The Rising Campus
News Media
বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩

ঢবির বিজয় একাত্তর হলে খাবার রাস্তায় ফেলে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ প্রকাশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলের শুভেচ্ছা ভোজে নষ্ট খাবার পরিবেশনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। যার প্রেক্ষিতে খাবার রাস্তায় ফেলে ক্ষোভ প্রকাশ করে শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিজয় একাত্তর হল ট্রাস্ট ফান্ডের প্রভোস্ট গোল্ড মেডেল, প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে সরবরাহকৃত খাবার নিয়ে এই বিড়ম্বনার সূত্রপাত। বিভিন্ন ঝামেলার পর এদিন রাত আনুমানিক সাড়ে আটটার পরে খাবার বিতরণ করা হয়।

বিজয় একাত্তর হলের শিক্ষার্থীরা জানান, খাবারের বাটির ভেতরে পোলাও, এক পিস মুরগির রোস্ট এবং একটা ডিম দেওয়া হয়। কিন্তু বাটি খুলে দেখা যায় তাতে দুর্গন্ধ দেখা দিয়েছে। যা আর খাওয়ার উপযুক্ত নেই।

নষ্ট খাবার পরিবেশনে বিষয়ে বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবদুল বাছির বলেন, প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং গোল্ড মেডেল প্রদান উপলক্ষে স্ন্যাকস দেওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু করোনার পরবর্তীকালে আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর যেহেতু এই প্রথম প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং গোল্ড মেডেল দেওয়া হচ্ছে। তাই আমি রাতের খাবারের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব দেই হল ক্যান্টিনকে।

তিনি আরো বলেন,  সবকিছু ঠিক থাকলেও তারা গরম খাবার বাটিতে তুলে সারি করে রেখে দেয়। তাই গরমে খাবার নষ্ট হয়ে গেছে। সব খাবার নষ্ট হয়নি, কিছু খাবার নষ্ট হয়েছে। এর দায়ভার কোনো শিক্ষকের নয় বরং হলের প্রভোস্ট হিসেবে দায়ভার আমার। অচিরেই আমরা হলের শিক্ষার্থীদের জন্য আবারও খাবারের আয়োজন করবো।

0
You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.

  1. হোম
  2. ক্যাম্পাস
  3. ঢবির বিজয় একাত্তর হলে খাবার রাস্তায় ফেলে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ প্রকাশ

ঢবির বিজয় একাত্তর হলে খাবার রাস্তায় ফেলে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ প্রকাশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজয় একাত্তর হলের শুভেচ্ছা ভোজে নষ্ট খাবার পরিবেশনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। যার প্রেক্ষিতে খাবার রাস্তায় ফেলে ক্ষোভ প্রকাশ করে শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিজয় একাত্তর হল ট্রাস্ট ফান্ডের প্রভোস্ট গোল্ড মেডেল, প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে সরবরাহকৃত খাবার নিয়ে এই বিড়ম্বনার সূত্রপাত। বিভিন্ন ঝামেলার পর এদিন রাত আনুমানিক সাড়ে আটটার পরে খাবার বিতরণ করা হয়।

বিজয় একাত্তর হলের শিক্ষার্থীরা জানান, খাবারের বাটির ভেতরে পোলাও, এক পিস মুরগির রোস্ট এবং একটা ডিম দেওয়া হয়। কিন্তু বাটি খুলে দেখা যায় তাতে দুর্গন্ধ দেখা দিয়েছে। যা আর খাওয়ার উপযুক্ত নেই।

নষ্ট খাবার পরিবেশনে বিষয়ে বিজয় একাত্তর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবদুল বাছির বলেন, প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং গোল্ড মেডেল প্রদান উপলক্ষে স্ন্যাকস দেওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু করোনার পরবর্তীকালে আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর যেহেতু এই প্রথম প্রভোস্ট অ্যাওয়ার্ড এবং গোল্ড মেডেল দেওয়া হচ্ছে। তাই আমি রাতের খাবারের ব্যবস্থা করার দায়িত্ব দেই হল ক্যান্টিনকে।

তিনি আরো বলেন,  সবকিছু ঠিক থাকলেও তারা গরম খাবার বাটিতে তুলে সারি করে রেখে দেয়। তাই গরমে খাবার নষ্ট হয়ে গেছে। সব খাবার নষ্ট হয়নি, কিছু খাবার নষ্ট হয়েছে। এর দায়ভার কোনো শিক্ষকের নয় বরং হলের প্রভোস্ট হিসেবে দায়ভার আমার। অচিরেই আমরা হলের শিক্ষার্থীদের জন্য আবারও খাবারের আয়োজন করবো।

পাঠকের পছন্দ

মন্তব্য করুন