‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার’ অ্যাওয়ার্ডের প্রাইজ মানি ৩ লাখ, আবেদন চলছে

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার’ নির্বাচন ও অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন আহ্বান করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। দেশের সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এ অ্যাওয়ার্ডের প্রাইজ মানি ৩ লাখ টাকা। সঙ্গে নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা পাবেন সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা ও গবেষণা ভাবনায় পরবর্তী প্রজন্মকে উজ্জীবিত করতে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের আওতায় এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

সামাজিক বিজ্ঞান, কলা ও মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা, আইন, ভৌতবিজ্ঞান, গাণিতিক বিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, কৃষিবিজ্ঞান, সমুদ্রবিজ্ঞান, পরিবেশবিজ্ঞান বা পরমাণুবিজ্ঞান, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বা এমার্জিং টেকনোলজি, শিক্ষা ও উন্নয়ন, চিকিৎসাবিজ্ঞান, চারু ও কারু এবং ধর্মীয় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীরা ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার’ নির্বাচন ও অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

সামাজিক বিজ্ঞান, কলা ও মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি, চিকিৎসাবিজ্ঞান এবং কৃষিবিজ্ঞান অধিক্ষেত্রে দুজন এবং অবশিষ্ট অধিক্ষেত্রগুলোয় একজন করে মোট ২২ জন চূড়ান্তভাবে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার’ অ্যাওয়ার্ড পাবেন।

আবেদনের নিয়ম ও শর্তাবলি
১.
‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্কলার নির্বাচন ও অ্যাওয়ার্ড প্রদান নির্দেশিকায়’ বর্ণিত শর্ত, যোগ্যতা এবং অন্যান্য বিষয়াদি অনুসরণ করে শিক্ষার্থীদের আবেদন করতে হবে। এ নির্দেশিকা এবং আবেদনপত্রের ফরম ট্রাস্টের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।
২.
বৃত্তির জন্য অবশ্যই এসএসসি ও এইচএসসিতে জিপিএ–৫.০০ (স্কেল ৫.০০ এর ক্ষেত্রে) এবং স্নাতকে জিপিএ বা সিজিপিএ–৩.৭০ (স্কেল ৪.০০–এর ক্ষেত্রে) থাকতে হবে।

৩.
সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে ভর্তির নিশ্চয়তা পেয়েছেন বা ভর্তি হয়েছেন এমন শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্রের সঙ্গে সব শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, নম্বরপত্র ও সহশিক্ষা কার্যক্রমের (এক্সট্রা কারিকুলাম অ্যাকটিভিটিজের) সনদের সত্যায়িত অনুলিপি সংযোজন করতে হবে।

৪.
আবেদন ফরম আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর রেজিস্টার্ড ডাকযোগে বা সরাসরি পৌঁছাতে হবে। নির্ধারিত তারিখ ও সময়ের পর প্রাপ্ত কোনোও আবেদন গ্রহণ করা হবে না।

৫.
কর্তৃপক্ষ যেকোনো সময় এ বিজ্ঞপ্তি বাতিল বা পরিবর্তন এবং যেকোনো আবেদন বিবেচনা বা বাতিলের ক্ষমতা সংরক্ষণ করে।

*বিজ্ঞপ্তিতে দেখতে এখানে ক্লিক