নন–ক্যাডারে চিকিৎসক নিয়োগের সুপারিশ রোববার

চিকিৎসকদের জন্য বিশেষ বিসিএস ৪২তম থেকে নন–ক্যাডারে আরও কিছু চিকিৎসক নিয়োগের সুপারিশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আগামী রোববার একটি বিশেষ সভা শেষে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে জানিয়েছে পিএসসির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র।

জানতে চাইলে পিএসসির একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, এ বছরের মার্চে ৪২তম বিশেষ বিসিএস থেকে ৫৩৯ জন চিকিৎসককে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। এরপর এখন এমবিবিএস শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন নন-ক্যাডার প্রথম শ্রেণির (নবম গ্রেড) শূন্য পদে নিয়োগের জন্য পিএসসিতে আরও কিছু পদ জমা হয়েছে। ওই পদগুলোর বিপরীতে চিকিৎসক নিয়োগের সুপারিশ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কত পদে নিয়োগ দেওয়া হবে, সেটি সভায় অনুমোদন দেওয়া হবে।

এই নন–ক্যাডার তালিকায় আছেন, এমন কয়েকজন প্রার্থী পিএসসির চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করে তাঁদের ক্যাডার পদে নিয়োগের অনুরোধ করেছেন। তবে এটি সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে পিএসসি।

করোনার বিশেষ পরিস্থিতিতে প্রথমে দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দিতে ৪২তম বিসিএসের আয়োজন করে পিএসসি। পরে সেখান থেকে আরও দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেয় সরকার। একই সময় পিএসসি চার হাজার নার্সও নিয়োগ দেওয়ার সুপারিশ করে।

৪২তম বিসিএস বিশেষ ক্যাডারের লিখিত পরীক্ষায় (এমসিকিউ টাইপ) উত্তীর্ণ হন ৬ হাজার ২২ জন। করোনার প্রেক্ষাপটে দুই হাজার চিকিৎসককে সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দিতে গত বছর ৪২তম বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় (লিখিত টাইপ) ৩১ হাজার চিকিৎসক অংশ নেন।