The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
রবিবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪

খুলনায় জবি অধ্যাপককে নির্যাতনের বিচার চায় শিক্ষক সমিতি

জবি প্রতিনিধি: খুলনার কয়রায় উত্তরচক কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপকের ওপর হামলা ও কক্ষের মধ্যে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

রোববার (৭ মে) শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আইনুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমান এর সই করা এক প্রতিবাদলিপিতে এ দাবি জানানো হয়।

প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, খুলনার কয়রা উত্তরচক আমিনিয়া বহুমুখী কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ নিয়োগে দায়িত্বপালনে থাকা অবস্থায় শুক্রবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলামের উপর হামলার ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি অত্যন্ত মর্মাহত ও ব্যথিত।

এতে আরও বলা হয়েছে, অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলাম ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের প্রতিনিধি হিসেবে পরীক্ষা গ্রহণের জন্য সেখানে রাষ্ট্রীয় কাজে দায়িত্বরত ছিলেন। মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ তাঁর পছন্দের প্রার্থীকে পরীক্ষায় পাশ না করা সত্বেও নিয়োগের জন্য শুরু থেকেই চাপ দিতে থাকেন এবং অবৈধভাবে নিয়োগ দিতে রাজি না হওয়ায় অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলামকে আটকে রেখে তার ওপর নির্মম নির্যাতন করেন। এ ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

প্রতিবাদলিপিতে আরও বলা হয়েছে, অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলামকে আটকে রেখে তার ওপর নির্মম নির্যাতনের অভিযোগে মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদসহ সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জন্য সমিতি জোর দাবী জানাচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার দেয়াড়া গ্রামের মহারাজপুর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদের বাড়িসংলগ্ন রাস্তায় অধ্যাপক নজরুল ইসলামের ওপর প্রথমে হামলা এবং পরে তার বাড়ির একটি কক্ষে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অধ্যাপক নজরুল ইসলামকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে কয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে সন্ধ্যায় রওনা দিয়েছেন।

এ ঘটনায় অধ্যাপক নজরুল এখনও আইনের আশ্রয় নেননি। তবে তিনি দ্রুত অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন কয়রা থানার ওসি এবিএমএস দোহা। অভিযোগ পেলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে বলেও তিনি জানান। বিষয়টি জগন্ননাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অবগত হয়েছে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. ক্যাম্পাস
  3. খুলনায় জবি অধ্যাপককে নির্যাতনের বিচার চায় শিক্ষক সমিতি

খুলনায় জবি অধ্যাপককে নির্যাতনের বিচার চায় শিক্ষক সমিতি

জবি প্রতিনিধি: খুলনার কয়রায় উত্তরচক কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপকের ওপর হামলা ও কক্ষের মধ্যে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

রোববার (৭ মে) শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আইনুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম মো. লুৎফর রহমান এর সই করা এক প্রতিবাদলিপিতে এ দাবি জানানো হয়।

প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, খুলনার কয়রা উত্তরচক আমিনিয়া বহুমুখী কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ নিয়োগে দায়িত্বপালনে থাকা অবস্থায় শুক্রবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলামের উপর হামলার ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি অত্যন্ত মর্মাহত ও ব্যথিত।

এতে আরও বলা হয়েছে, অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলাম ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের প্রতিনিধি হিসেবে পরীক্ষা গ্রহণের জন্য সেখানে রাষ্ট্রীয় কাজে দায়িত্বরত ছিলেন। মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদ তাঁর পছন্দের প্রার্থীকে পরীক্ষায় পাশ না করা সত্বেও নিয়োগের জন্য শুরু থেকেই চাপ দিতে থাকেন এবং অবৈধভাবে নিয়োগ দিতে রাজি না হওয়ায় অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলামকে আটকে রেখে তার ওপর নির্মম নির্যাতন করেন। এ ঘটনায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

প্রতিবাদলিপিতে আরও বলা হয়েছে, অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলামকে আটকে রেখে তার ওপর নির্মম নির্যাতনের অভিযোগে মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ আল মাহমুদসহ সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জন্য সমিতি জোর দাবী জানাচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার দেয়াড়া গ্রামের মহারাজপুর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদের বাড়িসংলগ্ন রাস্তায় অধ্যাপক নজরুল ইসলামের ওপর প্রথমে হামলা এবং পরে তার বাড়ির একটি কক্ষে আটকে রেখে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অধ্যাপক নজরুল ইসলামকে চিকিৎসার জন্য প্রথমে কয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্তমানে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে সন্ধ্যায় রওনা দিয়েছেন।

এ ঘটনায় অধ্যাপক নজরুল এখনও আইনের আশ্রয় নেননি। তবে তিনি দ্রুত অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন কয়রা থানার ওসি এবিএমএস দোহা। অভিযোগ পেলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে বলেও তিনি জানান। বিষয়টি জগন্ননাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অবগত হয়েছে।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন