নিম্ন আদালতে দেওয়ানি জরুরি আবেদনসহ সাকসেশন মামলা শুনানি করা যাবে

অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে দেওয়ানি মামলার জরুরি আবেদনসমূহ এবং সাকসেশন মামলা শুনানি ও নিষ্পত্তি করা যাবে।

আজ শনিবার (১৮ জুলাই) সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও বিশেষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুর রহমান ল’ইয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ ডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সাইফুর রহমান জানান, প্রধান বিচারপতি সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারপতিদের সঙ্গে আলোচনা করে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জারিকৃত স্বাস্থ্য বিধি এবং শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে অনুসরণ করে অধস্তন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে শুধুমাত্র দেওয়ানি মামলার জরুরি আবেদনসমূহ এবং সাকসেশন মামলা শুনানি ও নিষ্পত্তি করা যাবে।

এদিকে নিম্ন আদালতে শারীরিক উপস্থিতিতে দেওয়ানি মোকদ্দমার জরুরি দরখাস্তসমূহ এবং সাকসেশন মামলা শুনানি ও নিষ্পত্তির বিষয়ে প্র্যাকটিস নির্দেশনা জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নির্দেশে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মোঃ আলী আকবর স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়-

সংশ্লিষ্ট আদালত সাকসেশন মামলা শুনানির জন্য প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করে শুনানি গ্রহণ করবেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে বিচারক সাকসেশন মামলাসমূহের প্রয়োজনীয় সাক্ষ্যগ্রহণসহ চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করবেন।
দেওয়ানি মামলায় জরুরি দরখাস্তসমূহ এবং সাকসেশন মামলার শুনানি ও নিষ্পত্তির পদ্ধতি ও সময়সূচী এমনভাবে নির্ধারণ ও সমন্বয় করতে হবে যাতে আদালত প্রাঙ্গণে ও ভবনে ঝুঁকিপূর্ণ জনসমাগম না ঘটে।
আদালত প্রাঙ্গণ ও এজলাস কক্ষে প্রত্যেকে কমপক্ষে ৬ ফুট শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে এবং সকল প্রকার জনসমাগম পরিহার করতে হবে।
শুনানিতে মামলার পক্ষ সমূহের উপস্থিতির আইনগত আবশ্যকতা না থাকলে এজলাস কক্ষে শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট মামলার উভয়পক্ষের আইনজীবী উপস্থিত থাকবেন।
এজলাস কক্ষে উপস্থিত সকলকে অবশ্যই মুখাবরণ (face mask) ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া আদালতে প্রবেশের সময় প্রত্যেক ব্যক্তির শারীরিক তাপমাত্রা পরীক্ষা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা আবশ্যক।
এজলাস কক্ষে স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনসহ শারীরিক দূরত্ব কঠোরভাবে নিশ্চিত করার স্বার্থে উদ্ভূত যেকোনো পরিস্থিতি বিবেচনায় বিচারক শুনানি করা থেকে বিরত থাকাসহ প্রয়োজনীয় আনুষাঙ্গিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।
অবিলম্বে এ নির্দেশনা কার্যকর হবে এবং পরবর্তী নির্দেশ প্রদান না করা পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।