জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় শনিবার ছুটির দিনেও বিএড ও স্নাতকোত্তর পরীক্ষা

বর্তমানে সরকারি সিদ্ধান্তে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে শুক্র ও শনিবার দুই দিন ছুটি। এর মধ্যেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ২০২১ সালের বিএড প্রথম সেমিস্টার ও স্নাতকোত্তর প্রথম পর্বের (পুরোনো সিলেবাস বিশেষ) পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ করেছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশ করা পরীক্ষার সূচিতে দেখা গেছে, ২০২১ সালের বিএড প্রথম সেমিস্টার পরীক্ষার সূচি অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবার থেকে পরীক্ষা শুরু হয়েছে, যা আগামী ৩ অক্টোবর শেষ হবে। ১২টি বিষয়ে ১২ দিন পরীক্ষা নেওয়া হবে। এর মধ্যে সরকারি ছুটির দিন শনিবার চারটি পরীক্ষা রয়েছে। এ ছাড়া ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে স্নাতকোত্তর প্রথম পর্ব পুরোনো সিলেবাসে (বিশেষ) মাসব্যাপী পরীক্ষা শুরু হচ্ছে। এ সময়সূচিতেও চারটি শনিবার পরীক্ষার দিন নির্ধারিত রয়েছে।

শিক্ষা–সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যশোরে সরকারি ও বেসরকারি চারটি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ রয়েছে। এই চারটি কলেজে বিএড কোর্সে শিক্ষার্থীরা অধ্যয়ন করেন। শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার জন্য একমাত্র কেন্দ্র সরকারি মহিলা কলেজ। তিন শতাধিক শিক্ষার্থী এই কোর্সের প্রথম সেমিস্টারের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন।

এ ছাড়া যশোরের বিভিন্ন কলেজের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের প্রথম পর্বের পরীক্ষা দুটি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্র দুটি হচ্ছে—সরকারি সিটি কলেজ ও সরকারি মহিলা কলেজ। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রকাশিত সময়সূচি অনুযায়ী আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে পরীক্ষা শুরু, চলবে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত। ১০টি বিষয়ে ১০ দিন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে চার দিন সাপ্তাহিক ছুটি রয়েছে।

সরকারি ছুটির দিনে পরীক্ষার সময়সূচি দেওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘সরকারি প্রজ্ঞাপনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহের শুক্র ও শনিবার ছুটি ঘোষণা করা হলেও শনিবার ছুটির দিনে কোন যুক্তিতে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে—আমরা তা বুঝতে পারছি না।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সৈয়দ আহমেদ খান বলেন, ‘সরকারি প্রজ্ঞাপনে শুক্র ও শনিবার ক্লাস বন্ধ থাকবে বলা হলেও পরীক্ষা নেওয়া যাবে না—এমন কথা বলা নেই। এ ছাড়া এই দুই পরীক্ষার সময়সূচি প্রজ্ঞাপনের আগেই প্রণয়ন করা। তবে ভবিষ্যতে প্রজ্ঞাপন অনুসরণ করেই পরীক্ষার সময়সূচি প্রণয়ন করা হবে। যাতে শিক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কোনো সমস্যা না হয়।’