শিক্ষামন্ত্রীও এক বছর ছুটিতে গেলে দেশের কী ক্ষতি হবে, প্রশ্ন সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহছানুল হক মিলন

শিক্ষার্থীদের এক বছর পরীক্ষা না দিলে এমন কোনো বিরাট ক্ষতি হয়ে যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। রোববার (১৩ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন, ‘শিক্ষার্থীদের সুস্থতা এবং জীবন আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির ব্যাপারে কী করা যায় আমরা সেগুলো নিয়েও ভাবছি।

এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহছানুল হক মিলন পাল্টা প্রশ্ন তুলেছেন, তাহলে শিক্ষামন্ত্রীও এক বছর ছুটিতে গেলে দেশের কী ক্ষতি হবে?

রোববার বিকেলে রেডিও তেহরানকে দেয়া এক বক্তব্যে তিনি বলেন, গতকাল প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন করোনার চেয়ে নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। তাহলে জাতির জন্য শিক্ষা গুরুত্বপূর্ণ কেন নয়? আসলে ক্ষমতাসীনেরা চাচ্ছে জাতিকে অশিক্ষিত রাখতে।

এসময় করোনা মহামারীর মাঝেও বিভিন্ন দেশে কিভাবে ক্লাস-পরীক্ষা পরিচালনা করা হচ্ছে তা অনুসরণের পরামর্শ দেন এ সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা বিভ্রান্ত হবেন না, ভুল পথে যাবেন না। নিজেরা নিজেদের বাড়িতে সুস্থ থাকার চেষ্টা করুন, মানসিকভাবে সুস্থ থাকার জন্য কাজ করুন, কোনো খারাপ কিছুতে নিজেদের জড়িয়ে ফেলবেন না। ভয়ের কোনো কারণ নেই, পরীক্ষা দিতে হবে কিনা সেটি পরের কথা। আমরা চাই আমাদের সন্তানরা সুস্থ থাকুক। পরীক্ষা এক বছর না দিলে জীবনে এমন কোনো বিরাট ক্ষতি হয়ে যাবে না।

২০২০ খ্রিষ্টাব্দের মার্চ মাসে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর সে বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়। চলমান ছুটি কয়েক দফা বাড়িয়ে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে।