মুখের সুস্থতায় যা খাবেন

দাঁত ও মুখের যত্নে প্রতিদিন শুধু ব্রাশ বা মুখ পরিচ্ছন্ন রাখার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। সুস্থ্–সবল দাঁত ও মাড়ির জন্য খাদ্যতালিকার দিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। স্বাস্থ্যকর খাবার দাঁতের ক্ষয়রোধে সহায়তা করে। আবার কিছু খাবার দাঁতের ক্ষতিও করতে পারে।

দাঁতের সুস্থতায় যা খাবেন

● কমলায় প্রচুর ভিটামিন সি ও ক্যালসিয়াম রয়েছে। মাড়ির প্রদাহ থেকে রক্ষা করে ভিটামিন সি। তবে কমলার জুসে চিনির পরিমাণ বেশি থাকতে পারে। তাই এটি পরিমিত পান করুন।

● টফু বা পনির একটি ক্যালসিয়াম ও প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার। হাড় ও দাঁতের জন্য খুবই উপকারী এটি।

● চিংড়ি ও সামুদ্রিক মাছে প্রোটিন, ভিটামিন ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। এগুলো মাড়ির প্রদাহ রোধ করে।

● সবুজ শাকসবজি দাঁত ও হাড়কে সজীব রাখে। মটরশুঁটি, শিমের বিচি, সয়াবিনের বিচি ক্যালসিয়ামের অন্যতম উৎস। এ ছাড়া এগুলোতে প্রোটিন, ফাইবার, ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থও থাকে।

● কাজুবাদামে ক্যালসিয়াম, ফ্যাট, ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম ও ভিটামিন ই থাকে। এটি দাঁত পরিষ্কার ও মাড়ি সুস্থ এবং রক্ত সঞ্চালন ঠিক রাখে।

● মাছ, মাংস, দুধ ও ডিম দাঁত মজবুত করতে সহায়তা করে।

● ফলমূলে পানি ও ফাইবারের পরিমাণ বেশি থাকে। এগুলো দাঁত পরিষ্কার রাখতে সহায়তা করে

যা খাবেন না
● শক্ত ক্যান্ডি দাঁতের জন্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে। অতিরিক্ত চিনিযুক্ত হওয়ায় দাঁতের জন্য ক্ষতিকারকও এগুলো।

● অনেকে বরফ চিবিয়ে থাকেন। এতে দাঁতের এনামেল দুর্বল হতে পারে।

● লেবুর রস বা লেবুজাতীয় কোমল পানীয় দাঁতের জন্য ক্ষতিকর। এতে থাকা সাইট্রিক অ্যাসিড, যা দাঁতের এনামেল ক্ষয় করে।

● চা–কফিতে চিনি মিশিয়ে পান করা ভালো নয়। এতে মুখ শুকিয়ে যেতে পারে, দাঁতে দাগ হতে পারে।

● ফাস্ট ফুড, কোমল পানীয়, চকলেট, চিপসের মতো খাবার দাঁতের এনামেল ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং মাড়ি প্রদাহ সৃষ্টি করে।

● ধূমপান, অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় পানিশূন্যতা তৈরি করে এবং মুখ শুকিয়ে যায়। অতিরিক্ত ধূমপান ও অ্যালকোহলে দাঁত ক্ষয় হয়।