The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪

জেল হত্যা দিবসে পাবিপ্রবিতে জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (পাবিপ্রবিতে) যথাযথ মর্যাদায় জেল হত্যা দিবস পালিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) সকাল দশটায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কে এম সালাহ উদ্দীন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ স্মারক ম্যুরাল ‘জনক জ্যোতির্ময়’-এ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন।

এরপর এক এক করে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন ছাত্র উপদেষ্টা দপ্তর, প্রক্টর অফিস, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, কর্মকর্তা পরিষদ, ইইসিই বিভাগ, রসায়ন বিভাগ, ইতিহাস ও বাংলাদেশ স্টাডিজ বিভাগ, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ইংরেজি বিভাগ, বাংলা বিভাগ, লোক প্রশাসন বিভাগ, পাবিপ্রবি প্রেসক্লাব এবং পাবিপ্রবি রোভার স্কাউট গ্রুপ।

রেজিস্ট্রার বিজন কুমার ব্রহ্মের সঞ্চালনায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কে এম সালাহ উদ্দিন।

সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন বলেন, জাতীয় বীরদের আমাদের অন্তর থেকে স্মরণ করতে হবে। এই চার নেতা জাতির পিতার নেতৃত্বে যুদ্ধ পরিচালনা এবং যুদ্ধকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। তাঁরা অকুতোভয় ও সাহসী নেতা ছিলেন। এই হত্যাকান্ড ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বরের বুদ্ধিজীবী হত্যা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপরিবার হত্যাকান্ডেরই প্রতিফলন ছিল। হত্যার মাধমে হত্যাকারীরা বিজয় অর্জন করতে চেয়েছিল কিন্তু তা সফল হয়নি। বাঙালির হৃদয়ে তাঁরা চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

তিনি আরও বলেন, তাঁদের নেতৃত্ব এবং দেখানো পথকে আমাদের অনুসরণ করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) এ আমরা অনেক এগিয়েছি। প্রতিটি সেক্টরে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা উত্তরোত্তর ভালো করছি। তাঁদেরকে স্মরণে রেখে, সবার আন্তরিক প্রচেষ্টায় দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার মধ্য দিয়ে এগিয়ে নিতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মো. খায়রুল আলম, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. হাবিবুল্লাহ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, প্রক্টর মো. কামাল হোসাইন, ছাত্র উপদেষ্টা দপ্তরের পরিচালক ড. সমীরণ কুমার সাহা সহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক,কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমামের পরিচালনায় জাতীয় চার নেতা সহ সকল শহীদের জন্য দোয়া করা হয়।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. জেল হত্যা দিবসে পাবিপ্রবিতে জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ

জেল হত্যা দিবসে পাবিপ্রবিতে জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (পাবিপ্রবিতে) যথাযথ মর্যাদায় জেল হত্যা দিবস পালিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) সকাল দশটায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কে এম সালাহ উদ্দীন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ স্মারক ম্যুরাল ‘জনক জ্যোতির্ময়’-এ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন।

এরপর এক এক করে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন ছাত্র উপদেষ্টা দপ্তর, প্রক্টর অফিস, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, কর্মকর্তা পরিষদ, ইইসিই বিভাগ, রসায়ন বিভাগ, ইতিহাস ও বাংলাদেশ স্টাডিজ বিভাগ, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ইংরেজি বিভাগ, বাংলা বিভাগ, লোক প্রশাসন বিভাগ, পাবিপ্রবি প্রেসক্লাব এবং পাবিপ্রবি রোভার স্কাউট গ্রুপ।

রেজিস্ট্রার বিজন কুমার ব্রহ্মের সঞ্চালনায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা কামাল খান এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কে এম সালাহ উদ্দিন।

সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন বলেন, জাতীয় বীরদের আমাদের অন্তর থেকে স্মরণ করতে হবে। এই চার নেতা জাতির পিতার নেতৃত্বে যুদ্ধ পরিচালনা এবং যুদ্ধকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। তাঁরা অকুতোভয় ও সাহসী নেতা ছিলেন। এই হত্যাকান্ড ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বরের বুদ্ধিজীবী হত্যা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপরিবার হত্যাকান্ডেরই প্রতিফলন ছিল। হত্যার মাধমে হত্যাকারীরা বিজয় অর্জন করতে চেয়েছিল কিন্তু তা সফল হয়নি। বাঙালির হৃদয়ে তাঁরা চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

তিনি আরও বলেন, তাঁদের নেতৃত্ব এবং দেখানো পথকে আমাদের অনুসরণ করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) এ আমরা অনেক এগিয়েছি। প্রতিটি সেক্টরে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা উত্তরোত্তর ভালো করছি। তাঁদেরকে স্মরণে রেখে, সবার আন্তরিক প্রচেষ্টায় দেশকে নেতৃত্ব দেওয়ার মধ্য দিয়ে এগিয়ে নিতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মো. খায়রুল আলম, মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. হাবিবুল্লাহ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, প্রক্টর মো. কামাল হোসাইন, ছাত্র উপদেষ্টা দপ্তরের পরিচালক ড. সমীরণ কুমার সাহা সহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক,কর্মকর্তা ও শিক্ষার্থীরা।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমামের পরিচালনায় জাতীয় চার নেতা সহ সকল শহীদের জন্য দোয়া করা হয়।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন