৯০ বছর বয়সেও ছাড়তে পারেননি শিক্ষকতা, পড়াচ্ছেন বিনা বেতনে

৯০ বছর বয়সে এসেও শিক্ষকতা পেশাকে ছাড়তে পারেননি বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গাড়ুরিয়া ইউনিয়নের দেউলী গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মো. কাঞ্চন আলী সিকদার। এ পেশাকে ভালোবেসে এখন তিনি শিক্ষার্থীদের বিনা বেতনেই পাঠদান করছেন।

এর আগে কাঞ্চন সিকদার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ৩৬ বছর প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এরপর অবসরে গেছেন তাও ২ যুগ হয়ে গেছে প্রায়। সন্তানরা সবাই প্রতিষ্ঠিত। তাই সংসারের খরচ নিয়েও কাঞ্চন আলীর খুব বেশি চিন্তা নেই।

মুক্তিযোদ্ধা কাঞ্চন আলী জানান, আমার দীর্ঘ ৩৬ বছরের কর্মজীবনে আমি ইংরেজি ও বাংলা বিষয়ে নিয়মিত ক্লাস নিয়েছি। তবে আমার পছন্দের বিষয় ইংরেজি। এ কারণে কাউকে ইংরেজি পড়াতে পারলে ভালো লাগে।

তিনি বলেন, আমি যেটা জানি, সেটা যদি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বিলিয়ে দিতে পারি সেটার যে আনন্দ, তার নাম বিমলানন্দ। আর আমি সেটাই চাই। আজ অবধি আমি কখনো ক্লাসে দেরি করিনি। ক্লাস নেওয়ার সময় কখনো চেয়ারে বসতাম না।

মুক্তিযোদ্ধা কাঞ্চন আলীর নিজের দেওয়া জায়গায় সন্তানরা মিলে প্রতিষ্ঠা করেছে কাঞ্চন শিকদার বিদ্যানিকেতন নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং বিলকিস জাহান টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড বিএম কলেজ। এই দুই প্রতিষ্ঠানেই নিয়ম করে ইংরেজি বিষয়ে ক্লাস নেন এ মুক্তিযোদ্ধা।

বিলকিস জাহান টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড বিএম কলেজের অধ্যক্ষ এস এম জুবায়ের আলম বলেন, মানুষকে তার বয়স দিয়ে আটকানো যায় না। কোনো মানুষের উদ্যম এবং আগ্রহ থাকলে মানুষ তার নিজ কর্মগুণে জীবনকে জয় করতে পারে। আর তিনি (কাঞ্চন আলী সিকদার) সেটাই করছেন।