The Rising Campus
Education, Scholarship, Job, Campus and Youth
বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪

অফিসের লাকি ড্র, এক বছরের সবেতন ছুটি ‘পুরস্কার’ জিতলেন এক কর্মী

গত তিন বছর করোনার কারণে ওই সংস্থা বার্ষিক নৈশাহারের উৎসবের আয়োজন করতে পারেনি। তাই এ বার মহাধুমধাম সহকারে ‘গালা ডিনার’-এর আয়োজন। সেই উৎসবেই বাজিমাত করলেন মুখচোরা এক কর্মী। লাকি ড্র’য়ের প্রথম পুরস্কার জিতে চীনের অন্যতম ভাগ্যবানের তকমা পেয়ে গেলেন এক সাধারণ অফিসকর্মী। লাকি ড্রয়ের প্রথম পুরস্কার ছিল, ৩৬৫ দিন এক টানা সবেতন ছুটি।

এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে চীনের সমাজমাধ্যমে। তা দেওয়া হয়েছে টুইটারেও। সেখানে দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তি হাতে একটি প্ল্যাকার্ড নিয়ে বসে আছেন চেয়ারে। তার সামনে একটি ছোট্ট মেয়ে। প্ল্যাকার্ডে ম্যান্ডারিনে লেখা, ৩৬৫ দিন সবেতন ছুটি!

যদিও এক বছর সবেতন ছুটির ক্ষেত্রে রয়েছে কিছু শর্তও। পুরস্কারে পাওয়া এক বছর অন্য কোনও কাজ করা যাবে না, যেখানে শ্রম বা বুদ্ধির বিনিময়ে মজুরি পাওয়া যায়। এমনকি কোনও রেস্তরাঁয় খাবার পরিবেশনকারীর কাজও করা যাবে না।

এই খবর ভাইরাল হওয়ার পরেই গোটা চীনের কর্মীরা হিংসায় জ্বলেপুড়ে মরছেন। তাদের সবার একটাই প্রশ্ন, এক বছর বাদে যখন কর্মী নিজের দপ্তরে ফিরবেন, তখন অন্য কাউকে দেখবেন না তো সেই চেয়ারে! কর্তৃপক্ষ অবশ্য নিশ্চিত করেছে, চাকরি যাওয়ার প্রশ্নই নেই।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. প্রচ্ছদ
  2. আন্তর্জাতিক
  3. অফিসের লাকি ড্র, এক বছরের সবেতন ছুটি ‘পুরস্কার’ জিতলেন এক কর্মী

অফিসের লাকি ড্র, এক বছরের সবেতন ছুটি ‘পুরস্কার’ জিতলেন এক কর্মী

গত তিন বছর করোনার কারণে ওই সংস্থা বার্ষিক নৈশাহারের উৎসবের আয়োজন করতে পারেনি। তাই এ বার মহাধুমধাম সহকারে ‘গালা ডিনার’-এর আয়োজন। সেই উৎসবেই বাজিমাত করলেন মুখচোরা এক কর্মী। লাকি ড্র’য়ের প্রথম পুরস্কার জিতে চীনের অন্যতম ভাগ্যবানের তকমা পেয়ে গেলেন এক সাধারণ অফিসকর্মী। লাকি ড্রয়ের প্রথম পুরস্কার ছিল, ৩৬৫ দিন এক টানা সবেতন ছুটি।

এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে চীনের সমাজমাধ্যমে। তা দেওয়া হয়েছে টুইটারেও। সেখানে দেখা যাচ্ছে, এক ব্যক্তি হাতে একটি প্ল্যাকার্ড নিয়ে বসে আছেন চেয়ারে। তার সামনে একটি ছোট্ট মেয়ে। প্ল্যাকার্ডে ম্যান্ডারিনে লেখা, ৩৬৫ দিন সবেতন ছুটি!

যদিও এক বছর সবেতন ছুটির ক্ষেত্রে রয়েছে কিছু শর্তও। পুরস্কারে পাওয়া এক বছর অন্য কোনও কাজ করা যাবে না, যেখানে শ্রম বা বুদ্ধির বিনিময়ে মজুরি পাওয়া যায়। এমনকি কোনও রেস্তরাঁয় খাবার পরিবেশনকারীর কাজও করা যাবে না।

এই খবর ভাইরাল হওয়ার পরেই গোটা চীনের কর্মীরা হিংসায় জ্বলেপুড়ে মরছেন। তাদের সবার একটাই প্রশ্ন, এক বছর বাদে যখন কর্মী নিজের দপ্তরে ফিরবেন, তখন অন্য কাউকে দেখবেন না তো সেই চেয়ারে! কর্তৃপক্ষ অবশ্য নিশ্চিত করেছে, চাকরি যাওয়ার প্রশ্নই নেই।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন