ফেসবুকের মূল প্রতিষ্ঠানের নাম বদলে এখন ‘মেটা’

অবশেষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক কোম্পানির নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। নাম দেওয়া হয়েছে ‘মেটাভার্স’। সংক্ষেপে ‘মেটা’। বৃহস্পতিবার ফেসবুকের বার্ষিক সম্মেলনে নুতন নাম ঘোষণা করেন ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ।

ফেসবুকের নামের পরিবর্তন নিয়ে বেশ কিছুদিন আলোচনা চলছিল। তার প্রতিফলনই ঘটল বার্ষিক সম্মেলনে। বহুজাতিক প্রযুক্তি সংস্থা ফেসবুক ইনকরপোরেশন নাম বদলালেও তার ফেসবুক অ্যাপটির নাম বদলায়নি। ইনস্টাগ্রাম, ওকুলাস, হোয়াটসঅ্যাপের মতো ফেসবুক অ্যাপটিও থাকছে বলে জানিয়েছেন জাকারবার্গ।

এ সম্পর্কৃত বিবৃতিতে ফেসবুক বলেছে, এখন আর প্রতিষ্ঠানটির পরিসর শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সীমাবদ্ধ নেই। এটি এখন ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটির মতো এলাকা নিয়ে কাজ করছে। ফলে বান্ড নামেও এর প্রতিফলন থাকা দরকার।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, এই নাম বদলের কারণে বিশ্বের কোটি ব্যবহারকারীর কাছে পরিচিত ফেসবুকের নামটি বদলাচ্ছে না। ঠিক থাকছে ইনস্টাগাম, হোয়াটসঅ্যাপের নাম। তবে এসব প্রতিষ্ঠান আগে ফেসবুকের অধীন বলে বিবেচিত হলেও এখন থেকে এগুলো মেটার আওতাধীন বলে বিবেচিত হবে।

বিষয়টি অনেকটা গুগল ও আলফাবেটের মধ্যকার সম্পর্কের মতো। গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান যেমন আলফাবেট, ঠিক তেমনি ফেসবুকসহ এর অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর মূল প্রতিষ্ঠান হিসেবে এখন থেকে মেটা বিবেচিত হবে।

একের পর এক কেলেঙ্কারির পরও ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মার্ক জাকারবার্গের সেই স্বপ্নের মেটাভার্সের দিকেই যে ফেসবুক এগিয়ে যাচ্ছে, এই ঘোষণা অন্তত তাই প্রমাণ করে।

এ বিষয়ে জুকারবার্গ লিখেছেন, ‘ক্লাসিকস পড়তে বরাবরই ভালোবাসি। গ্রিক শব্দ ‘বিয়ন্ড’ (অনন্ত) থেকে এসেছে মেটা শব্দটি। ব্যক্তিগতভাবে এই শব্দ বেছে নেওয়ার কারণ আরও অনেক কিছু তৈরি করা বাকি। আমাদেরও পথচলার অনেক নতুন পথ বাকি, সেই ধারণা থেকেই এই নামকরণ।’

এই ঘোষণার মাধ্যমে শুধু একটি নামই আসেনি। এসেছে নতুন একটি লোগোও। যুক্তরাষ্ট্রের অলিফোনিয়ার মেনলো পার্কে নিজেদের সদর দপ্তরে এরই মধ্যে শোভা পেতে শুরু করেছে নতুন লোগো।

অনুষ্ঠানে ‘মেটা’র আওতায় নতুন বিভিন্ন অ্যাপস ও প্রযুক্তি পণ্য বাজারে আনার ঘোষণা দেন জাকারবার্গ।

কয়েকদিন আগে ফেসবুকের এক কর্মকর্তা অভিযোগ তোলেন, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তার বদলে মুনাফাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়। শিশু কিশোরদের ক্ষতির কারণ সম্পর্কে অবগত থাকা সত্ত্বেও তারা এ সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে না।

এ নিয়ে গোটা বিশ্বেই ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। ফেসবুকের মুনাফায়ও টান পড়ে। সুনামের প্রশ্ন তো রয়েছেই। কিন্তু মার্ক জাকারবার্গ যে তাঁর রাস্তা থেকে পিছু হটেননি, তা এখন পরিষ্কার।

২০১৫ সালে গুগল তার কোম্পানি কাঠামো নতুন করে সাজিয়েছিল। সে সময়ই তারা নতুন নাম নেয় আলফাবেট।

অনুষ্ঠানে মার্ক জাকারবার্গ পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে, মেটাভার্স নির্মাণের লক্ষ্য নিয়ে তিনি এগিয়ে যাচ্ছেন, তাতে তিনি এখনো অটল। তিনি স্পষ্টভাবে বলেছেন, আজ আমরা যা করছি, তার কাছাকাছি প্রতিনিধিত্বও বর্তমান বান্ডের মাধ্যমে করা যাচ্ছে না। ভবিষ্যৎ তো অনেক দূরের ব্যাপার।