The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪

ছেলের সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ৫০ বছরের বাবা

ছেলে আসিফ তালুকদারের সাথে চলমান এসএসসি পরীক্ষায় বসেছেন বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাবু (৫০)। ছোট থেকেই জাহাঙ্গীরের ইচ্ছে ছিল উচ্চশিক্ষা গ্রহণের। ইচ্ছে থাকলেও অভাবের কারণে তা পূরণ হয়নি। অষ্টম শ্রেণির পর আর এগুইনি তার পড়ালেখা। সেখান থেকেই আবার শুরু করে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন জাহাঙ্গীর।

তাদের বাড়ি বগুড়ার ধুনট উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নের বিশাড়দিয়াড় গ্রামে। বাবা ও ছেলে মথুরাপুর মুলতানি পারভীন শাহজাহান তালুকদার (এমপিএসটি) উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র। বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাবু এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয়ের নৈশপ্রহরী।

আসিফ এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ধুনট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিচ্ছে। জাহাঙ্গীর আলম বাবু পরীক্ষা দেন একই স্কুলের কারিগরি শাখা থেকে চিকাশি টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম ইন্সটিটিউট কেন্দ্রে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশাড়দিয়াড় গ্রামের শামসুল হকের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম। ছোটবেলা থেকেই তার পড়ালেখার প্রতি আগ্রহ ছিল। কিন্ত ১৩ বছর বয়সে তার মা-বাবা মারা যান। তখন তিনি অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। অভাবের কারণে আর লেখাপড়া করা হয়নি। কোমল হাতে সংসারের হাল ধরেন। জড়িয়ে পড়েন কৃষি কাজে। ২০ বছর বয়সে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে এক মেয়ে ও দুই ছেলেসন্তানের জন্ম হয়। বড় মেয়ে অনার্স তৃতীয় বর্ষে লেখাপড়া করেন। বড় ছেলে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। আর ছোট ছেলে কেজি স্কুলে প্লেতে লেখাপড়া করছে।

ছেলে আসিফ তালুকদার বলে, ‘লেখাপড়ার কোনো বয়স নেই। বাবার সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে আমি গর্ববোধ করছি।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীর আলম বাবু বলেন, ‘সমাজে আর ১০ জনের মতো নিজেকেও যেন একজন শিক্ষিত মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে পারি, সে উদ্দেশ্যেই এ বয়সে লেখাপড়া শুরু করেছি। পড়ালেখায় শিক্ষকদের পাশাপাশি পরিবারের সদস্যরা আমাকে সহযোগিতা করেছে।

এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বলেন, শিক্ষা প্রতিটি মানুষের মৌলিক অধিকার। অদম্য এ ধরনের উদাহরণ সমাজের জন্য খুবই ইতিবাচক। নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. উদ্যোক্তা ও সফলতার গল্প
  3. ছেলের সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ৫০ বছরের বাবা

ছেলের সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন ৫০ বছরের বাবা

ছেলে আসিফ তালুকদারের সাথে চলমান এসএসসি পরীক্ষায় বসেছেন বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাবু (৫০)। ছোট থেকেই জাহাঙ্গীরের ইচ্ছে ছিল উচ্চশিক্ষা গ্রহণের। ইচ্ছে থাকলেও অভাবের কারণে তা পূরণ হয়নি। অষ্টম শ্রেণির পর আর এগুইনি তার পড়ালেখা। সেখান থেকেই আবার শুরু করে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন জাহাঙ্গীর।

তাদের বাড়ি বগুড়ার ধুনট উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নের বিশাড়দিয়াড় গ্রামে। বাবা ও ছেলে মথুরাপুর মুলতানি পারভীন শাহজাহান তালুকদার (এমপিএসটি) উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র। বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাবু এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয়ের নৈশপ্রহরী।

আসিফ এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ধুনট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা দিচ্ছে। জাহাঙ্গীর আলম বাবু পরীক্ষা দেন একই স্কুলের কারিগরি শাখা থেকে চিকাশি টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম ইন্সটিটিউট কেন্দ্রে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশাড়দিয়াড় গ্রামের শামসুল হকের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম। ছোটবেলা থেকেই তার পড়ালেখার প্রতি আগ্রহ ছিল। কিন্ত ১৩ বছর বয়সে তার মা-বাবা মারা যান। তখন তিনি অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। অভাবের কারণে আর লেখাপড়া করা হয়নি। কোমল হাতে সংসারের হাল ধরেন। জড়িয়ে পড়েন কৃষি কাজে। ২০ বছর বয়সে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে এক মেয়ে ও দুই ছেলেসন্তানের জন্ম হয়। বড় মেয়ে অনার্স তৃতীয় বর্ষে লেখাপড়া করেন। বড় ছেলে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। আর ছোট ছেলে কেজি স্কুলে প্লেতে লেখাপড়া করছে।

ছেলে আসিফ তালুকদার বলে, ‘লেখাপড়ার কোনো বয়স নেই। বাবার সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে আমি গর্ববোধ করছি।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীর আলম বাবু বলেন, ‘সমাজে আর ১০ জনের মতো নিজেকেও যেন একজন শিক্ষিত মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে পারি, সে উদ্দেশ্যেই এ বয়সে লেখাপড়া শুরু করেছি। পড়ালেখায় শিক্ষকদের পাশাপাশি পরিবারের সদস্যরা আমাকে সহযোগিতা করেছে।

এমপিএসটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম মোস্তফা বলেন, শিক্ষা প্রতিটি মানুষের মৌলিক অধিকার। অদম্য এ ধরনের উদাহরণ সমাজের জন্য খুবই ইতিবাচক। নতুন প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করবে।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন