ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় উচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা, নিয়ন্ত্রণ ঢাকা থেকে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা আগামী ১ অক্টোবর থেকে শুরু হবে। প্রথমবারের মতো এবারই ঢাকার বাইরে দেশের ৮টি বিভাগীয় শহরে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকার বাইরে এ পরীক্ষার আয়োজন নিয়ে ভর্তিচ্ছুদের মাঝে ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়েছে। অনেকে আবার ভর্তি পরীক্ষার স্বচ্ছতার বিষয়ে শঙ্কা প্রকাশ করছেন। তবে সব ধরনের শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে ‘উচ্চ পর্যায়ে’র নিরাপত্তার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হবে আগামী ১ অক্টোবর, ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২ অক্টোবর, ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২২ অক্টোবর, ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৩ অক্টোবর এবং ‘চ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা (সাধারণ জ্ঞান) ৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে।

এসব পরীক্ষা দেশের ৮টি বিভাগীয় শহর ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেট, রংপুর, বরিশাল এবং ময়মনসিংহে অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের অতীত ইতিহাস খুব একটা প্রশস্ত নয়। শুধুমাত্র রাজধানী ঢাকায় ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করেও কর্তৃপক্ষ প্রশ্নফাঁসের মত অনিয়ম ঠেকাতে পারেনি। এ অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় গত কয়েক বছর কয়েকডজন শিক্ষার্থীকে বহিষ্কারও করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এবারে তাই বিভাগীয় শহরে পরীক্ষা আয়োজনে নতুন করে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

তবে করোনায় শিক্ষার্থীদের কল্যাণের কথা মাথায় রেখে প্রথমবারের মত বিভাগীয় শহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এ পদ্ধতিতে শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দমতো নিকটবর্তী পরীক্ষা কেন্দ্রে স্বল্প খরচে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারবেন। বিভাগীয় শহরে ভর্তি পরীক্ষার ফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ও দুর্ভোগ কমবে।

ঢাকা বিভাগের পরীক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে, চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে, রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে, খুলনা বিভাগের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে, সিলেট বিভাগের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যলয়ে, রংপুর বিভাগের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে, বরিশাল বিভাগের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং ময়মনসিংহ বিভাগের পরীক্ষা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা অনুযায়ী প্রয়োজনে নির্দিষ্ট ক্যাম্পাসের বাইরে আশপাশেরে ক্যাম্পাসেও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকার বাইরে এসব পরীক্ষা আয়োজনের কোন ধরনের শঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক ড. মো. আব্দুস ছামাদ। তিনি বলেন, ঢাকায় বসেই আমরা প্রতি মুহূর্তে এসব ভর্তি পরীক্ষা মনিটর করতে পারবো। এরজন্য উচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে। কখন কোথায় কি হচ্ছে, সব প্রতিবেদন তাৎক্ষণিক আমাদের কাছে চলে আসবে।

তিনি আরও বলেন, ঢাবির আগেই মেডিকেল-ডেন্টালের ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে। সেখানে কোন ধরনের অনিয়ম দেখা যায়নি। আমরা প্রয়োজনে তাদেরকে অভিজ্ঞতা নিতে পারবো। এসব বিষয় নিয়ে শিক্ষার্থীদের চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, প্রতিটি বিভাগীয় শহরের পরীক্ষা কেন্দ্রে টিম ওয়ার্কের ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে এসব কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে সমন্বয় করে নিচ্ছি। তারাও আমাদের সহাযোগিতা দেয়ার জন্য আন্তরিক। এছাড়া যেকোন পরিস্থিতি মোকাবিলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও আমাদের সহায়তা দেবে। আমরা আশা করছি, ভালো একটা পরীক্ষা আয়োজন করতে পারবো।