্যায়ে কার্যালয়ের তিনটি জানালার কাঁচ ভাঙচুর করে।

এদিকে ভাঙচুরের বিষয়টি অস্বীকার করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বলেন, তিনি পূর্ব নির্দেশনা ছাড়াই হঠাৎ হলে রেড দেয়। শিক্ষার্থীরা অপ্রস্তুত থাকার ফলে হল থেকে নেমে আসে এবং বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে।

হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল জলীল পাঠান বলেন, গতকাল আবাসিক ও অনাবাসিক শিক্ষার্থীদের ডাটাবেইজ তৈরি করতে গেলে আমাকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা লাঞ্ছিত করে। তাদের মধ্যে কয়েকজন খুব বাজে ও অছাত্র সুলভ আচরণ করে। তবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আমি সহযোগীতা পেয়েছি।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন