এইচএসসির ফল পরিবর্তনে ঢাকা বোর্ডে ২১ হাজার আবেদন

এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯৬ দশমিক ২০ শতাংশ। এখানে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৯ হাজার ২৩৩ জন।তারপরও ফলাফলে সন্তুষ্ট নয় প্রায় ২১ হাজার শিক্ষার্থী। তারা ফল পুনর্নিরীক্ষার জন্য ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এবার এইচএসসি পরীক্ষার প্রাপ্ত ফলে সন্তুষ্ট না হওয়ায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০ হাজার ৮০০ জন শিক্ষার্থী পুনর্নিরীক্ষার জন্য আবেদন করেছেন। কেউ কেউ একটি বিষয়ে আবার কেউ একাধিক বিষয়ে আবেদন করেছেন। আবেদনপত্রের সংখ্যা প্রায় ৩০ হাজার। আর রসায়ন বিষয় পুনর্নিরীক্ষার জন্য ৩ হাজার ১০০টি আবেদন জমা হয়েছে। গত ২০ ফেব্রুয়ারি আবেদন গ্রহণ শেষ হয়েছে। আগামী ১৩ মার্চ ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষা বোর্ডের সংশ্লিষ্টরা জানান, পুনর্নিরীক্ষার জন্য যেসব শিক্ষার্থী যে বিষয়ে আবেদন করবে তাদের উত্তরপত্রের প্রাপ্ত নম্বর ঠিকমতো যোগ করা হয়েছে কি না তা পুনরায় মূল্যায়ন করা হয়ে থাকে। নতুন করে উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হয় না। এতে করেও কারো কারো ফলাফল পরিবর্তন হয়ে থাকে। কেউ আবার ফেল থেকেও জিপিএ-৫ পেয়ে যান।

দেখা গেছে, এবার এইচএসসি-সমমান পরীক্ষায় দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ১৩ লাখ ৭১ হাজার ৬৮১ জন। পাসের হার ৯৫ দশমিক ২৬ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৮৯ হাজার ১৬৯ জন। এর হার শতকরা ১৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

২০২০ সালে অটোপাস হওয়ায় পাসের হার ছিল শতভাগ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬১৪ জন। পরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে এইচএসসি ও সমমানের পুনর্নিরীক্ষার আবেদন শুরু হয়, যা শেষ হয় ২০ ফেব্রুয়ারি।