প্রাথমিকের বিস্কিট প্রকল্প নিয়ে পরিকল্পনা কমিশনের নির্দেশনা জারি

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে বিস্কিট বিতরণ প্রকল্পের মেয়াদ আরও ছয় মাস বৃদ্ধির চূড়ান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। মেয়াদ বাড়লেও প্রকল্পে ব্যয় বাড়ানো হয়নি। নতুন প্রকল্প তৈরির শর্তে এর মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) পরিকল্পনা কমিশন থেকে এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘দারিদ্র্য পীড়িত এলাকায় স্কুল ফিডিং কর্মসূচী (৩য় সংশোধিত)’ শীর্ষক প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধি না করেই দ্বিতীয় বারের মতো মেয়াদ চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত আইএমইডির শর্ত পালন সাপেক্ষে ও নির্দেশক্রমে বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রকল্পের উদ্বৃত্ত টাকা দিয়ে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রাথমিকের ৩০ লাখ শিক্ষার্থীদের উচ্চ পুষ্টিমানের বিস্কিট বিতরণ করা হবে।’

শর্ত হিসেবে বলা হয়েছে, ‘স্কুল ফিডিং কার্যক্রম পর্যালোচনা করে একটি কার্যকর মডেল নির্ধারণ এবং ব্যয় প্রাক্কলনের ফলাফল যাচাই করে নতুন প্রকল্প প্রস্তাব প্রণয়নের কাজ বর্ধিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করে আইএমইডিকে অবহিত করতে হবে ‘

এদিকে, গত দুই মাস আগে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি চেয়ে প্রস্তাব পাঠিয়েছিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তাতে সম্মতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়া হয়। এই সময়ের মধ্যে ‘প্রাইমারি স্কুল মিল প্রকল্প’র ডিপিপি (উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা) সংশোধনের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

জানা গেছে, গত ১ জুন একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী ‘প্রাইমারি স্কুল মিল প্রকল্প’ অনুমোদন না দিয়ে ডিপিপি সংশোধনের প্রস্তাব দেন। নতুন প্রকল্প অনুমোদন না হওয়ায় এবং বিস্কিট বিতরণ প্রকল্পের মেয়াদ গত ৩০ জুন শেষ হয়ে যায়। নতুন প্রকল্পের ডিপিপি সংশোধন করতে অন্তত এক বছর সময় লাগবে। এই সময়ে বিস্কুট বিতরণ প্রকল্পের সুবিধাভোগী ৩০ লাখ শিক্ষার্থী অপুষ্টি ও ঝরে পড়ার আশঙ্কা থেকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) ব্যয় না বাড়িয়ে আরও এক বছর প্রকল্পের মেয়াদ বাড়াতে মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠায়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, প্রকল্পের মেয়াদ বাড়াতে হলে যৌক্তিকতা তুলে ধরে পরিকল্পনা কমিশনে প্রস্তাব পাঠাতে হয়। কমিশন প্রস্তাব যাচাই-বাছাই করে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ায়।

স্কুল ফিডিং প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, দেশের দারিদ্র্যপীড়িত ১০৪টি উপজেলায় ২০১০ সাল থেকে প্রকল্পের অধীনে ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে প্রতিদিন ৭৫ গ্রামের এক প্যাকেট বিস্কিট বিতরণ করা হয়। বিস্কিট থেকে একজন শিক্ষার্থী প্রতিদিন ৩৩৮ কিলো ক্যালরি শক্তি পায়।

প্রকল্পটি প্রথম দফায় ২০১০ সালের ১ জুলাই থেকে ২০১৪ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাস্তবায়ন করা হয়। পরবর্তী সময়ে প্রকল্প সংশোধন করে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় এক হাজার ১৪২ কোটি ৭৯ লাখ ৯১ হাজার টাকা। এর মধ্যে জিওবি ৫৯৭ কোটি ৭০ লাখ ৫৭ হাজার টাকা ও প্রকল্প সাহায্য ৫৪৫ কোটি ৯ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

বিস্কিট বিতরণের সফলতা থেকে সারা দেশের প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের দুপুরে খাবার দিতে প্রণয়ন করা হয় জাতীয় স্কুল মিল নীতিমালা-২০১৯। নীতিমালা অনুযায়ী ‘প্রাইমারি স্কুল মিল প্রকল্প’টি গত ১ জুন একনেকে উত্থাপন করা হয়। শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবার খিচুড়ি দেওয়ার প্রস্তাব করায় প্রধানমন্ত্রী ডিপিপি সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছেন। এর আগে প্রকল্প বাস্তবায়নে বিদেশে সফর রাখায় একনেক থেকে প্রকল্পটি ফেরত পাঠানো হয়। এ নিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনায় পড়তে হয় সরকারকে।

দারিদ্র্যপীড়িত এলাকায় স্কুল ফিডিং প্রকল্পটি গত ডিসেম্বরে শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ‘প্রাইমারি স্কুল মিল প্রকল্প’ প্রকল্পটির অনুমোদনে বিলম্বের কারণে ব্যয় না বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত আরেক দফা মেয়াদ বাড়ানো হয়। করোনার কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা যাতে ঝরে না পড়ে সেজন্য চলমান প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। মহামারির মধ্যেও শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিস্কুট বিতরণ করেন।