জয়ের ধারায় রিয়াল মাদ্রিদ, দুই অ্যাথলেটিকোর ড্র

তিন মাস পর মাঠে নেমেই জয়ের দেখা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। এইবারকে ৩-১ গোলে হারিয়েছেন লস ব্লাঙ্কোসরা।

ম্যাচ মূলতঃ প্রথমার্ধেই শেষ করে দিয়েছিল মাদ্রিদের জায়ান্টরা। ম্যাচের চার মিনিটের সময় ডান পায়ের দুর্দান্ত এক শটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুস। বক্সের ভেতর ঢুকে বামপ্রান্তে করিম বেনজেমা দুর্দান্ত পায়ের কাজে বোকা বানিয়ে দেন এইবার রক্ষণভাগকে। বাকি কাজটা সহজেই শেষ করেন ক্রুস। ডান পায়ের মাপা শটে বল জালে জড়ান(১-০)।

প্রথম গোলের মতো দ্বিতীয় গোলে রয়েছে বেনজেমার ভূমিকা।এটি মৌসুমে ৬ষ্ঠ সহায়তাল বেনজেমার। মাঝমাঠের একটু সামনে থেকে ডান পায়ের মাটিঘেঁষা ক্রস খুঁজে নেয় ডান উইংয়ে গোলরক্ষককে একা পেয়ে যাওয়া এডেন হ্যাজার্ডকে। হ্যাজার্ডও নিঃস্বার্থভাবে বলটা বাড়িয়ে দেন ৭০ মিটার দৌড়ে স্ট্রাইকারের ভূমিকায় হাজির হওয়া ডিফেন্ডার সার্জিও রামোসের দিকে। রিয়াল অধিনায়কের ফিনিশিংয়ে ২-০ গোলে এগিয়ে যায় তারা। ম্যাচের তখন ৩০ মিনিট।

বেনজেমার বানিয়ে দেওয়া বলে হ্যাজার্ডের দুর্দান্ত শট ফিরিয়ে দেন এইবারের গোলরক্ষক দিমিত্রোভিচ। ফিরতি বল চলে যায় আগুয়ান মার্সেলোর পায়ে। মার্সেলোর বুলেট শট আর ফেরানোর সাধ্য ছিল না দিমিত্রভিচের। ৩৭ মিনিটেই ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় রিয়াল।

দ্বিতীয়ার্ধে রিয়াল একটু দায়সারাভাবে খেলেছে। ফলে ম্যাচের লাগাম একটু হলেও এইবারের হাতে চলে যায়। ৬০ মিনিটে পেদ্রো বিগাসের কল্যাণে একটা গোল শোধ করে বসে এইবার।

অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের মাঠে ১-১ গোলে ড্র করেছে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। ঘরের মাঠে মুনিয়াইনের গোলে ৩৭ মিনিটের সময় এগিয়ে যায় বিলবাও। দুই মিনিট পরই ডিয়েগো কস্তার গোলে সমতায় ফেরে সিমিওনের শিষ্যরা। এই ড্রয়ের ফলে শীর্ষে থাকা বার্সার সাথে অ্যাথলেটিকোর পয়েন্ট ব্যবধান দাড়াল ১৫। ২৮ রাউন্ড শেষে কাতালানদের সংগ্রহ ৬১ পয়েন্ট, দুই পয়েন্ট কম নিয়ে দুইয়ে রিয়াল মাদ্রিদ।