শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিবেশ পর্যালোচনা করছেন প্রধানমন্ত্রী

করোনার কারণে পাঁচ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। করোনা সংক্রমণের পরিস্থিতি বিবেচনা করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, পরিস্থিতি অনুকূলে এলেই সরকার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবে। শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী খুবই চিন্তিত। তাই এই সময় শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

চলমান পরিস্থিতিতে সবার ভবিষ্যৎ এবং পাশাপাশি জীবনও ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘একটা কথাই বলতে চাই, চলমান পরিস্থিতিতে ভবিষ্যৎ যেমন তোমাদের ঝুঁকিপূর্ণ, তেমনি জীবনও কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ। জীবন না থাকলে ভবিষ্যৎ গড়বে কেমনে?’। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সবাইকে মাস্ক ব্যবহারসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।

রবিবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

এসময় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমে পরিস্থিতি অনুকূলে এলেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। পরিস্থিতি অনুকূলে এলেই সরকার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবে।

অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন বলেছেন, ‘সেপ্টেম্বরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি।’

তিনি আরও জানান, করোনার কারণে এ বছর প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা না নেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এ ছাড়া স্কুল খুললে কিভাবে পরীক্ষা নেওয়া হবে, কিভাবে ক্লাস হবে সে ব্যাপারে নীতিমালা প্রস্তুত করা হচ্ছে।