শিরোপার দিনটি স্মরণীয় করে রাখল লিভারপুল

শিরোপা উদযাপনের দিনটা স্মরণীয় করে রাখলো লিভারপুল। ইপিএলে নিজেদের মাঠ অ্যানফিল্ডে চেলসিকে হারালো অল রেডরা। ৫-৩ ব্যবধানের জয় তুলে নিলো ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। ম্যাচ শেষে লিভারপুলের হাতে ট্রফি তুলে দেন দলটির কিংবদন্তি ফুটবলার কেনি ডালগ্লিশ।

রেকর্ড ৭ ম্যাচ হাতে রেখে তিন দশকের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে লিগ শিরোপা আগেই নিশ্চিত করেছিলো লিভারপুল। কিন্তু এতদিন কাঙ্খিত ট্রফিতে চুম্বন দেয়া হয়নি অল রেডদের। অপেক্ষা ছিলো ভালো কোন মুহুর্তের। যেটা অবশ্যই ঘরের মাঠ অ্যানফিল্ডে। তাই চেলসির বিপক্ষে লিগের শেষ বিগ ম্যাচটাই বেছে নিয়েছিলো লিভারপুল। জয়ও তুলে নিয়েছে তারা। ম্যাচ শেষে কিংবদন্তি কেনি ডালগ্লিশ সাধের শিরোপা তুলে দেন উত্তরসূরিদের হাতে। শিরোপা উল্লাসে মাতে ইয়ুর্গেন ক্লপ বাহিনী।

তার আগে জয়ের পুরো সংকল্প নিয়েই মাঠে অ্যানফিল্ডে চেলসিকে আতিথ্য দেয় লিভারপুল। ম্যাচের ২৩ মিনিটেই কেইতার গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। এরপর ৩৮ মিনিটে আরনল্ড লিড দ্বিগুণ করেন অল রেডদের হয়ে।

৪৩ মিনিটে সালাহর অ্যাসিস্টে উইজনালডাম ব্যবধান ৩-০ করেন লিভারপুলের হয়ে। পরে অবশ্য প্রথমার্ধ্বের যোগ করা সময়ে চেলসির হয়ে একটি গোল পরিশোধ করেন অলিভার জিরু। বিরতির পরও থেমে থাকেনি স্বাগতিকরা। ব্লু শিবিরে চালিয়েছে একের পর এক আক্রমণ। ৫৪ মিনিটে ফিরমিনো ব্যবধান আরো বাড়িয়ে নেন অল রেডদের হয়ে।

আক্রমণ চালাতে গিয়ে রক্ষণদুর্গে মনোযোগ হারায় স্বাগতিকরা। আর সে সুযোগই কাজে লাগায় চেলসি। ৬১ মিনিটে আব্রাহাম ব্যবধান কমানোর পর ৭৩ মিনিটে আরো একটি গোলের দেখা পায় ব্লুরা। আর সেটি করেন পুলিসিচ।

ব্যবধান যখন ৪-৩ তখন নড়েচড়ে ওঠে লিভারপুল। শিরোপা উল্লাসের দিনটায় যে হার চায়নি তারা। তাই পুরো আক্রমণভাগ নিয়ে এগিয়ে যায় নীলদুর্গে। অবশেষে ৮৪ মিনিটে রবার্টসনের অ্যাসিস্টে চেম্বারলেইনের করা গোলে স্বস্তি ফেরে স্বাগতিক শিবিরে। জয় তুলে নেয় অল রেডরা। সেই সাথে স্মরণিয় করে রাখে শিরোপা উল্লাসের দিনটি।