ছবির ওপর ব্যবহারকারীর কর্তৃত্ব বাড়াচ্ছে ফেসবুক

নিজের পোস্ট করা ছবির ওপরে ব্যবহারকারীর কর্তৃত্ব আরও বাড়াচ্ছে ফেসবুক। সম্প্রতি এর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে ব্যবহারকারীর পোস্ট করা ছবির মালিকানা সেই পোস্টকারীকেই দিতে যাচ্ছে। মূলত অডিও এবং ভিডিওর মালিকানার মতোই এই ফিচারটি আনতে যাচ্ছে ফেসবুক। তবে কবে নাগাদ এটা আসবে সে সম্পর্কে এখনও পরিষ্কার কিছু জানায় নি প্রতিষ্ঠানটি। সংবাদ মাধ্যম ভার্জের তথ্যে এমনটাই উঠে এসেছে।

তবে, এ পদ্ধতি চালু হলে পরে কারা পার্টনার হবে— এই তথ্য ফেসবুক এখনও প্রকাশ করেনি। তবে তাত্ত্বিকভাবে এটা বোঝা যায় যে ধরা যাক, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি যদি কোনও ছবি ফেসবুকের রাইটস ম্যানেজারে আপলোড করে, তাহলে তারা সেটা পর্যবেক্ষণ করতে পারবে যে, ছবিটা কোথায় প্রদর্শিত হবে। বিষয়টি ঠিক ইনস্টাগ্রাম পেজের অন্যান্য ব্র্যান্ডের মতো। অর্থাৎ সেই ছবিটি পোস্টকারীর নির্ধারণ করে দেওয়া স্থান ছাড়া অন্য স্থানে প্রদর্শিত হবে না।

কপিরাইটের মাধ্যমে ছবি আপলোড করার জন্য ব্যবহারকারীকে ফেসবুকের রাইটস ম্যানেজারে এ ছবির সব মেটাডাটা সমৃদ্ধ একটা সিএসভি ফাইল আপলোড করতে হবে। একইসঙ্গে ব্যাবহারকারীকে নির্ধারণ করে দিতে হবে এই কপিরাইটটি কোন স্থানে কার্যকর হবে এবং ছবিটি কোন কোন স্থানে প্রদর্শিত হবে। এরপর রাইটস ম্যানেজার সেটা যাচাই বাছাই করে ছবিকে সেভাবে প্রদর্শিত করবে। এর পরে যদি অন্য কোনও ব্যক্তি সেই ছবির মালিকানা দাবি করে সে ক্ষেত্রে ফেসবুক প্রথমে দেখবে কার ছবিটি আগে আপলোড করা।

এ ক্ষেত্রে একটা নির্দিষ্ট সময় উভয় পক্ষের পক্ষ-বিপক্ষ লড়াই করার সুযোগ আছে। যদি এর পরেও তারা আপিল করতে চায় তাহলে তারা ফেসবুকের আইপি রিপোর্টিং ফর্ম ব্যবহার করতে পারে।

তবে ইনস্টাগ্রামে এই কপিরাইট আইনের অভিজ্ঞতা খুব এটা ভালো নয়। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি জানায়, ছবি প্রকাশের ক্ষেত্রে ফটোগ্রাফারের অনুমতি লাগবে। তবে অতীতে এক ফটো সাংবাদিক কিছু তারকার বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন, কেননা তারা তার তোলা ছবি অনুমতি ছাড়াই তাদের অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছিলেন। মূলত কপিরাইটের বিষয়টি ইনস্টাগ্রাম অনেকটা জটিল করে ফেলেছে বলে মন্তব্য করেছে সংবাদমাধ্যমটি।