প্রস্তাবিত বাজেটকে ব্যবসাবান্ধব হিসেবে দেখছেন ব্যবসায়ীরা

২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটকে ব্যবসাবান্ধব অন্তর্ভুক্তিমূলক বাজেট হিসেবে দেখছে দেশের ব্যবসায়ীমহল। অপ্রদর্শিত অর্থবিনিয়োগের সুযোগ অর্থপাচারের প্রবণতা কমাবে বলে মত তাদের। এদিকে পোশাক শিল্পের শীর্ষ সংগঠন বাজেটকে ইতিবাচক বললেও উৎসে কর না বাড়ানো, নগদ প্রণোদনায় কর অব্যাহতি চেয়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের প্রতিক্রিয়ায় ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডিসিসিআই সভাপতি এসএমই উদ্যোগেও শ্রমিকদের বেতন দিতে ২% সুদে তহবিল জোগান, কাজ হারানো বেকারদের জন্য সীমিত আকারে ভাতা চালুসহ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন। সন্তোষ প্রকাশ করেন কৃষি যান্ত্রিকীকরণ ও ভর্তুকি বাড়ানোর মত উদ্যোগে।

রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামসুল আলামিন জানান, রিহ্যাবের যে ২১১টি সাব সেক্টর আছে এদের সবার কার্যক্রম বেড়ে যাবে এবং এ সেক্টরে প্রচুর বিনিয়োগ হবে বলে মনে করি। দেশে যদি বিনিয়োগ করার সুযোগ থাকে তাহলে আর বিদেশে টাকা পাচার হবে না।

প্রস্তাবিত বাজেটে আবাসন ও পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছে। যা এখাতগুলোতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

পোশাক শিল্পমালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ লিখিত ও ভিডিও বার্তায় বাজেটকে করোনার অভিঘাত বিবেচনায় সময়োপযোগী বলে সন্তোষ প্রকাশ করার পাশাপাশি কিছু দাবিও জানিয়েছে।

বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক জানান, কোভিড পরবর্তী বিশ্ব বাজারে ভোক্তা পর্যায়ে অনলাইন ভিত্তিক বিপণন ব্যবস্থাটাকে অনেক বেশি গুরুত্বের সঙ্গে দেখতে হবে। যার জন্য এখন থেকেই আমাদের প্রস্তুতির প্রয়োজন রয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের সুনির্দিষ্ট বাজেট প্রস্তাবনাগুলো পুনঃবিবেচনা করার জন্য সরকারের দৃষ্টি আর্কষণ করছি।

ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো মনে করে জুনের শেষে পাস হতে যাওয়া বাজেটে তাদের দাবিগুলো বিবেচনা করবে সরকার।