মাত্র ২০৫ টাকায় গুগল আর্জেন্টিনার ডোমেইন কিনেছিলেন এক ব্যক্তি!

আর্জেন্টিনার গুগলের ডোমেইন www.google.com.ar মাত্র দুই ইউরোতে (২০৫ টাকা) কিনে নিয়েছিলেন এক ব্যক্তি। স্থানীয় সময় গত বুধবার (২৭ এপ্রিল) দুই ঘণ্টার জন্য ডোমেইনটি আর্জেন্টিনার হাতছাড়া হয়ে যায়।

নিকোলাস কুরোনা নামের ৩০ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি পেশায় একজন ওয়েব ডিজাইনার। তিনি ডোমেইন কেনার জন্য গুগলের নির্ধারিত আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমেই বৈধভাবে ডোমেইনটি কিনতে সক্ষম হন।

নিকোলাস ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে বলেন, আমি ভাবতেও পারিনি এটা আমার কাছে বিক্রি হতে যাচ্ছে।

গুগল আর্জেন্টিনা বিবিসিকে জানায়, খুব অল্প সময়ের জন্য ডোমেইনটি এক ব্যক্তির নিয়ন্ত্রণে চলে গিয়েছিল। কিন্তু খুব দ্রুতই এটি পুনরুদ্ধার করা হয়।

বুধবার রাতে ‍বুয়েন্স আয়ার্সে যখন নিকোলাস এক ব্যক্তির জন্য ওয়েবসাইট ডিজাইন করছিলেন, তখনই এমন ঘটনা ঘটে। তিনি তার হোয়াসঅ্যাপে একটি মেসেজ পান যে, গুগল ধীরগতির হয়ে গেছে।

‘আমি ব্রাউজারে www.google.com.ar প্রবেশ করি, কিন্তু এটি কাজ করছিল না। আমি বুঝতে পারি অদ্ভুত কিছু একটা হয়েছে’, বলেন নিকোলাস।

তিনি বলেন, আমি আর্জেন্টিনার নেটওয়ার্ক ইনফরমেশন সেন্টারে (এনআইসি) প্রবেশ করি, যারা .ar ডোমেইনের জন্য দায়বদ্ধ। সেখানে দেখতে আর্জেন্টিনার গুগল ডোমেইনটি বিক্রির অ্যাভেইলেবল রয়েছে। আমি নির্দেশিকা অনুযায়ী ডোমেইনটি কিনতে সক্ষম হই এবং গুগল আমাকে এ বিষয়ে একটি নিশ্চিতকরণ মেইলে একটি চালানপত্রও দেয়।

নিকোলাস বলেন, আমি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না, আমি এটি কিনতে সক্ষম হয়েছি।

নিকোলাস বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য গুগল আর্জেন্টিনার ওয়েব ঠিকানায় গেলে তিনি আরও হতবাক হন এবং ডোমেইনে নিকোলাস তার নিজের তথ্য দেখতে পান। তখনও কোটি কোটি মানুষ গুগল সার্চের জন্য নিকোলাসের সদ্য কেনা ডোমাইনে প্রবেশ করছিল।

এরপরই তিনি এক টুইটে বিষয়টি খোলাসা করেন, তিনি লেখেন, এর পেছনে আমার কোনো খারাপ উদ্দেশ্য ছিল না। আমি কিনতে চেয়েছি, আর গুগল এটি অনুমোদনও দিয়েছে। কিন্তু প্রশ্ন হলো এটা হলো কীভাবে?

অনেকেই ভাবছেন, আর্জেন্টিনার ওই ডোমেইনের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল, গুগল তা আর হালনাগাদ করেনি। কিন্তু পরে দেখা যায়, আগামী জুলাইয়ে পর্যন্ত ডোমেইনটির মেয়াদ রয়েছে। ফলে বিষয়টি আরও রহস্যজনক হয়ে যায়।

তবে কোনো বিপদে পড়েননি এতে খুশি নিকোলাস। উল্টো বিশ্বব্যাপী খবরের শিরোনাম হয়েছেন, এবং আর্জেন্টাইনদের প্রশংসা কুড়িয়েছেন বিষয়টি স্বীকার করে টুইট করার জন্য।

অন্যদিকে, গুগলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কীভাবে এমন ঘটনা ঘটল, তা খতিয়ে দেখা হবে।