সামনে ফাইভজি চালু হবে, বাড়বে ডিজিটাল অপরাধ: মোস্তাফা জব্বার

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, সামনে ফাইভজি চালু করা হবে এর ফলে ডিজিটাল অপরাধ আরও বাড়বে। আমাদের প্রযুক্তিগত সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। আমরা আমাদের দায়িত্ব সততা, নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করছি। আমাদের দিক থেকে মনে হয় না কোনো ত্রুটি পাবেন। দিনরাত কাজ করছি।

মোস্তাফা জব্বার আরও বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইউটিউব, গুগলসহ আন্তর্জাতিক অনলাইন মাধ্যমে প্রকাশিত কোনো কনটেন্ট সরিয়ে ফেলার সক্ষমতা নেই বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি)। আপত্তিকর ব্যক্তিগত ছবি কিংবা ভিডিও অপসারণের ব্যাপারে অনুরোধ করা হলেও সবক্ষেত্রে তারা শোনে না বলেও জানান তিনি।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিটিআরসি ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব তথ্য জানান তিনি।

বন্ধ করে দেওয়া বা কনটেন্ট সরানোর সক্ষমতা বিটিআরসির নেই জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘যারা আইন-আদালতের কাছে যান তারা আমাদের অবস্থাটা বুঝবেন। যে জায়গায় কাজ করার সক্ষমতা রাখি না, তার দায় আমাদের ওপর দিলে অবিচার হবে।’

সোশ্যাল মিডিয়ার কনটেন্ট অপসারণের ক্ষমতা বিটিআরসির নেই উল্লেখ করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এখন ইন্টারনেটে সবচেয়ে বেশি অপরাধ হচ্ছে। বিটিআরসি কেবল টেলকো অপারেটর ও আইএসপিগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। আপত্তিকর ওয়েবসাইটগুলো বিটিআরসি বাংলাদেশের সীমানায় বন্ধ করতে পারে। আমরা কাজ করছি। ইতিমধ্যে ২২ হাজারের বেশি পর্নো-জুয়ার সাইট বন্ধ করেছি। লিংক পেলেই কাজে বসে যাই। বন্ধ করার চেষ্টা করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে আমরা এক রকমের অসহায়ত্ব বোধ করি। তারা তাদের মতো করে কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড বানায়, আমরা তাদের কৃপার ওপর নির্ভরশীল। সেটা আমাদের মেনে নিতে হবে। তবে আমরা আশ্বস্ত করতে পারি, ফেসবুকের সঙ্গে নিয়মিত কথাবার্তা হয়।’

এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদারে সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন অনলাইনে যুক্ত ছিলেন। বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, সংস্থার মহাপরিচালক (সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসেস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিম পারভেজ বক্তব্য দেন।