পেছাচ্ছে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা, জুলাইয়ে আয়োজনের চিন্তা

চলমান করোনা ভাইরাসের কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের অনার্স প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে। পরীক্ষার বিষয়টি পেছানোর জন্য আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) জরুরি বৈঠক ডেকেছে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। তিনি বলেন, চলমান পরিস্থিতিতে পরীক্ষা আয়োজন কর সম্ভব হবে না। করোনার কারণে আমরা পরীক্ষা সংক্রান্ত কাজগুলো ঠিকভাবে করতে পারছি না। এই অবস্থায় পরীক্ষা পেছানো ছাড়া আর কোনো উপায় আছে বলে মনে হচ্ছে না।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পরীক্ষা পেছানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ডিনস কমিটি, ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি ও সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধানরা মিলে পরীক্ষা পেছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এ বিসয়ে আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত নিতে আগামীকাল সকাল ১১টায় ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

সূত্র আরও জানায়, নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জুলাইয়ের শেষ দিকে পরীক্ষা শুরু হয়ে আগস্টের ১০ তারিখের মধ্যে শেষ করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সাথে বৈঠক করে তারিখ চূড়ান্ত করা হবে। আগামীকাল বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ব্যাপারে জানিয়ে দেয়া হবে।

এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, যেহেতু পরীক্ষা পেছানো হচ্ছে, সেহেতু একটা নতুন তারিখ নির্ধারণ করতে হবে। এজন্য আমরা তারিখ ঠিক করে রেখেছি। এখন বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সাথে বৈঠক করে আমরা স্লট নিবো। কাল সকাল ১১টায় বৈঠক শুরু হবে। আশা করছি ১২টা সাড়ে ১২টার মধ্যে আপনারা সব জেনে যাবে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চেইলে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতুরুজ্জামান বলেন, আমাদের অবশ্যই বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে বিজ্ঞান সম্মত উপায়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমাদের জেনারেল এডমিশন কমিটিতে একশ জনের উপর সদস্য। সবার সাথে আলোচনা করে কাল সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২ এপ্রিল ঢাবিতে ভর্তি আবদেন শেষ হয়েছে। এবার ‘ক’ ইউনিটে আবেদন করেছেন ১ লাখ ২৩ হাজার ৮০৬ জন ‘খ’ ইউনিটে ৪৭ হাজার ৯৬২ট জন, ‘গ’ ইউনিটে ২৭ হাজার ৭৫৬ জন, ‘ঘ’ ইউনিটে ১ লাখ ২১ হাজার ৫৩৭ জন এবং ‘চ’ ইউনিটে ২২ হাজার ৬৫১ জন আবেদন করেছেন।

পরীক্ষায় নম্বর বন্টন যেভাবে: ‘ক’, ‘খ’, ‘গ’ ও ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৬০ নম্বরের এমসিকিউ এবং ৪০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হবে। উভয় অংশের জন্য ৪৫ মিনিট করে সময় পাবেন শিক্ষার্থীরা। ‘চ’ ইউনিটের পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের এমসিকিউ এবং ৬০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হবে। ‘চ’ ইউনিটের এমসিকিউ পরীক্ষার জন্য ৩০ মিনিট এবং লিখিত পরীক্ষার জন্য ৬০ মিনিট সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

আসন সংখ্যা: ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আবহাওয়া বিজ্ঞান নামে নতুন বিভাগ চালু হতে যাচ্ছে। এতে আসন সংখ্যা ১৫টি। ফলে এবার মোট আসন সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ১৩৩টি। এর মধ্যে ক-ইউনিটে ১৮১০টি, খ-ইউনিটে ২৩৭৮টি, গ-ইউনিটে ১২৫০টি, ঘ-ইউনিটে ১৫৬০টি এবং চ-ইউনিটে ১৩৫টি আসন রয়েছে।