প্রতি ইউনিয়ন পরিষদের নিয়ন্ত্রণে কবরস্থান রাখার সুপারিশ

দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নিয়ন্ত্রণে একটি করে কবরস্থান স্থাপনের জন্য নীতিমালা তৈরির সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। রোববার জাতীয় সংসদে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়।

কমিটির সদস্যরা বলেন, দেশের যত্রতত্র রাস্তার পাশে মসজিদ, কবরস্থান, শ্মশান নির্মাণ করা হয়। অবকাঠামোগত উন্নয়নের সময় এগুলোর দেয়াল ভাঙা যায় না। এজন্য এগুলো রাস্তার পাশে নির্মাণের আগে স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করার জন্য নির্দেশনা আগেই দেয়া হয়েছে। যা নির্মাণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আর্থিক সহায়তা দেবে।

কমিটির সদস্য ছানোয়ার হোসেন বলেন, `যেহেতু আমরা বিভিন্ন জায়গায় মডেল মসজিদ করতেছি। কবরস্থান আমাদের খুবই প্রয়োজনীয় হয়ে গেছে। কারণ বর্ষাকালে অনেক কবরস্থানে দাফন করা যায় না। সেই জন্য ইউপির তত্ত্বাবধানে একটি কবরস্থান থাকবে। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

জাতীয় সংসদ সচিবালয় থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজকের বৈঠকে ৮ম বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্তগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি সম্পর্কে বিশদ আলোচনা হয় এবং সিদ্ধান্তগুলো দ্রুততম সময়ে বাস্তবায়নের জন্য কমিটি মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করে। কমিটি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর ২৮ কোটি টাকা ব্যয়ে স্টাডি কার্যক্রমের বর্তমান অবস্থা বিস্তারিতভাবে পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য সুপারিশ করে।

সভায় সমবায় অধিদফতরের সার্বিক কার্যাবলী এবং ‘আমার গ্রাম আমার শহর’-এর কার্যক্রম বাস্তবায়নের হালনাগাদ তথ্য সংসদীয় কমিটির আগামী সভায় উপস্থাপন করার জন্য বলা হয়।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন-স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য, মসিউর রহমান রাঙ্গা, শাহে আলম, ছানোয়ার হোসেন, আব্দুস সালাম মূর্শের্দী।