পরীক্ষা ছাড়াই গ্রেডিং, ফল পতনে ক্ষুব্ধ ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষার্থীরা

চলতি বছরের শুরুতে মহামারি করোনা ভাইরাস হানা দেয়ার পর থেকে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছে। করোনা প্রাদুর্ভাবে উদ্ভুত পরিস্থিতে পরীক্ষা ছাড়া ‘এ’ লেভেলের ফল প্রকাশ করেছে কেমব্রিজ ইন্টারন্যাশনাল। কিন্তু বিভিন্ন দেশে এই ফলকে কেন্দ্র করে ব্যাপক অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে।

গত ১১ আগস্ট বিশ্বব্যাপী চলতি বছরের জুন সিরিজের ফল প্রকাশ করে কেমব্রিজ ইন্টারন্যাশনাল। তবে করোনার কারণে পরীক্ষা না নিয়ে বিশ্বব্যাপী শিক্ষকদের সহায়তায় গ্রেডিং প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছিল কেমব্রিজ। এক বিজ্ঞপ্তিতে কেমব্রিজ জানিয়েছিল, এক সঙ্গে ১৩৯টি দেশের চার হাজার স্কুলের নয় লাখ ৫০ হাজারেরও বেশি গ্রেড ইস্যু করা হয়েছে।

এদিকে ফল প্রকাশের পর থেকেই সানিডেল, স্কলাস্টিকা, এসএফএক্স গ্রিন হেরাল্ড, টার্কিশ হোপ ইন্টারন্যাশনালসহ কেমব্রিজ ইন্টারন্যাশনালের অধীন দেশের প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে আপত্তি উঠেছে ফল আগের তুলনায় খারাপ হয়েছে। তবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা তাদের অভিযোগের বিষয়ে কোন সদুত্তর পাচ্ছিলেন না স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে।

এমন অবস্থায় রবিবার গ্রিন রেলাল্ডসহ বেশকিছু প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সকাল থেকেই প্রতিবাদ শুরু করেন। কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শিক্ষকদের সঙ্গে দেখা করে তাদের দাবির বিষয়টি তুলে ধরে বলেন, ‘অধ্যক্ষের কাছে আমরা জানতে চাই আগের তুলনায় খারাপ ফল কেন হলো : আগের সিরিজে গ্রেড ‘এ’ থাকলে এখন কিভাবে ‘বি’ দেয়া হলো? আগের ‘বি’ থাকলে এখন কিসের ভিত্তিতে ‘সি’ দেয়া হলো। আবার অনেকের আগে ‘কি’ থাকলেও এখন কিভাবে ‘এ’ হলো? আমরা তাদের অভিযোগের সদুত্তর চাই।’

এক শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন, ‘আমার বাবাসহ তিনজন অভিভাবক স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছেন। আমরা কেবল এইটুকু জানতে পেরেছি, ১৮ আগস্ট ফলাফল নিয়ে কেমব্রিজ ইন্টারন্যাশনাল কিছু একটা বক্তব্য জানাবে। হয়ত ফলাফলের বিরুদ্ধে আপীলের সুযোগ দেয়া হতে পারে। তবে তাও আমাদের কাছে পরিষ্কার নয়। ডাউন গ্রেডের কারণে এখন আমিসহ অনেকে বিদেশে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আবেদন করতেই পারব না। কারণ সেখানে আবেদনের ন্যূনতম যোগ্যতাও অনেকের থাকবে না। অথচ আগের ফল হিসেবেও এমন হওয়ার কথা ছিল না।’ গ্রিন হেরাল্ডের শিক্ষার্থীরা বলছেন, এ বছর ১২৮ শিক্ষার্থীর ফলাফল ডাউন গ্রেড হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, এ ধরনের ফল উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে যেতে চাইলে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি পাওয়ার সম্ভাবনা নষ্ট হবে। ন্যূনতম যোগ্যতা না থাকায় দেশের বিশ্ববিদ্যালয়েও অনেকে আবেদন করতে পারবে না।

ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক জিএম নিজাম উদ্দিন অবশ্য মনে করছেন, অবশ্যই আপীলের সুযোগ পাবেন শিক্ষার্থীরা। তিনি বলেন, আমরা সমস্যার বিষয়গুলো কেমব্রিজকে জানিয়েছি।

এমন সমস্যা পৃথিবীর অন্য বহু দেশে হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, করোনার কারণে পরীক্ষা ছাড়া আগের ফলাফল মূল্যায়ন করে প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে যে গ্রেড পাঠানো হয়েছে কেমব্রিজ হয়ত আরও কঠোরভাবে ফলাফল মূল্যায়ন করে গ্রেডিং করেছে। এতে অনেকের ফল প্রতিষ্ঠান থেকে পাঠানো ফলের তুলনায় খারাপ হয়েছে।