মোবাইলে কলচার্জ বৃদ্ধি: বিটিআরসির কড়া চিঠির ‘নরম’ জবাব দিল অ্যামটব

মোবাইলের কথা বলার খরচ এখনই বেড়ে যাওয়া নিয়ে বিটিআরসির কঠোর ভাষার চিঠির নরম জবাব দিয়েছে অপারেটরদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব)।

সংগঠনটি বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) ই-মেইলের জবাবে অ্যামটব বলেছে, তারা ‘কিংকর্তব্যবিমূঢ়’।

নতুন বাজেটে মোবাইল–সেবায় নতুন করে ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করার পর অপারেটরগুলো তা কার্যকর করে। এরপর বিটিআরসি গত শনিবার কড়া ভাষায় এক ই-মেইল পাঠায় অপারেটরদের কাছে। ই-মেইলে জানতে চাওয়া হয়, বাজেট পাস হবে ১ জুলাই। তার আগেই এই নতুন কর কেন কার্যকর করা হলো।

বিটিআরসির ই-মেইলে আরও বলা হয়, বাজেট পাশের আগে কলচার্জ বাড়ানোর প্রমাণ পাওয়া গেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অবশ্য জাতীয় সংসদে যেদিন বাজেট ঘোষণা হয়, সেদিন থেকেই নতুন শুল্ক কার্যকর হয়। অর্থবিলের ৮৮ পাতায় কোন কোন দফা অবিলম্বে কার্যকর হবে, তা উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে। এর আওতায় ৮০ নম্বর দফাও আছে। এই দফার অন্তর্ভুক্ত মোবাইল–সেবা।

এ বিষয়ে রোববার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল মজিদ বলেন, সম্পূরক শুল্ক ও অন্যান্য শুল্ক আরোপ করা হলে সেটা তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হয়। কারণ, তা না হলে অপব্যবহার করার সুযোগ থাকে।

এদিকে আজ সোমবার বিটিআরসির ই-মেইলের জবাব দেয় অ্যামটব। সংগঠনটির মহাসচিব এস এম ফরহাদের পাঠানো চিঠিতে সম্পূরক শুল্ক তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর করার আইনি বাধ্যবাধকতা তুলে ধরে বলা হয়, ‘আমরা শুধু দেশের আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নিয়েছি।’

বাজেটে সরকার মোবাইল–সেবা, তথা কথা বলা, ইন্টারনেট ব্যবহার ও খুদে বার্তা পাঠানোর ওপর সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করে।

এর ফলে যে নতুন কর–কাঠামো দাঁড়াল, তাতে এখন থেকে প্রতি ১০০ টাকা রিচার্জে সরকারের কাছে কর হিসেবে যাবে ২৫ টাকার কিছু বেশি, এত দিন যা ২২ টাকার মতো ছিল। অপারেটরগুলো এই কর আরোপের তীব্র বিরোধিতা করছে।

চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে সম্পূরক শুল্ক আরও বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। আগেও তা বাড়ানো হয়েছে। প্রতিবছরই বাজেট ঘোষণার দিন নতুন সম্পূরক শুল্ক কার্যকর করে অপারেটরেরা। এই বছরই বিটিআরসি কড়া ভাষায় ব্যবস্থা নেওয়ার চিঠি দিল। যার জবাবে আইন উল্লেখ করে দিল অ্যামটব।