এবারো সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

দেশের ৪৯টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ১০ হাজার ৩২ কোটি ৮১ লাখ টাকার বাজেট অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। এর মধ্যে ৫ হাজার ৮৭৫ কোটি ৮১ লক্ষ টাকার রাজস্ব বাজেট এবং ৪ হাজার ১৫৭ কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট রয়েছে। বাজেটে সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। যার পরিমাণ ৮৭৬ কোটি টাকা। গত বছর এর পরিমাণ ছিল ৮৩০ কোটি ৬ লাখ টাকা। অন্যদিকে সর্বনিম্ন বাজেট পেয়েছে সদ্য কার্যক্রম শুরু করা হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। তাদের বরাদ্দের পরিমাণ ৫ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ- এর সভাপতিত্বে ১৬০তম কমিশন সভায় এ বাজেট অনুমোদিত হয়। সভার কার্যপত্র ও বাজেট উপস্থাপন করেন ইউজিসি সচিব (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. ফেরদৌস জামান।

গত অর্থবছরে ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকূলে বাজেটে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৮ হাজার ৪৮৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। সে হিসেবে, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য এ বছর বরাদ্দ বেড়েছে প্রায় ১ হাজার ৫৪৮ কোটি টাকা।

উচ্চশিক্ষায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের গবেষণার জন্য ২০২১-২০২২ অর্থবছরে মূল বাজেটে ১০০ কোটি ৭৪ লাখ বরাদ্দ ধরা হয়েছে। গত বছরের তুলনায় বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ৩৪ কোটি টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। গত ২০২০-২০২১ অর্থবছরে গবেষণায় মূল বাজেটে ৬৬ কোটি ৬৫ লক্ষ বরাদ্দ ধরা হয়েছিল। এছাড়া, কমিশন ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ইউজিসি’র জন্য ৬১ কোটি ৩৬ লক্ষ টাকার বাজেট অনুমোদন করেছে। এর মধ্যে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার জন্য ১৮ কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ ধরা হয়েছে যা গত বছরের চেয়ে ৩ কোটি টাকা বেশি।

গবেষণা খাতে অধিক বরাদ্দ বিষয়ে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে কাতারে স্থান দিতে সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে দেশকে এগিয়ে নিতে হলে গুণগত শিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যমে নতুন জ্ঞান সৃজন করতে হবে। এ লক্ষ্য পূরণে ইউজিসি দেশের পাবলিক বিশ্ববদ্যিালয়ের গবেষণা খাতে উল্লেখযোগ্য হারে বাজেট বৃদ্ধি করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ মৌলিক ও প্রায়োগিক গবেষণায় এ অর্থ যথাযথভাবে ব্যয় করতে পারলে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় কাঙিক্ষত লক্ষ্য অর্জিত হবে এবং বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে সম্মানজনক স্থান অর্জন সম্ভব হবে।

বাজেটের বিষয়ে ইউজিসির সদস্য ড. মো. আবু তাহের বলেন, আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি এবার গবেষণা খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর জন্য। এবং সেটাই করেছি। এ খাতে গত বছরের তুলনায় ৩৪ কোটি বাড়িয়ে ১০০ কোটি করা হয়েছে। এবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ই সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে।

তিনি বলেন, করোনাকালে বিশেষ কিছু খাতে অর্থ ব্যয় করা লেগেছে। এসব কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ব্যয় বেড়েছে। যদিও গবেষণা কম হওয়ার কারণে উদ্ভাবন ও আবিষ্কারের ক্ষেত্রে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর চিত্র খুবই অনুজ্জ্বল। দেশের উন্নয়নে গুণগত গবেষণার কোনো বিকল্প নেই। তাই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গবেষণা কার্যক্রম বাড়ানোর ওপর জোর দেয়া হচ্ছে।