৯৩ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দেবে সরকার, অক্টোবরে বিজ্ঞপ্তি শুরু

দেশের বিভিন্ন ধরনের সরকারি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সে মোতাবেক প্রায় ৯৩ হাজার জন নিয়োগ পাবেন। এরমধ্যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩৬ হাজার এবং অন্যান্য ধারার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাড়ে ৫৭ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে ইতোমধ্যে বেশ কিছু ক্ষেত্রে পরিবর্তনও আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। সে আলোকে অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করার উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই)। এবার শিক্ষক নিয়োগের আবেদন ফিও বাড়ছে বলে জানা গেছে।

অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগ সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। প্রায় ৩৬ হাজার শিক্ষকের মধ্যে প্রাক-প্রাথমিকে ২৫ হাজার ৩০০ নিয়োগ পাবেন। আর সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে ১০ হাজার। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, দুই মাস আগে এই কার্যক্রম শুরুর নির্দেশনা থাকলেও করোনা পরিস্থিতিতে শুরু করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন কয়েকদিন আগে সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘প্রাক-প্রাথমিক পদ সৃজন করা হয়েছে। এসব পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে নির্দেশ দিয়েছি অধিদফতরকে। সহকারী শিক্ষকের শূন্য পদেও নিয়োগ দিতে বলা হয়েছে। দ্রুত এ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে কাজ করছে ডিপিই।’

এদিকে মাধ্যমিকের নিয়োগের বিষয়ে জানা গেছে, আগামী বছর সাধারণ ধারার সরকারি-বেসরকারি স্কুলে বৃত্তিমূলক ও প্রাক-বৃত্তিমূলক কোর্স চালু করবে সরকার। বছরের শুরুতেই ১৪ হাজারের বেশি স্কুলে এ কার্যক্রম শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেজন্য প্রায় সাড়ে ৫৭ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হবে। জানুয়ারির আগেই এসব শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ পাবেন বলে জানা গেছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এই নিয়োগের বিষয়ে ইতিমধ্যে পরিকল্পনা শুরু করেছে মন্ত্রণালয়৷ নতুন বছরের শুরুতেই ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণিতে প্রাক বৃত্তিমূলক কোর্স চালু হবে। আর নবম ও দশম শ্রেণিতে বৃত্তিমূলক কোর্স চালু হবে। সে মোতাবেক ৬৮০টি সরকারি মাধ্যমিক স্কুল এবং ১৩ হাজার ২০০টি এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ করা হবে।

জানা গেছে, ১৪ হাজারের বেশি স্কুলে দু’জন করে ট্রেড ইন্সট্রাক্টর ও ল্যাব অ্যাসিস্টেন্ট নিয়োগ পাবে। সবমিলিয়ে ২৮ হাজার সাতশ’র বেশি ট্রেড ইন্সট্রাক্টর নিয়োগ পাবে। একই সংখ্যক ল্যাব অ্যাসিস্টেন্টও নিয়োগ দেয়া হবে। গত ২৮ জুলাই এক সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে ওয়েবসাইট আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। ফলে এবার প্রার্থীর আবেদনের পর অটোমেটিক ব্যক্তিগত ও একাডেমিক তথ্য যাচাই-বাছাই হবে। এতে সময়ক্ষেপণ হবে না। নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে ইতোমধ্যে বিজ্ঞপ্তি তৈরি করা হয়েছে। আবেদন অনলাইনে সম্পন্ন করতে হবে। নারী-পুরুষ উভয়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা হবে স্নাতক (সম্মান) বা সমমান ডিগ্রি করা হয়েছে।

গত বছর প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের আবেদন ফি ১৬৬ টাকা হলেও এবার বাড়ছে। তবে কত টাকা বাড়বে তা জানা যায়নি। বুয়েট ও টেলিটকের সহায়তায় আবেদন গ্রহণ, প্রশ্নপত্র পাঠানো, খাতা মূল্যায়ন এবং ফল প্রকাশ হবে। আগামী অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হবে।

ডিপিইর নিয়োগ শাখার উপ-পরিচালক আতিক বিন সাত্তার সাংবাদিকদেরকে বলেছেন, ‘আমরা নিয়োগ-সংক্রান্ত কার্যক্রমের প্রস্তুতি শুরু করেছি। আবেদন গ্রহণের ওয়েবসাইট ডেভেলপ (উন্নয়ন) করা হচ্ছে। অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।’