The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
সোমবার, ২৪শে জুন, ২০২৪

গুচ্ছ ‘বি’ ইউনিট পরীক্ষায় যানজট না থাকায় প্রশান্তি, গরমে অস্বস্তি

সাকিবুল ইসলাম, জবি প্রতিনিধি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় ধাপের ২৪টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। শুক্রবার দুপুর ১১ টায় পরীক্ষা শুরু হয়। চলবে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত।

এবার গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় যেসব শিক্ষার্থী কেন্দ্র হিসেবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কে পছন্দের তালিকায় রেখেছিল তাদের এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে রাজধানীর ৩টি কেন্দ্রে আসন বিন্যাস করা হয়েছে।

২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে গুচ্ছভুক্ত ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি ইউনিটে পরীক্ষার জন্য মোট আবেদন পড়েছে ৩ লাখ ৫ হাজার ৩৪৬টি। এর মধ্যে ‘বি’ ইউনিটে আবেদন করেছেন ৯৪ হাজার ৬৩১ জন শিক্ষার্থী। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষ কেন্দ্র ছিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

পরীক্ষার সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সব ধরনের জালিয়াতি রোধে আমাদের সর্বোচ্চ নজরদারি রয়েছে। আমাদের এখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের রোভার স্কাউট ও বিএনসিসির সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে বলা হয়েছে যানজট ক্লিয়ার করতে। এ ইউনিটের পরীক্ষায় যানজট ছিলো এবার আর নেই।

এদিকে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষার প্রথম ধাপে পরীক্ষার্থীরা জবি কেন্দ্রে পৌঁছাতে যানজটের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছিলো বলে দেখা গেছে। কিন্তু বি ইউনিটের পরীক্ষায় দেখা যায় ভিন্ন চিত্র, পরীক্ষা শুরু হবার আগেই কমিয়ে আনা হয়েছে যানজট। এতে স্বস্তিতে পরীক্ষা দিতে আসতে পেরেছে শিক্ষার্থীরা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় পুরান ঢাকার জনবহুল এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় পরীক্ষার সময় এমন সমস্যার সৃষ্টি হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশেই সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল হওয়ায় এর সামনের রাস্তায় যানজট লেগে থাকে নিয়মিতই। গুলিস্তান থেকে সদরঘাট রোডে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হওয়ায় কেন্দ্রে পৌঁছাতে ভোগান্তিতে পড়েছিলো এ ইউনিটে পরীক্ষা দিতে আসা শিক্ষার্থীরা।

যানজটে প্রশান্তি থাকলেও গরমে অস্বস্তিতে পড়েছে পরীক্ষার্থীদের অবিভাবকেরা। বাতাসে আদ্রতা বেশি থাকায় গরমে হাসফাস অবস্থা চারিদিকে।

এসময় পরীক্ষার্থীদের অবিভাবক সুমি দেবনাথ বলেন, প্রচন্ড গরম বসে থাকা যাচ্ছে না। মনে হয় মানুষের সংখ্যা বেশি হওয়ায় গরম আরও বেশি গরম লাগছে।

আরেক অবিভাবক জায়েদা খাতুন বলেন, ভেবেছিলাম পার্কে গাছপালা আছে গরম কম লাগবে কিন্তু এত বেশি মানুষ তার উপর বাতাস নেই গরমে অনেক খারাপ লাগছে।

উল্লেখ্য, রাজধানীর অন্যান্য কেন্দ্রে আসন হলেও যারা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে এসেছে তারা বিশেষ ব্যবস্থায় এই কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে পেরেছে। তাছাড়া গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার আইটিসংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা সমাধানে কুইক রেসপন্স টিম কাজ করছে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.