ছাত্রলীগকে নিয়ে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের বৈঠক

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতাদের নিয়ে তাদের দেখভাল করার দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা বৈঠক করেছেন। মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল পাঁচটার পরে শুরু হওয়া এই বৈঠক চলে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন এবং ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকেরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকসূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের হল কমিটি, ঢাকায় সম্মেলন হওয়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইডেন কলেজ, কবি নজরুল কলেজ, সোরাওয়ার্দী কলেজসহ শাখাগুলোর কমিটি গঠন, দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা ঢাকা কলেজসহ রাজধানীতে যেসব কমিটি হয়নি এসব শাখার কমিটি গঠন, সাংগঠনিক প্রক্রিয়া ও কার্যক্রম ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

বৈঠক প্রসঙ্গে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি৷

এদিকে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বৈঠকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ গণমাধ্যম ছাত্রলীগকে অসহযোগিতা করছে বলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে অভিযোগ করেছেন বলে জানা গেছে। ছাত্রলীগ নেতাদের অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ছাত্রলীগ নেতাদের বলেন, তোমরা ভালো কাজ কর, সব মাধ্যমই আবার তোমাদের সহযোগিতা করবে।

বৈঠকে ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের ৪ নেতা করোনাকালীন সময়ে মানবিক কাজের জন্য সংগঠনটির নেতাকর্মীদের শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ দিয়েছেন।

এছাড়াও বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল কমিটি নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের সাথে আলোচনা হয়। এসময় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্য বলেন, করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা বাড়িতে রয়েছেন। তাই কমিটিগুলো সম্ভব হচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সাথে সাথে হল কমিটি দিয়ে দিবেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস। বিষয়টি নিয়ে ছাত্রলীগ নেতাদের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলাপ আলোচনার করার পরামর্শ দেন জ্যেষ্ঠ নেতারা।

বৈঠকসূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের নেতাদের করোনায় মানুষদের সচেতনা সৃষ্টি করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা। এছাড়া সাংগঠনিক কাঠামোসহ জেলা কমিটিগুলো সম্মেলন করে কমিটি দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে বৈঠকসূত্রে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, আফজাল হোসন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাস, দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, শাহাবুদ্দিন ফরাজি।

এসময় বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, এই কঠিন সময়ে ছাত্রলীগ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে, সেই ধারাবাহিকতা ধরে রেখে বিশেষ করে বন্যার ঘনঘটা শুরু হচ্ছে, সেসময়ও তাদের মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।

তিনি বলেন, পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। অতীতে ছাত্রলীগ যেভাবে কাজ করেছে, লকডাউন যখন শিথিল হচ্ছে তখনও যাতে তৃণমূল পর্যায়ে মানুষকে সচেতন করে, মানুষকে যাতে ক্ষুধার কষ্ট পেতে না হয় সেজন্য দুস্থ মানুষদের সহযোগিতা করবে। ছাত্রলীগ সারাদেশে তৃণমূল পর্যায় থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত সবাইকে সঙ্গে নিয়ে মানুষকে সচেতন করবে, সহযোগিতা করবে।

তিনি আরও বলেন, ২৩ তারিখ থেকে সরকারের যে কঠোর লকডাউন পরিকল্পনা রয়েছে, তা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এবং জনগণকে সচেতন করতে ছাত্রলীগ সহযোগিতার পাশাপাশি তাদের মানবিক কর্মকাণ্ড এগিয়ে নিয়ে যাবে। করোনা যতদিন থাকবে ততদিন ছাত্রলীগ এ দায়িত্বশীল কাজ পালন করবে তার পরিকল্পনা নিয়ে আজ আলোচনা হয়েছে। আমরা আশা করি ছাত্রলীগ যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দিয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবে।