The Rising Campus
News Media
শুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩

‘টাকা দেখেই বিয়ে’, ট্রোলড তামিল নায়িকা

কিছুদিন আগে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তামিল জনপ্রিয় অভিনেত্রী মহালক্ষ্মী ও প্রযোজক ও লগ্নিকারক রবিন্দর চন্দ্রশেখর। বিয়ের আগে পরে এই জুটি বিভিন্ন সময় নিজেদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন। কিন্তু তাদেরকে নেটমাধ্যমে প্রায়ই কটাক্ষের শিকার হতে হয়। অনেকের ধারণা ‘টাকার জন্যই মহালক্ষ্মী এই বিয়ে করেছেন। তাদেরকে প্রায় ট্রোলের শিকার হতে হয়।

রবিন্দর চন্দ্রশেখর পেশায় একজন প্রযোজক ও লগ্নিকারক। মূলত তামিল শিল্পজগতেই কাজ করেন। সমাজের একটা অংশের ধারণা টাকার জন্যই কলিউডের এই সুন্দরী অভিনেত্রী বিয়ে করেছেন ‘মোটা’ প্রযোজককে। যদিও সোশ্যাল মিডিয়ায় রবিন্দর চন্দ্রশেখর ও মহালক্ষ্মীর ছবিতে ভালোবাসা খুঁজে পান অনেকেই। তাদের বিশ্বাস, ‘ভালোবাসা সত্যিই বাহ্যিক অবয়বে বিশ্বাস করে না।’

বিয়ের সময় মহালক্ষ্মী সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছিলেন, ‘তুমি আমার হৃদয় চুরি করেছ। কিন্তু আমি তোমাকে এটা রাখার অনুমতি দেব।’ আরেকটা ছবিতে লিখেছিলেন, ‘জীবন খুব সুন্দর। আর তুমিই এটা সম্ভব করেছ। আমি ভাগ্যবান যে তুমি আমার জীবনে এসেছ। তোমার ভালোবাসা আমার জীবনকে পূর্ণ করুক।’

জবাবে নিজের ভালোবাসা প্রকাশ করে রবিন্দর লিখেছিলেন, ‘ভালোবাসার ভালোবাসা দরকার। ভালোবাসার মহালক্ষ্মী দরকার। আমি তোমাকে ভালোবাসি আমার বউ।’ পরিবার ও কাছের বন্ধুদের উপস্থিতিতে তিরুপতি বালাজির মন্দিরে একে-অপরের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। রবিন্দর ও মহালক্ষ্মী দুজনেরই এটা দ্বিতীয় বিয়ে। [সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস]

 

0
You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. হোম
  2. বিনোদন
  3. ‘টাকা দেখেই বিয়ে’, ট্রোলড তামিল নায়িকা

‘টাকা দেখেই বিয়ে’, ট্রোলড তামিল নায়িকা

কিছুদিন আগে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তামিল জনপ্রিয় অভিনেত্রী মহালক্ষ্মী ও প্রযোজক ও লগ্নিকারক রবিন্দর চন্দ্রশেখর। বিয়ের আগে পরে এই জুটি বিভিন্ন সময় নিজেদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন। কিন্তু তাদেরকে নেটমাধ্যমে প্রায়ই কটাক্ষের শিকার হতে হয়। অনেকের ধারণা ‘টাকার জন্যই মহালক্ষ্মী এই বিয়ে করেছেন। তাদেরকে প্রায় ট্রোলের শিকার হতে হয়।

রবিন্দর চন্দ্রশেখর পেশায় একজন প্রযোজক ও লগ্নিকারক। মূলত তামিল শিল্পজগতেই কাজ করেন। সমাজের একটা অংশের ধারণা টাকার জন্যই কলিউডের এই সুন্দরী অভিনেত্রী বিয়ে করেছেন ‘মোটা’ প্রযোজককে। যদিও সোশ্যাল মিডিয়ায় রবিন্দর চন্দ্রশেখর ও মহালক্ষ্মীর ছবিতে ভালোবাসা খুঁজে পান অনেকেই। তাদের বিশ্বাস, ‘ভালোবাসা সত্যিই বাহ্যিক অবয়বে বিশ্বাস করে না।’

বিয়ের সময় মহালক্ষ্মী সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছিলেন, ‘তুমি আমার হৃদয় চুরি করেছ। কিন্তু আমি তোমাকে এটা রাখার অনুমতি দেব।’ আরেকটা ছবিতে লিখেছিলেন, ‘জীবন খুব সুন্দর। আর তুমিই এটা সম্ভব করেছ। আমি ভাগ্যবান যে তুমি আমার জীবনে এসেছ। তোমার ভালোবাসা আমার জীবনকে পূর্ণ করুক।’

জবাবে নিজের ভালোবাসা প্রকাশ করে রবিন্দর লিখেছিলেন, ‘ভালোবাসার ভালোবাসা দরকার। ভালোবাসার মহালক্ষ্মী দরকার। আমি তোমাকে ভালোবাসি আমার বউ।’ পরিবার ও কাছের বন্ধুদের উপস্থিতিতে তিরুপতি বালাজির মন্দিরে একে-অপরের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তারা। রবিন্দর ও মহালক্ষ্মী দুজনেরই এটা দ্বিতীয় বিয়ে। [সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস]

 

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন